ফুটবল

ভিনিসিয়াস জাদুতে বছরের প্রথম জয় রিয়ালের

প্রকাশ : ১০ জানুয়ারি ২০১৯

ভিনিসিয়াস জাদুতে বছরের প্রথম জয় রিয়ালের

ছবি: গোল

  অনলাইন ডেস্ক

কোপা দেল রে ম্যাচে গেল বছর লেগানেসের বিপক্ষে হেরে বিদায় নিয়েছিল রিয়াল মাদ্রিদ। এবার শেষ ষোলোর প্রথম লেগের ম্যাচে ৩-০ গোলের বড় জয় পেয়েছে রিয়াল। লস ব্লাঙ্কোসদের জার্সিতে ক্যারিয়ারের শততম গোল পেয়েছেন সের্গিও রামোস। বছরের প্রথম দুই লা লিগা ম্যাচে হারের পর জয়ে ফিরেছে রিয়াল মাদ্রিদ। আর সোলারির দলকে এই জয় উপহার দিয়েছেন তরুণ তারকা ভিনিসিয়াস জুনিয়ার।

রিয়াল মাদ্রিদের হয়ে শেষ গোলটা করেছেন এই ১৮ বছরের ফরোয়ার্ড। এছাড়া লুকাস ভাসকেসকে দিয়ে করিয়েছেন একটি গোল। তার আগে রিয়াল অধিনায়ক রামোস পেনাল্টি থেকে গোল করে এগিয়ে নেন দলকে। তিন তারকার দেওয়া তিন গোলে ঘরের মাঠে বড় জয় পেয়েছে রিয়াল মাদ্রিদ।

ম্যাচের প্রথমার্ধের শেষ সময়ে গোল করে দলকে এগিয়ে নেন রামোস। এরপর ম্যাচের ৬৮ মিনিটে ভাসকেসকে দিয়ে গোল করান ব্রাজিলিয়ান ফরোয়ার্ড ভিনিসিয়াস। এর নয় মিনিট বাদে আবার ভিনিসিয়াস জাদু। তার দারুণ ভলিতে গোল ব্যবধান ৩-০ হয় রিয়ালের। ম্যাচে রিয়াল গোলের লক্ষ্যে নয়টি শট নিয়েছে। গোলের বাইরে শট নিয়েছে আরও সাতটি। তা থেকে আরও গোল পেয়ে যেতে পারতো রিয়াল মাদ্রিদ। কিন্তু শেষ পর্যন্ত ৩-০ গোলের জয়ে সন্তুষ্ট থাকতে হয় সোলারির দলকে।

রিয়াল ম্যাচের ৬৩ ভাগ বলও রাখে নিজেদের পায়ে। লেগানেসের বিপক্ষে ম্যাচ রাখে নিজেদের আয়ত্বে। লিগে খারাপ খেলতে থাকা রিয়ালের চলতি মৌসুমে চোখ চ্যাম্পিয়নস লিগ এবং কোপা দেল রে'র দিকে। লিগে তারা আছে পাঁচে। সেখান থেকে বার্সাকে হটিয়ে লিগ জেতা তাদের জন্য স্বপ্ন দেখার মতো। রিয়ালের হয়ে এ ম্যাচে ৮০ মিনিটের মাথায় মাঠে নামেন ম্যানসিটি থেকে রিয়ালে আসা ব্রাহিম দিয়াজ। রিয়ালের হয়ে অভিষেক ম্যাচ খেলে ফেললেন তিনি।

সংশ্লিষ্ট খবর


মন্তব্য যোগ করুণ

পরের
খবর

মোরাতায় চোখ বার্সা, অ্যাথলেটিকো ও ইন্টারের


আরও খবর

ফুটবল

ছবি: ফাইল

  অনলাইন ডেস্ক

রিয়াল মাদ্রিতে চার মৌসুমে ৩৭ ম্যাচ খেলার পর জুভেন্টাসে যান মোরাতা। এরপর জুভেন্টাস দারুণ করা মোরাতাকে ঘরে ফিরিয়ে আনে রিয়াল মাদ্রিদ। রিয়াল ক্যাস্তিল্লায় খেলে বড় হওয়া তারকা সেখান থেকে চেলসিতে পাড়ি জমান। স্পেন স্ট্রাইকার রিয়ালের হয়ে খেলছিলেন বেশ। কিন্তু রোনালদো-বেনজেমার ভিড়ে জিদানের দলে ঠিকঠাক সুযোগ মিলছিল না তার। সুযোগ পেলেই খেলছিলেন ভালো। রিয়াল মাদ্রিদ তাকে ছেড়ে দেওয়ায় সমালোচনাও শুনতে হয়েছে জিদানের। তবে চেলসিতে গিয়ে চোট তার সেরাটা দিতে দেয়নি।

ওদিকে মোরাতা চেলসিতে গিয়েছিলেন সেখানকার কোচ অ্যান্তেনিও কন্তের জন্য। জুভেন্টাসে থাকতে মোরাতার কোচ ছিলেন তিনি। সাবেক গুরুর ডাক তাই না শুনে পারেননি। পরে চেলসি কোচ কন্তের চাকরি গেছে। মোরাতাও চেলসির প্রতি তার আগ্রহ হারিয়ে ফেলেছেন। ক্লাবও তাকে ছেড়ে দিতে চায়। মোরাতার সঙ্গে তাই যোগাযোগ করছিল আরেক স্প্যানিশ ক্লাব সেভিয়া। তারকা এই স্ট্রাইকার এবং তার এজেন্টের সঙ্গে নাকি কথাও এগিয়েছিল।

কিন্তু সেভিয়া সরে এসেছে সেখান থেকে। কারণ মোরাতা আর তাদের সাধ্যের মধ্যে নেই। নামিদামী অনেক ক্লাব তাকে দলে পেতে ছুটছে। তাদের মতো টাকার ঝনঝনানি যে নেই সেভিয়ার। আর তাই আপাতত সরে দাঁড়িয়েছে চলতি লা লিগায় শীর্ষ চারে থাকা সেভিয়া। দলটির প্রেসিডেন্ট পেপ ক্রাস্তো বলেন, 'মোরাতা সেভিয়ায় আসতে আগ্রহী ছিলেন। তিনি এবং তার এজেন্টের সঙ্গে আলাপও হয় আমাদের। তবে এখন পরিস্থিতি কঠিন।'

মোরাতার পেছনে ছুটছে স্প্যানিশ বার্সেলোনা, অ্যাথলেটিকো মাদ্রিদের মতো ক্লাব। মোনাকো, ইন্টার মিলান দলে চাই তাকে। তাদের সঙ্গে পেরে ওঠার কথা নয় সেভিয়ার, 'অনেক ক্লাব তাকে দলে নিতে চায়। স্প্যানিশ অনেক ক্লাবও আছে। ইন্টার মিলান ও মোনাকো তাকে নিতে আগ্রহী। আমরা তার ব্যাপারটা পরে দেখবো।' সংবাদ মাধ্যমের খবর অনুযায়ী, বার্সা তাকে দলে নিতে চাইলেও সাবেক রিয়াল মাদ্রিদ ফুটবলার হওয়ায় তারা দ্বিধায় আছে। আর অ্যাথলেটিকো মাদ্রিদের কোচ ডিয়াগো সিমিওনে নিতে চান সেই সুযোগটি।

সংশ্লিষ্ট খবর

পরের
খবর

সাহস দেখালেন রিয়াল কোচ


আরও খবর

ফুটবল
সাহস দেখালেন রিয়াল কোচ

প্রকাশ : ১৪ জানুয়ারি ২০১৯

ছবি: মার্কা

  অনলাইন ডেস্ক

রিয়াল বেটিসের মাঠ থেকে তিন পয়েন্ট আদায় করে নিয়েছে রিয়াল মাদ্রিদ। শেষ সময়ে ক্যাবালোসের দারুণ এক ফ্রি কিকে ২-১ গোলের জয় পায় রিয়াল। এই জয়ে লিগের অর্ধেক শেষে বাজে এক রেকর্ড এড়ালো রিয়াল মাদ্রিদ। বেটিসের কাছে হারলে বা ড্র করলে একুশ শতকে এই প্রথম লিগের অর্ধেক ম্যাচ খেলে সবচেয়ে কম পয়েন্ট পাওয়ার বাজে রেকর্ডে নাম উঠত এই রিয়ালের।

রিয়াল কোচ সোলারি অবশ্য এই ম্যাচে দারুণ সাহস দেখিয়েছেন। দলে ইনজুরির কারণে বেল, অ্যাসেনসিও নেই। নেই ডিয়াজরা, ভাসকেসরা। তারপরও তিনি শুরুর একাদশে জায়গা দেননি ইসকো এবং মার্সেলোর। এমনকি ভিনিসিয়াস জুনিয়র, ক্যাবালোস, ব্রাহিম এবং ক্রিস্টোর মতো তরুণ আক্রমণে ভরসা করে ম্যাচ শেষ করে এসেছেন।

শুরুর একাদশে রিয়াল কোচ দলে নেন রেগুইলনকে। বসিয়ে রাখেন মার্সেলোকে। তাকে উঠিয়ে রিয়াল কোচ মাঠে নামান ক্যাবালোসকে। ভালভার্দেকে উঠিয়ে মাঠে নামিয়েছেন ব্রাহিম দিয়াজকে। চোটে পড়া বেনজেমার বদলি হিসেবে মাঠে নামান আরেক তরুণ ক্রিস্টো গঞ্জালেসকে। অথচ মার্সেলো-ইসকোকে উঠে কয়েকবার গা গরম করতে দেখা গেছে। সেদিকে পাত্তাই দেননি রিয়াল কোচ সান্তিয়াগো সোলারি।

শেষ পর্যন্ত সোলারি তরুণ এবং নতুন যে রিয়াল মাদ্রিদ আবিষ্কার করতে চেয়েছেন তারাই জয় এসে দিয়েছেন। ম্যাচের ১৩ মিনিটে গোল করার পর দ্বিতীয়ার্ধে সেই গোল শোধ দেয় রিয়াল বেটিস। এরপর শেষ সময়ে ফ্রি কিক থেকে গোল করেন ক্যাবালোস। রোনালদো যাওয়ার পরে দলটির ভক্তরা যেন ফ্রি কিক থেকে গোল দেখতে ভুলে গেছেন। সেই স্বাদ দিলেন ক্যাবালোস। তবে বড় কথা হলো সোলারির নতুন দল পয়েন্ট হারাতে যাচ্ছে দেখেও ভড়কে যাননি তিনি। ভরসা রাখেন তরুণ আক্রমণে। হয়তো এ ম্যাচ দিয়েই শুরু হলো সোলারির নতুন রিয়ালের যাত্রা।

সংশ্লিষ্ট খবর

পরের
খবর

বড় পরীক্ষায়ও জিতল ম্যানইউ


আরও খবর

ফুটবল
বড় পরীক্ষায়ও জিতল ম্যানইউ

প্রকাশ : ১৪ জানুয়ারি ২০১৯

ছবি: গোল

  অনলাইন ডেস্ক

ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের ভারপ্রাপ্ত কোচ হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন ক্লাবটির সাবেক তারকা স্ট্রাইকার ওলে গুনার সোলসকায়ের। ডাগ আউটে দাঁড়িয়েই ৫-০ গোলের বড় জয়ের রেকর্ড গড়েন তিনি। রোববার টটেনহ্যামের বিপক্ষের ম্যাচটি ছিল ম্যানইউ কোচের সবচেয়ে বড় পরীক্ষা। সেই পরীক্ষায় টটেনহ্যামকে ১-০ গোলে হারিয়ে ভালোমতোই পাস করলেন তিনি। তার দায়িত্ব নেওয়া পাঁচ ম্যাচেই জয় তুলে নিয়ে রেকর্ডও গড়লেন সোলসকায়ের। 

ম্যানইউয়ের কোচের দায়িত্ব নিয়ে শুরুর পাঁচ ম্যাচেই জয়ের রেকর্ড আছে আর মাত্র একজনের। তিনি মার্ট বাজবি। ম্যাচের ৪৪ মিনিটে ম্যানইউ তারকা মার্কোস র‌্যাশফোর্ডের একমাত্র গোলে জয় পায় ম্যানইউ। ঘরের মাঠে অবশ্য দুর্দান্ত খেলেছে স্পারর্সরা কিন্তু এ ম্যাচে ডি গিয়া তাদের সামনে প্রাচীর হয়ে দাঁড়ান। পুরো ম্যাচে তিনি ফিরিয়েছেন ১২টি দারুণ শট। এছাড়া পচেত্তিনোর দল ৬১ ভাগ বল দখলে নিয়ে খেলে। তবে ফল দখলে নিয়েছেন সোলসকায়ের। 

এ নিয়ে শেষ দুই ম্যাচে নিজেদের জাল অক্ষত রাখল ম্যানইউ। চলতি মৌসুমে পরপর দুই ম্যাচে জাল অক্ষত রাখতে পারেনি তারা। টটেনহ্যামের জন্যও অবশ্য ম্যাচটা ভুলে যাওয়ার মতো। এতোগুলো আক্রমণ করেও জিততে পারলো না। উল্টো ২০১৫ সালের পর ঘরের মাঠে পরপর দুই ম্যাচে হারল তারা। 

ম্যাচ শুরুর আগে এটাকে ম্যানইউয়ের নতুন কোচের জন্য অনুপ্রেরণার ম্যাচ বলে উল্লেখ করা হয়। কারণ মরিনহো ছাটাই হওয়ার পর টটেনহ্যাম কোচ পচেত্তিনোকে ভাবা হচ্ছে ম্যানইউয়ের নতুন কোচ। সোলসকায়েরও শক্ত প্রতিদ্বন্দ্বী হয়ে গেছেন। আর তাই ভালো করার বাড়তি তাগিদ নাকি ছিল সোলসায়েরের মধ্যে। সেই তাগিদ দিয়ে কিংবা ছক কষে জয় নিয়ে ফিরছে ম্যানইউ।

সংশ্লিষ্ট খবর