ফুটবল

গোলের ম্যাচ, রোমাঞ্চের ম্যাচ

প্রকাশ : ০১ সেপ্টেম্বর ২০১৯

গোলের ম্যাচ, রোমাঞ্চের ম্যাচ

ছবি: জুভেন্টাসডটকম

  অনলাইন ডেস্ক

জুভেন্টাস-নাপোলি মানেই ইতালির লিগের বড় ম্যাচ। সেই ম্যাচ আরও বড় হয়ে উঠল দুই দলের দুর্দান্ত লড়াইয়ে। দারুণ ঘুরে দাঁড়িয়ে জুভেন্টাসের অ্যালিয়েঞ্জ স্টেডিয়াম থেকে পয়েন্ট নিয়ে ফেরার কাছে চলে আসে কার্লো আনচেলত্তির নাপোলি। কিন্তু যোগ করা সময়ে আত্মঘাতী গোল খেয়ে জুভেন্টাসের কাছে ৪-৩ গোলে হারে তারা।

ইতালির লিগে রক্ষণাত্মক ফুটবল হয় বলেই মনে করেন অনেকে। কিন্তু এদিন যেন গোলের মুখ খোলা ছিল দু'দলের। ম্যাচের প্রথমার্ধেই ঘরের মাঠে নাপোলিকে চেপে ধরে ওল্ড লেডিরা। এরপর দ্বিতীয়ার্ধে ৩-০ গোলে এগিয়ে যায় জুভেন্টাস। সেখান থেকে ঘুরে দাঁড়ায় নাপোলি। তিন গোলই শোধ দিয়ে দেয়। ম্যাচ যখন ৩-৩ গোলে সমতার শেষ হওয়ার অপেক্ষায়। তখনই কাউলিবালির আত্মঘাতী গোলে হেরে ফেরে নাপোলি।

জুভেন্টাসের হয়ে শুরুর ১৭ মিনিটে গোল করেন ব্রাজিল ডিফেন্ডার দানিলো। ম্যানসিটি থেকে জুভেন্টাসে এসেছেন তিনি। সাবেক রিয়াল মাদ্রিদের রাইট ব্যাককে প্রথমার্ধেই বদলি হিসেবে মাঠে নামতে হয়। এর ২৯ সেকেন্ড পরেই গোল করেন তিনি। চেলসি থেকে ধারের শর্ত শেষে আবার জুভেন্টাসে ফেরা আর্জেন্টিনার সাবেক স্ট্রাইকার গঞ্জালো হিগুয়েইন ১৯ মিনিটে গোল করেন। প্রথমার্ধ ২-০ গোলের লিড নিয়ে শেষ করে মাউরিসিও সারির দল।

নিউমোনিয়ার কারণে এ ম্যাচে জুভদের ডাগ আউটে ছিলেন না সারি। তবে তার দল ভালোই এগিয়ে যাচ্ছিল। ম্যাচের ৬২ মিনিটে ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো দলকে ৩-০ গোলের লিড এনে দেন। ওল্ড লেডিরা তখন বড় জয়ের পথে ছুটছে। কিন্তু হুট করেই ছন্দ পতন হয় জুভেন্টাসের। সুযোগ নিয়ে ১৫ মিনিটের মধ্যে তিন গোল দিয়ে দেয় নাপোলি। ম্যাচের ৬৬ ও ৬৮ মিনিটে দুই গোল করে তারা। এরপর ৮১ মিনিটে সমতায় ফেরে। কিন্তু ৯২ মিনিটে আত্মঘাতী গোল খেয়ে হারে তারা।

ম্যাচ শেষে সাবেক রিয়াল মাদ্রিদ ও নাপোলির বর্তমান কোচ আনচেলত্তি বলেন, প্রথমার্ধে এভাবে পিছিয়ে পড়ার পরে ম্যাচ জয়ের চিন্তা করা কঠিন। জুভেন্টাসের সহকারি কোচ জিওভান্নি মার্টাস্কিলো দলের শেষ পর্যন্ত জয়ের জন্য লড়াই করার প্রশংসা করেছেন। তবে ১৫ মিনিটে তিন গোল খাওয়া মেনে নেওয়া যায় না বলেও মন্তব্য করেন তিনি। আয়াক্স থেকে জুভেন্টাসে আসা ডিফেন্ডার ডি লিট এখনও ইতালির ছন্দের সঙ্গে মানিয়ে নিতে পারেননি বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

মন্তব্য


অন্যান্য