বিনোদন

আমি আমার মতো চলছি, থামছি না: মনীষা

প্রকাশ : ০৯ নভেম্বর ২০১৮ | আপডেট : ১১ নভেম্বর ২০১৮

আমি আমার মতো চলছি, থামছি না: মনীষা

মনীষা কৈরালা

  অনিন্দ্য মামুন

বলিউডের কিংবদন্তি অভিনেত্রী মনীষা কৈরালা। বলিউডের অন্যসব তারকাদের চেয়ে অনেক দিক দিয়েই আলাদা তিনি। নেপালের শীর্ষস্থানীয় এক রাজনৈতিক পরিবারে জন্ম। মিষ্টি হাসির অভিনয়ের জন্য নব্বই দশকের হাজার হাজার তরুণের স্বপ্নে নায়িকা ছিলেন তিনি। একসময় আক্রান্ত হন ক্যান্সারে। দীর্ঘ দিন ক্যান্সারের সঙ্গে লড়াই করে বিজয়ী হয়ে ফিরেছেন আপন ঘরে। শুরু করেন জীবনের নতুন ইনিংস। পর্দার বাইরেও অন্য এক মনীষা কৈরালাকে জানেন সবাই। একজন সামাজিক কর্মী হিসেবে বিশ্ব দরবারে পরিচিত তিনি। পরিচিত লেখক হিসেবেও। নিজের জীবনের সংগ্রাম নিয়ে লিখেছেন প্রথম গ্রন্থ ‘দ্য বুক অব আনটোল্ড স্টোরিজ’।   ‌বিশ্বের অন্যতম সাহিত্য উৎসব ‘ঢাকা আন্তর্জাতিক লিট ফেস্টে’র অতিথি হয়ে এ তারকা এখন ঢাকায়। শুনালেন তার জীবনের নানা গল্প। 

সমকাল: বাংলাদেশে এসে কেমন লাগছে?

মনীষা কৈরালা: বাংলাদেশের এতো বড় একটা আয়োজনে আমাকে অতিথি করেছেন। এই জন্য সবাইকে ধন্যবাদ। সাহিত্যের এতো বড় আসরে উপস্থিত হওয়া যে কোন লেখকের জন্যই আনন্দের। এখানে এসে আমার বই নিয়ে কথা বলছি। এটা আমার জন্য অন্য রকম ভালো লাগার। 

মনীষা কৈরালা

সমকাল: ক্যান্সারের সঙ্গে লড়াই করে জিতেছেন। এর সবচেয়ে কঠিন পর্ব কোনটা ছিল?

মনীষা কৈরালা: আমার পরিবার, বিশেষ করে মা প্রতি পদক্ষেপে আমাকে সাহায্য করেছেন। ওষুধের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ায় যন্ত্রণায় কুঁকড়ে যেতাম, কান্নাকাটি করতাম। নিউ ইয়র্কে যখন চিকিৎসার জন্য ছিলাম, নিজের চোখে দেখেছি আমরা মানুষ কতটা একা!  হতাশ হয়ে বসে থাকত। মনে মনে ঠিক করেছিলাম, নিজেকে এ ভাবে শেষ করব না। যদি মরতেই হয়, সাহসের সঙ্গে লড়াই করব। আমার চুল যখন পুরো উঠে গিয়েছিল, তখন আমি খুব ভেঙে পড়েছিলাম। মা বোঝাতেন যে, আমি নিজেই পারব নিজের সঙ্গে লড়াই করতে। হাল ছাড়িনি। তাই হয়তো এই লড়াইয়ে জিততে পারলাম। 

সমকাল: ‘দ্য বুক অব আনটোল্ড স্টোরিজ’ তো সেই জয়েরই একটা দলিল? 

মনীষা কৈরালা: সেটা বলতে পারেন। তবে এটাতে আমি অনেক কিছু বলতে চেয়েছি। মানুষকে বলতে চেয়েছি হাল ছাড়া আমাদের কাজ নয়। আমাদের সংগ্রাম করতে হবে। চূড়ান্ত বিজয়ের জন্য। প্রতিটি কাজেই আমাদের লড়াই করে জিততে হয়। আমৃত্যু মানুষকে লড়াই করতেই হবে। আর এ জন্য আমাদের প্রাণবন্ত থাকাও বাঞ্চনীয়।

সমকাল:আপনার এই জয়ী হওয়াটা অনেকেই আপনার পূনজন্ম ভাবছেন?

মনীষা কৈরালা: পূনজন্ম শব্দটা আমার কাছে খুব একটা গুরুত্বের নয়। এটা নিয়ে ভাবিও না আমি। তবে কাছে সাহসী থাকা, প্রাণবন্ত থাকাটা জরুরী। জীবনের  দুই পিঠই আমার দেখা। ভালো খারাপ দুটির সঙ্গে থেকেছি বলতে পারেন। জীবনের কঠিন সময়টাকে আত্মবিশ্বাসের ঘাটতি রাখিনি। আমি আমার মতো চলছি। থামছি না। থামতে চাইও না। 

সমকাল:বলিউডে এখনও নারী শিল্পীরা তেমনভাবে সামনে আসতে পারছে না। নায়ক নির্ভরই থাকছে। বিষয়টি আপনি কীভাবে দেখছেন? 

মনীষা কৈরালা: আপনি নারী-পুরুষের যে বিষয়টি জানতে চাইলেন এই বিভেধটা শুধু বলিউড নয়, সব ক্ষেত্রেই কিন্তু রয়েছে?  খেয়াল করবেন, বাণিজ্যিক ও ভিন্নধারার ছবির মধ্যে আমরা আমাদের সময়ে অনেকটা সমতা রাখতে পেরেছিলাম। এক সময়ে সবচেয়ে বেশি পারিশ্রমিকও পেয়েছি আমরা। এখনও বলিউডে নায়কদের চেয়ে অনেক নায়িকারাই পারিশ্রমিক বেশি নিচ্ছেন। যারা ভালো করছেন তারা প্রাপ্যটা অবশ্যই পাবেন। এ ক্ষেত্রে নারী-পুরুষ বিভেদ-দেখিনা আমি। 

সমকাল: আপনার কাজগুলোকো কীভাবে মূল্যায়ণ ও নির্বাচন করে থাকেন? 

মনীষা কৈরালা: আমি যা করি ভালোবেসে করি। আমার প্রতিটি কাজের মাঝেই আমার অন্যরকম ভালোবাসা। আর চলচ্চিত্রের কাজ নির্বাচনের ক্ষেত্রে আমি গল্পটা আগে দেখি। এরপর আমার চরিত্র। পথ চলার রাস্তাটাও পরিমাপ করার চেষ্টা করি। 


মন্তব্য যোগ করুণ

পরের
খবর

যুক্তরাষ্ট্রের ছয় শহরে রুনা-সাবিনা


আরও খবর

বিনোদন

রুনা লায়লা ও সাবিনা ইয়াসমিন

  অনলাইন ডেস্ক

অনেক দিন পর আবারও এক মঞ্চে গাইবেন বরেণ্য দুই কণ্ঠশিল্পী সাবিনা ইয়াসমিন ও রুনা লায়লা। তবে দেশে নয়, যুক্তরাষ্ট্রের ছয়টি শহরে ধারাবাহিকভাবে আয়েজিত কনসার্টে অংশ নেবেন তারা। প্রবাসী বাংলাদেশিদের জন্য ধারাবাহিক এই কনসার্টের আয়োজন করছে শোটাইম মিউজিক।

আয়োজকরা জানান, এ বছরের জুলাই ও আগস্ট মাসে কনসার্টগুলো অনুষ্ঠিত হবে। যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্ক, ওয়াশিংটন, ডালাস, ফ্লোরিডা, লস অ্যাঞ্জেলেস ও আটলান্টায় অনুষ্ঠিতব্য প্রতিটি কনসার্টে একমঞ্চে গাইবেন খ্যাতিমান এ দুই শিল্পী। 

এ বিষয়ে সাবিনা ইয়াসমিন ও রুনা লায়লার সঙ্গে চূড়ান্ত কথা হয়েছে বলেও আয়োজকরা জানান। এর আগেও দেশের ও দেশের বাইরে এক মঞ্চে গান করেছেন রুনা লায়লা ও সাবিনা ইয়াসমিন। কিন্তু এবারই প্রথম কোনো দেশে একসঙ্গে ছয়টি কনসার্টে অংশ নিতে যাচ্ছেন। এ আয়োজন দর্শকের মনে দাগ কাটবে এমন আশা প্রকাশ করেছেন আয়োজক ও শিল্পীরা।

সংশ্লিষ্ট খবর

পরের
খবর

ব্যাট হাতে চড়াও ভাইজান


আরও খবর

বিনোদন
ব্যাট হাতে চড়াও ভাইজান

প্রকাশ : ১৫ জানুয়ারি ২০১৯

সালমান খান- ফাইল ছবি

  অনলাইন ডেস্ক

বলিউডে সালমান খানকে বলা হয় 'হিট মেশিন'। সেই সালমান খান এবার ব্যাট হাতে ক্রিকেট মাঠেও চমক দেখালেন। বাঁ হাতে ব্যাট উঁচিয়ে অফ সাইড ও লেগ সাইড দু’দিক দিয়েই মাঠের বাইরে বল পাঠাচ্ছেন তিনি। 'ভাইজান' বলে কথা। তার ব্যাট যে ছক্কা হাঁকাবে, এটাই স্বাভাবিক।

টাইমস অব ইন্ডিয়া জানায়, এখন প্রযোজক আলি আব্বাস জাফরের সিনেমা 'ভারত' নিয়ে ব্যস্ত সময় পার করছেন। সম্প্রতি 'ভারত'-এর শুটিংয়ের ইউনিটির লোকজনের সঙ্গে ক্রিকেট খেলতে দেখা যায় বলিউডের এই সুপারস্টারকে। সেই খেলার ভিডিও সোমবার ইনস্টাগ্রামে পোস্ট করেন সালমান খান নিজেই।

ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে, প্রথম ডেলিভারিতেই বলকে বাউন্ডারির বাইরে পাঠালেন তিনি। তার পরের বলগুলিও গেল মাঠের বাইরে। তবে ভিডিয়োটি কিছুটা হলেও একপেশে। সেখানে শুধুই সালমানকে ব্যাট করতে দেখা যাচ্ছে। আসলে পুরো ঘটনায় তিনিই হিরো।

ছবি: ইনস্টাগ্রাম 

সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে সালমান খান অভিনীত 'ভারত' ছবিটি এ বছরের ৫ জুন মুক্তি পাবে।

সংশ্লিষ্ট খবর

পরের
খবর

সংরক্ষিত নারী আসনে মনোনয়নপত্র নিলেন কবরী


আরও খবর

বিনোদন

সারাহ বেগম কবরী- সংগৃহীত

  অনলাইন ডেস্ক

একাদশ জাতীয় সংসদের সংরক্ষিত নারী আসনের মনোনয়নপত্র নিলেন সাবেক সাংসদ ও অভিনেত্রী সারাহ বেগম কবরী।

এ উপলক্ষ্যে মঙ্গলবার রাজধানীর ধানমন্ডিতে আওয়ামী লীগ সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে উপস্থিত হয়ে মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেন কবরী।

এর আগে সকাল ১০টায় মনোনয়ন ফরম বিতরণ কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

পরে কবরী উপস্থিত সাংবাদিকদের বলেন, 'প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা  আমার ওপর আস্থা রেখেছিলেন বলেই  একবার জনগণের ভোটে নির্বাচিত হয়েছি। আমার বিশ্বাস এবারও তিনি আমার ওপর আস্থা রাখবেন।'

কবরী বলেন, 'দেশের সাংস্কৃতিক অঙ্গন থেকে নির্বাচিত হওয়া প্রথম মানুষ আমি।  এবার সংরক্ষিত নারী আসনে এমপি হয়ে সংসদে যাওয়ার সুযোগ  হলে দেশের সাংস্কৃতিক খাতে কাজ করব।'

প্রথমবারের মতো ২০০৮ সালে নারায়ণগঞ্জ -৪ আসন থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছিলেন কবরী। এরপর পুরোটা সময় রাজনীতির পেছনে ব্যয় করেছেন তিনি।