ফুটবল

শেষের রোমাঞ্চে জুভদের হারাল ম্যানইউ

প্রকাশ : ০৮ নভেম্বর ২০১৮

শেষের রোমাঞ্চে জুভদের হারাল ম্যানইউ

ছবি: গোল

  অনলাইন ডেস্ক

দুয়ো শুনতে থাকা কোন ফুটবলার গোল করলে স্টেডিয়ামে দর্শকদের উদ্দেশ্যে কানে হাত দিয়ে দুয়ো দেওয়ার ইঙ্গিত করেন। কিন্তু বুধবার রাতে দুয়ো শোনার ইঙ্গিত করলেন ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের কোচ হোসে মরিনহো। তার দল শেষ পাঁচ মিনিটে জুভেন্টাসের জালে দুই গোল দিয়ে জয় পেয়েছে। জুভটের মাঠে গিয়ে রোনালদোকে সাক্ষী করে মরিনহোর দল ২-১ গোলের জয় তুলে নিয়েছে। ম্যাচ শেষে সাবেক রিয়াল মাদ্রিদ কোচ ওই ইঙ্গিতের জবাবও দিয়েছেন, 'মাঠে আমাকে পুরো ৯০ মিনিট অপমান করা হয়েছে।' 

ম্যাচের শুরু থেকেই আক্রমণ-পাল্টা আক্রমণের মধ্য দিয়ে গড়াতে থাকে ম্যাচ। কিন্তু প্রথমার্ধে গোলের দেখা পায়নি কোন দল। এরপর বিরতির পর আবার একই ধংয়ে খেলা শুরু করে দু'দল। জয় লক্ষ্য এমন গতির খেলা দেখিয়েছে ম্যানইউ এবং জুভেন্টাস। গোলের দেখা পেতে বেশিক্ষণ অপেক্ষাও করতে হয়নি দ্বিতীয়ার্ধে। সাবেক দল ম্যানইউয়ের বিপক্ষে ম্যাচের ৬৫ মিনিটে গোল করেন পর্তুগিজ যুবরাজ ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো।  লিওনার্দো বনুচ্চির লম্বা পাস ধরে গোল করেন তিনি।

এরপর ওই গোলেই জয় দেখছিল রোনালদোর দল জুভেন্টাস। কিন্তু ম্যাচ শেষ হওয়ার পাঁচ মিনিট আগে ম্যাচের রং বদলে দেয় মরিনহোর শিষ্যরা। বদলি খেলোয়াড় হিসেবে মাঠে নামা হুয়ান মাতা গোলে সমতায় ফেরে রেড ডেভিলসরা। এরপর ঘরের মাঠে ড্র'ই হয়তো লেখা ছিল ম্যাচের ভাগ্যে। কিন্তু জুভেন্টাসকে হারিয়ে দিলো নিজেদের খেলোয়াড়। ম্যাচের ৮৯ মিনিটে ব্রাজিলিয়ান লেফট ব্যাক অ্যালেক্স সান্দ্রোর আত্নঘাতী গোলে ২-১ ব্যবধানে এগিয়ে যায় ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড। ওই গোলেই জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে তারা। 

এছাড়া গ্রুপ 'এইচের' অপর ম্যাচে ইয়ং বয়েজকে ৩-১ গোলে হারিয়েছে স্প্যানিশ ক্লাব ভালেন্সিয়া। ভ্যালেন্সিয়ার হয়ে মিনা লরেঞ্জো দুটি ও সোলার একটি গোল করেন। যদিও এ জয়ে গ্রুপ 'এইচের' পয়েন্ট টেবিলের তেমন পরিবর্তন হয়নি। এই গ্রুপের প্রত্যেকটি দল এরইমধ্যে চারটি করে ম্যাচ খেলেছে। এর মধ্যে ৯ পয়েন্ট নিয়ে সবার ওপরে আছে জুভেন্টাস। দ্বিতীয় অবস্থানে থাকা ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের পয়েন্ট ৭, গ্রুপে ৫ পয়েন্ট নিয়ে তৃতীয় স্থানে আছে ভ্যালেন্সিয়া। মাত্র ১ পয়েন্ট নিয়ে গ্রুপে তলানিতে আছে ইয়ং বয়েজ।

সংশ্লিষ্ট খবর


মন্তব্য যোগ করুণ

পরের
খবর

চ্যাম্পিয়নস লিগে সমীকরণের রাত


আরও খবর

ফুটবল

ছবি: ফাইল

  অনলাইন ডেস্ক

ছয় মাস আগে কিয়েভে চ্যাম্পিয়ন্স লীগের ফাইনাল খেলেছিল লিভারপুল। রিয়াল মাদ্রিদের কাছে হেরে রানার্সআপ হয়েছিল ইয়ুর্গেন ক্লপের দল। অর্ধ বছর যেতে না যেতেই ইউরোপিয়ান ক্লাব প্রতিযোগিতার সবচেয়ে বড় আসরে গ্রুপ পর্ব থেকে বিদায়ের শঙ্কায় অল রেডরা। অ্যানফিল্ডে আজ বাঁচা-মরার লড়াইয়ে ন্যাপোলির মুখোমুখি হবে লিভারপুল।

গ্রুপ 'সি' থেকে ৯ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের শীর্ষে থাকা ইতালিয়ান ক্লাবটি ড্র করলেই শেষ ষোলোতে চলে যাবে। তখন প্যারিস সেইন্ট জার্মেইয়ে এবং রেড স্টার বেলগ্রেডের মধ্যকার অন্য ম্যাচের ফল যাই হোক না কেন মোহামেদ সালাহর দলের বিদায়ঘণ্টা বেজে যাবে। গ্রুপ 'বি' থেকে আগেই শেষ ষোলোতে ওঠা বার্সেলোনার বিপক্ষে ন্যু ক্যাম্পে খেলবে টটেনহাম হটস্পার। ঘরের মাঠে পিএসভিকে আতিথ্য দেবে ইন্টারমিলান। চ্যাম্পিয়ন্স লীগে গ্রুপ পর্বের শেষ ম্যাচে এসেছে অঙ্ক মেলানোর অপেক্ষায় দলগুলো।

গ্রুপ 'সি'-তে খাদের কিনারায় ছিল নেইমার-এমবাপ্পের পিএসজি। কিন্তু সর্বশেষ ম্যাচে লিভারপুলকে হারিয়ে দারুণভাবে ঘুরে দাঁড়ায় ফরাসি জায়ান্টরা। এখন ৮ পয়েন্ট নিয়ে দ্বিতীয় স্থানে থাকা পিএসজিই আছে গ্রুপের সবচেয়ে সেফ জোনে। কারণ আজকের ম্যাচে তারা খেলবে টেবিলের তলানিতে থাকা রেড স্টার বেলগ্রেডের বিপক্ষে।

এই গ্রুপে যত সমস্যায় এখন লিভারপুল। ৯ পয়েন্ট নিয়েও ন্যাপোলি স্বস্তিতে নেই। আজ লিভারপুল যদি ৩ গোলের ব্যবধানে জেতে এবং রেড স্টারের সঙ্গে যদি পিএসজি ড্র করে তাহলে গোল পার্থক্যে বিদায় নিতে হবে ন্যাপোলিকে। এর কম ব্যবধানে জিতলে লিভারপুল শেষ ষোলোতে উঠবে যদি বেলগ্রেডের কাছে হেরে যায় পিএসজি।

গ্রুপ 'বি'থেকে ১৩ পয়েন্ট নিয়ে আগেই পরের রাউন্ডে উঠে গেছে বার্সেলোনা। এই গ্রুপ থেকে দ্বিতীয় দল হিসেবে কারা বার্সার সঙ্গী হবে, তা জানা যাবে আজ। টটেনহাম ও ইন্টারমিলানের পয়েন্ট যেমন সমান ৭, তেমনি করে গোল পার্থক্যও সমান। ইন্টারমিলানের জন্য স্বস্তি হলো তারা শেষ ম্যাচটি খেলবে পিএসভির বিপক্ষে নিজ মাঠে। টটেনহামের দুশ্চিন্তা হলো তাদের প্রতিপক্ষ বার্সেলোনা। গত অক্টোবরে নিজেদের মাঠে কাতালানদের কাছে ৪-২ গোলে হেরেছিল হ্যারি কেনরা। এবার বার্সার মাঠে জিততে হবে তাদের।

সংশ্লিষ্ট খবর

পরের
খবর

সিটিকে মাটিতে নামাল চেলসি


আরও খবর

ফুটবল
সিটিকে মাটিতে নামাল চেলসি

প্রকাশ : ০৯ ডিসেম্বর ২০১৮

  অনলাইন

রেফারির মুখে তখন বাঁশি ধরা। ফু দিলেই বেজে উঠবে। শেষ হবে প্রিমিয়ার লিগে চেলসি-ম্যানচেস্টার সিটি ম্যাচের প্রথমার্ধ। এই প্রায় ৪৫ মিনিটে গোলে কোন শট নিতে পারেনি স্বাগতিক চেলসি। স্টামফোর্ড ব্রিজে ৭০ ভাগের কাছাকাছি বল পেপ গার্দিওয়ালার শিষ্যদের পায়ে। ঠিক তখনই হ্যাজাডের বল ধরে ফ্রান্স মিডফিল্ডার এনগোলে কান্তের গোল। প্রথমার্ধের প্রথম শটেই মাত চেলসির।

শেষতক চেলসি নিজেদের পায়ে বেশি বল রাখতে পারেনি। পেপের টিকিতাকার সঙ্গে পেরে ওঠা কি সহজ কথা। তবে ম্যাচে সিটির থেকে বেশি গোলে আক্রমণ করেছে হ্যাজাডরা। পরে গোলও পেয়েছে আরও একটি। আর সিটি পূরণ করতে পারেনি দলের অন্যতম সেরা তারকা আগুয়েরোর ঘাটতি। রাহিম স্টালিংকে দিয়ে চেষ্টা চালিয়েছে সিটি। কিন্তু ব্যর্থ গার্দিওয়ালার কৌশল।

দ্বিতীয় গোল করেন ডেভিড লুইস

সেই ব্যর্থ কৌশলের সুযোগ নিয়েছে চেলসি। ঘরের মাঠ ছেড়ে চেলসিতে আসার আগে পয়েন্ট টেবিলে শীর্ষে ছিল সিটি। মাঠে নামার আগেই তারা জেনে গেছে লিভারপুলের কাছে শীর্ষস্থান হারিয়েছে তারা। চেলসিকে হারিয়ে আবার শীর্ষে ওঠার সুযোগ ছিল সিটির সামনে। এমনকি সমতা করে একটি পয়েন্ট পেলেও জায়গা ফিরে পেতো পেপের দল। কিন্তু হেরে লিগে দ্বিতীয় স্থানেই থাকতে হলো।

সিটিকে স্বাদ নিতে হলো মৌসুমের প্রথম হারের। চলতি মৌসুমে এর আগে ম্যানসিটি ১৫ ম্যাচ খেলেছে। হারের স্বাদ পায়নি একটাও। ছিল দুই সমতা। শীর্ষে উঠে যাওয়া লিভারপুলেরও নেই কোন হার। তবে গোল ব্যবধানে এগিয়ে সিটি। লিভারপুলের ৪২ পয়েন্টের বিপরীতে সিটি পিছিয়ে কেবল এক পয়েন্টে। তিনে থাকা চেলসি আবার লিভারপুলের চেয়ে পিছিয়ে আট পয়েন্ট। চার ও পাঁচে থাকা দল আরও দুরে। শীর্ষে থাকার ইঁদুর দৌড়টা তাই এখন সিটি-অল রেডদের। 

ম্যাচে অবশ্য সিটি সমতায় ফেরার বেশ কিছু সুযোগ তৈরি করেছিল। কিন্তু তারা তা কাজে লাগাতে পারেনি। ম্যাচের শেষ সময়েও ব্রাজিল স্ট্রাইকার জেসুস পেয়েছেন গোল ব্যবধান কমানোর সুযোগ। কিন্তু গোল করতে পারেননি তিনি। তার আগে ম্যাচের ৭৮ মিনিটে হ্যাজাডের দ্বিতীয় সহায়তায় গোল করেন ডেভিড লুইস। তার গোলে ২-০ গোলের জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে মৌরিসিও সারির দল।

পরের
খবর

সালাহর হ্যাটট্রিকে বিধ্বস্ত বোর্নমাউথ


আরও খবর

ফুটবল

ছবি: গোল

  অনলাইন

প্রিমিয়ার লিগে কয়েক ঘন্টার জন্য শীর্ষে উঠে গেছে লিভারপুল। অল রেডসরা জিতলেই অবশ্য শীর্ষে উঠে যেত। কিন্তু মিসর তারকা মোহামেদ সালাহ দুর্দান্ত এক হ্যাটট্রিক করে দলকে বড় জয় এনে দিয়েছেন। বার্তা দিয়েছেন লিগের শীর্ষে থাকা অন্য দলগুলোকে। সালাহর হ্যাটট্রিকে বোর্নমাউথকে জার্গেন ক্লপের দল হারিয়েছে ৪-০ ব্যবধানে।

জয়টা লিভারপুলের জন্য আরও বড় হয়ে উঠেছে বোর্নমাউথের ঘরের মাঠে গিয়ে তাদেরকে বিধ্বস্ত করায়। এই ম্যাচের আগে লিগে শীর্ষে ছিল পেপ গার্দিওয়ালার ম্যানসিটি। রাতেই চেলসির মাঠে খেলবে তার শিষ্যরা। জিতলে আবার উঠে যাবে শীর্ষে। এ ম্যাচের আগে লিভারপুল বস বলেছিলেন, তারা যদিও জেতেও ম্যানসিটির জন্য তা কোন চাপ হবে না। কিন্তু সালাহরা যেভাবে জিতেছে তা ম্যানসিটির জন্য চাপ না হয়ে যায় না।

বোর্নমাউথের বিপক্ষে হ্যাটট্রিক করার পথে মোহামেদ সালাহ। ছবি: গোল

ম্যাচের শুরু থেকেই আক্রমণ করে খেলতে থাকে অল রেডসরা। ম্যাচের ২৫ মিনিটের মাথায় প্রথম গোল দিয়ে দলকে এগিয়ে নেন মোহামেদ সালাহ। এরপর দ্বিতীয়ার্ধের ৪৮ মিনিটে দলের ব্যবধান দ্বিগুন করেন তিনি। লিভারপুলের জয়টা বড় করে দেয় বোর্নমাউথ নিজে। আত্মঘাতী গোল খেয়ে তারা পিছিয়ে পড়ে ৩-০ গোলে। ম্যাচের তখন ৬৮ মিনিট।

লিভারপুলের সামনে গোল ব্যবধান বাড়ানোর যেমন সুযোগ ছিল তেমিন সুযোগ ছিল সালাহর হ্যাটট্রিকেরও। সালাহর গোলেই ব্যবধান বাড়ায় অল রেডসরা। ম্যাচের ৭৭ মিনিটে গোল করে নিজের হ্যাটট্রিক পূর্ণ করেন লিভারপুল তারকা সালাহ। এরপর জয় আরও বড় হয় কিনা দেখার ছিল সেটাই। কিন্তু ব্যবধান আর বাড়াতে পারেনি লিভারপুল।

সংশ্লিষ্ট খবর