বিনোদন

আমেরিকা ও বাংলাদেশে একই দিনে ‘রেপ্লিকাস’

প্রকাশ : ১০ জানুয়ারি ২০১৯ | আপডেট : ১০ জানুয়ারি ২০১৯

আমেরিকা ও বাংলাদেশে একই দিনে ‘রেপ্লিকাস’

‘রেপ্লিকাস’ ছবির একটি দৃশ্য

  অনলাইন ডেস্ক

আন্তর্জাতিকভাবে শুক্রবার মুক্তি পাচ্ছে সায়েন্স ফিকশন থ্রিলার সিনেমা ‘রেপ্লিকাস’।  একই দিনে বাংলাদেশের স্টার সিনেপ্লেক্সেও মুক্তি পাবে ছবিটি। জেফ্রে নাচম্যানফ পরিচালিত ছবিটির চিত্রনাট্য লিখেছেন চাদ সেন্ট জন। ছবির প্রধান চরিত্রে অভিনয় করেছেন ‘দ্য ম্যাট্রিক্স’ তারকা কিয়ানু রিভস। আরও অভিনয় করেছেন এলিস ইভ, টমাস মিডলদেচ ও জন অর্টিজ প্রমুখ। অভিনয়ের পাশাপাশি ছবিটির প্রযোজনায়ও যুক্ত আছেন কিয়ানু রিভস। 

মানব ক্লোনিং নিয়ে নৈতিক ও আইনি বিতর্ক চলছে বেশ কিছুদিন ধরে। ভবিষ্যত প্রজন্মকে এর ক্ষতিকর প্রভাব থেকে সুরক্ষার জন্য বিশ্বের অধিকাংশ দেশই মানব ক্লোনিং নিষিদ্ধ করেছে। তবে কিছু কিছু দেশ এখনো গোপনে বিষয়টি নিয়ে কাজ করছে। এর মধ্যেই সেই ঘরানার কাহিনি নিয়ে হলিউডে নির্মিত হলো কল্প-বিজ্ঞানভিত্তিক সিনেমা ‘রেপ্লিকাস’। ছবিতে সিন্থেথিক বায়োলজিস্ট ও নিউরো সায়েন্টিস্ট উইলিয়াম ফস্টার চরিত্রে দেখা যাবে কিয়ানু রিভসকে। যিনি মানুষের চেতনাকে সফলভাবে কম্পিউটার প্রোগ্রামে স্থানান্তর করতে পারেন।

এক গাড়ি দুর্ঘটনা তার পরিবার নিহত হয়। উইল স্ত্রী ও সন্তানদের ক্লোন তৈরি করতে চান। এ কাজে সাহায্য করে সহকর্মী এড হুইটল। এ দিকে চেতনা স্থানান্তর বা ক্লোন রেপ্লিকা তৈরি আইন ও বিজ্ঞানের সূত্রের বিরোধী। তাই তাদের সবকিছু করতে হয় গোপনে। এক পর্যায়ে অন্য রকম বিপদে পড়ে যান উইল। যাকে বলা হয় ‘সোফিস চয়েস’। উইলকে পরিবারের চার সদস্য থেকে তিনজনকে ক্লোনের জন্য বেছে নিতে হবে। তিনি কাকে বাদ দেবেন? এভাবে এগিয়ে চলে ছবির কাহিনি। সম্প্রতি ফিনল্যান্ডের নাইট ভিশনস ইন্টারন্যাশনাল ফিল্ম ফেস্টিভ্যালে ছবিটি প্রদর্শিত হয়েছে। সেখানে বিভিন্ন দেশ থেকে আমন্ত্রিত চলচ্চিত্র-সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা ছবিটি দেখে প্রশংসা করেছেন। ছবিটিকে এ সময়ের একটি সাহসী নির্মাণ বলে উল্লেখ করেছেন অনেকে। মূল চরিত্রে কিয়ানু রিভসের অভিনয় আকৃষ্ট করেছে দর্শকদের।


সংশ্লিষ্ট খবর


মন্তব্য যোগ করুণ

পরের
খবর

মোদির বক্তৃতায় অনুপ্রাণিত আমির


আরও খবর

বিনোদন

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির (বাঁয়ে) সঙ্গে আমির খান— জিনিউজ

  অনলাইন ডেস্ক

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির প্রশংসায় পঞ্চমুখ হলেন বলিউডের জনপ্রিয় অভিনেতা আমির খান।

শনিবার ভারতীয় সিনেমার জাতীয় জাদুঘরের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী মোদিকে প্রশংসায় ভাসান এ তারকা। ওই জাদুঘরের উদ্বোধক ছিলেন নরেন্দ্র মোদি। সেখানে তার বক্তৃতা শোনার পরই তার বক্তব্যে প্রশংসায় পঞ্চমুখ হতে দেখা যায় আমির খানকে।

বছর চারেক আগে আমির খান বলেছিলেন, এই দেশে তিনি নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন। তার স্ত্রী আতঙ্কিত। তিনি দেশ ছেড়ে চলে যেতে চান। মোদি জমানার দেড় বছরের মাথায় একজন সেলিব্রিটির মুখ থেকে এমন বক্তব্য শুনে হইচই পড়ে গিয়েছিল ভারতজুড়ে।

সেই সময় অনেকে আমিরকে সমর্থন করেছিলেন। আবার অনেকে আমিরের সমালোচনায় সরব হয়েছিলেন। দেশে বাক্-স্বাধীনতা রয়েছে বলেই আমির এসব মন্তব্য করতে সুযোগ পাচ্ছেন বলেও অনেকে সেই সময় মন্তব্য করেছিলেন।

ফলে নরেন্দ্র মোদিকে নিয়ে নতুন করে আমির খানের এই প্রতিক্রিয়ায় আবারও হইচই শুরু হয়েছে। কারণ, চার বছর আগে আমির আসলে মোদি সরকারকে আক্রমণ করেই বক্তব্য দিয়েছিলেন। ফলে এবার কেন তিনি মোদির প্রশংসায় পঞ্চমুখ হলেন, সেই প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে।

তবে আমিরের বক্তব্যে স্পষ্ট যে তিনি শনিবারের ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে ওই নরেন্দ্র মোদির প্রশংসা করেছেন। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী সিনেমার জাদুঘরের উদ্বোধনের পর বক্তৃতা দেন। এ নিয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের মুখোমুখি হয়েছিলেন আমির খান।

তার প্রতিক্রিয়ায় বলিউডের এই অভিনেতা বলেন, 'ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রির সম্বন্ধে প্রধানমন্ত্রী এই ইতিবাচক মনোভাব দেখে খুবই ভালো লাগল। শিল্পজগত ও শিল্পীদের নিয়ে তার দর্শন দেখেও ভালো লেগেছে। অনুপ্রাণিত হওয়ার মতো এমন একটি বক্তৃতা শুনতে পারাটা সত্যিই ভালো।'

প্রসঙ্গত, শনিবার মুম্বইয়ের ওই অনুষ্ঠানে হাজির ছিল গোটা বলিউড। অধিকাংশ কলাকুশলীর সঙ্গে মোদি আলাদাভাবে কথা বলেন। সেই কথাবার্তা সম্বন্ধে প্রতিক্রিয়া দিয়েছেন বলিউডের অনেকেই। ট্যুইট করেছেন অনেকে, যেগুলো রি-ট্যুইট স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। সূত্র: জিনিউজ

সংশ্লিষ্ট খবর

পরের
খবর

'ভালবেসেছিলাম, কিন্তু সম্পর্কগুলো ব্যর্থ ছিল'


আরও খবর

বিনোদন

  অনলাইন ডেস্ক

টালিউড অভিনেত্রী স্বস্তিকা অভিনীত ‘শাহজাহান রিজেন্সি’ ছবিটি মুক্তি পেয়েছে গত শুক্রবার। সৃজিত মুখোপাধ্যায় পরিচালিত এই ছবিতে স্বস্তিকার অভিনয় এরই মধ্যে প্রশংসিত হয়েছে নানা মহলে। 

তবে ছবি মুক্তির আগে থেকে সৃজিতের ছবিতে স্বস্তিকার উপস্থিতি নিয়ে সরগরম ছিল গোটা ইন্ডাস্ট্রি। কারণ একসময় সৃজিত-স্বস্তিকার ব্যক্তিগত রসায়ন ছিল অনেকের চর্চার বিষয়। আবার ‘শাহজাহান রিজেন্সি’ ছবির অভিনেতা পরমব্রত চট্টোপাধ্যায় এবং স্বস্তিকার সম্পর্কও একসময় আলোচিত ছিল। আনন্দবাজার পত্রিকা জানায়, দুই প্রাক্তনের সঙ্গে স্বস্তিকার কাজ করা নিয়ে ছবি মুক্তির আগে থেকেই নতুনভাবে আলোচনা শুরু হয়। তৈরি হয় নানা গুজব। ছবি মুক্তির পর সামাজিক মাধমে এসব গুজবের ভালই জবাব দিয়েছেন স্বস্তিকা।

শুক্রবার ফেসবুকে স্বস্তিকা লিখেছেন, ‘এই ছবিতে কাজ করা প্রাক্তনদের সঙ্গে কাজ করার কোনও বিষয় নয়। ছবিতে এমন এক চরিত্রে আমি অভিনয় করেছি যেটা কোনও অভিনেতা হয়তো সারা জীবনেও পাবেন না। এই চরিত্র পাওয়া মানে অভিনেতা হিসেবে একটা উচ্চতায় পৌঁছে যাওয়া।’

তিনি আরও জানান, ছবির চরিত্রটা তিনি গ্রহণ করেছেন এবং সে অনুযায়ী ফুটিয়ে তুলেছেন। স্বস্তিকা জানতেন, এই ছবিতে কাজ করলে তার ব্যক্তিগত বিষয়গুলো আবারও মিডিয়ায় আলোচনা হবে।

এ কারণে তিনি লিখেছেন, ‘এটা সত্যি, আমি ভালবেসেছিলাম। কিন্তু সেই সম্পর্কগুলো কাজ করেনি।’ ভালবাসার সম্পর্ক টিকিয়ে রাখতে ব্যর্থ হলেও অভিনেতা হিসাবে নিজেকে ব্যর্থ মনে করেন না স্বস্তিকা।এই ছবিতে তার অভিনয় মানুষ মনে রাখবে এমনটাই দাবী করেন তিনি।

স্বস্তিকা লিখেছেন, ‘আমি আমার কাজটা করেছি। বাকিটা আপনাদের হাতে।’

সংশ্লিষ্ট খবর

পরের
খবর

কি হয়েছিল স্বরার সঙ্গে?


আরও খবর

বিনোদন
কি হয়েছিল স্বরার সঙ্গে?

প্রকাশ : ১৯ জানুয়ারি ২০১৯

স্বরা ভাস্কর- ফাইল ছবি

  অনলাইন ডেস্ক

ভারতে '#মিটু' আন্দোলনের মশাল জ্বালিয়ে দিয়ে সম্প্রতি যুক্তরাষ্ট্রে ফিরে গেছেন বলিউড অভিনেত্রী তনুশ্রী দত্ত। তবে তিনি ফিলে গেলেও এখনও বহু তারকা নিজেদের যৌন হেনস্তার ঘটনা প্রকাশ্যে জানাচ্ছেন। এবার নিজের সঙ্গে ঘটে যাওয়া যৌন হেনস্তার খবর জানালেন 'ভিরে দি ওয়েডিং' খ্যাত অভিনেত্রী স্বরা ভাস্কর।

জি-নিউজ জানায়, অন্যান্য বলিউড অভিনত্রীর মতো স্বরা ভাস্করও যৌন হেনস্তার শিকার হয়েছিলেন। সম্প্রতি এক সাক্ষাৎকারে স্বরার জীবনে ঘটে যাওয়া সেই দু:সহ স্মৃতি কথা বর্ণনা করেছেন।

স্বরা জানান, এক পরিচালক তাকে যৌন হেনস্তা করে। কিন্তু তিনি যে এই বিরুপ পরিস্থিতির শিকার হয়েছিলেন, তা সে সময় বুঝতেই পারেননি নায়িকা। অবশ্য সেই পরিচালকের নাম মুখে আনেননি স্বরা।


স্বরা আরও জানান, সেই ঘটনা বুঝতে আমার ছয় থেকে আট বছর  সময় লেগেছিল। সে সময় কোনও একটা আলোচনায় আমি অন্য কাউকে তার হেনস্তার কথা বলতে শুনেছিলাম। তখন আমি ভেবেছিলাম, আমার সঙ্গে যেটা হয়েছিল কাজের জায়গায় সেটাও তো তা হলে যৌন হেনস্তা! আমাকে রীতিমতো লুঠ করেছিল ওই পরিচালক।

এতদিন পর তিনি মুখ খুললেও, সামাজিক ভাবে আরও বেশি সচেতন হওয়ার বার্তা দিয়েছেন তিনি।