শিক্ষা

তত্ত্বীয় পরীক্ষার প্রস্তুতি

প্রকাশ : ১৮ জুলাই ২০১৯ | প্রিন্ট সংস্করণ

তত্ত্বীয় পরীক্ষার প্রস্তুতি

  সামিউল আলম রাজিব যেগেদ (হাঙ্গেরি) থেকে

হাঙ্গেরিতে চলমান ৩০তম আন্তর্জাতিক বায়োলজি অলিম্পিয়াডের চতুর্থ দিন ছিল গতকাল বুধবার। এদিন প্রতিযোগীরা ব্যবহারিক পরীক্ষায় অবতীর্ণ হন। মঙ্গলবার জুরি বোর্ডের সদস্যরা দিনব্যাপী ব্যবহারিক প্রশ্নের পরিমার্জন, পরিবর্তন করেন। সকাল ৯টা থেকে শুরু করে গতকাল ভোর ৬টা পর্যন্ত একটানা ২১ ঘণ্টা চলে ব্যবহারিক প্রশ্ন ঠিক করার কাজ। গতকাল বাংলাদেশ থেকে আসা চার প্রতিযোগীকে চারটি ব্যবহারিক সমস্যার সমাধান করতে হয়। প্রতিটা সমস্যা ২ থেকে ৩ খণ্ডে বিভক্ত। তাদেরকে আণবিক জীববিদ্যা, নিউরোসায়েন্স, উদ্ভিদ ও প্রাণী গঠন এবং ব্যবচ্ছেদ, বাস্তুবিদ্যা, অণুজীব দিয়ে জ্বালানি সমস্যার সমাধান, প্রাণরসায়ন এবং বায়োইনফরম্যাটিক্সের বেশ কিছু জটিল সমস্যার সমাধান করতে হয়েছে। এবারের ব্যবহারিক পরীক্ষায় অনেকটা সোজা প্রশ্ন হলেও সময়ের সঙ্গে পেরে ওঠা ছিল একটা চ্যালেঞ্জ। এবারের ব্যবহারিক পরীক্ষার কারিগরি সহায়তায় ছিল ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের বায়োলজি রিসার্চ সেন্টার অব এক্সেলেন্স এবং যেগেদ বিশ্ববিদ্যালয়।

আজ বৃহস্পতিবার জুরিরা তত্ত্বীয় পরীক্ষার প্রশ্ন তৈরি নিয়ে কাজ করবেন। করা হবে তত্ত্বীয় প্রশ্নের পরিমার্জন ও পরিবর্তন। এবার মোট ১০০টি তত্ত্বীয় সমস্যার সমাধান করতে হবে। এ জন্য প্রতিযোগীরা সময় পাবেন চার ঘণ্টা। এই ১০০টি প্রশ্ন জীববিদ্যার ৭টি শাখা থেকে হবে। এর মধ্যে অণুজীব ও আণবিক জীববিদ্যা, জীবের গঠন ও শারীরতত্ত্ব, বাস্তুবিদ্যা, বংশগতিবিদ্যা, জিন প্রকৌশল ইত্যাদি বিষয় রয়েছে। প্রতিটা প্রশ্ন খুঁটিয়ে দেখা এবং এগুলো নিয়ে অন্য দেশের জুরিদের সঙ্গে বিতর্ক, আলোচনা করাটা বরাবরই হয়ে ওঠে উপভোগ্য। এখানে সবার চেষ্টা থাকে প্রতিটা প্রশ্ন যেন মানের দিক থেকে উন্নত ও বোধগম্য হয়। এখন জীববিজ্ঞানের জ্ঞানসাগরে, অজস্র জীববিজ্ঞানীর মাঝে ডুবে আছি। নোবেলজয়ী ভিটামিন সি এর উদ্বোধক যেগেদ বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক আলবার্ট যেন্ট-গর্গির শহর যেগেদ এবার বেশ ভালো কিছু স্মৃতি উপহার দেবে- সেই প্রত্যাশা করছি।

মন্তব্য


অন্যান্য