শিক্ষা

ছাত্রীকে শ্লীলতাহানির চেষ্টায় ময়মনসিংহ মেডিকেলে বিক্ষোভ

প্রকাশ : ১৬ মে ২০১৯

ছাত্রীকে শ্লীলতাহানির চেষ্টায় ময়মনসিংহ মেডিকেলে বিক্ষোভ

কলেজের একাডেমিক ভবনের প্রধান গেটে তালা ঝুলিয়ে বিক্ষোভ ও অবস্থান কর্মসূচি পালন করেছে শিক্ষার্থীরা -সমকাল

  ময়মনসিংহ ব্যুরো

ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজের এক ছাত্রীকে একা পেয়ে শ্লীলতাহানির চেষ্টা চালায় বহিরাগত বখাটে। এর প্রতিবাদে ক্লাস ও পরীক্ষা বর্জন করে বৃহস্পতিবার সকাল ৯টা থেকে কলেজের একাডেমিক ভবনের প্রধান গেটে তালা ঝুলিয়ে বিক্ষোভ ও অবস্থান কর্মসূচি পালন করেছে শিক্ষার্থীরা। 

এদিকে শ্নীলতাহানির ঘটনায় ছাত্রী হোস্টেলের গেটে দায়িত্বে অবহেলার জন্য কর্মচারি সেলিম ও বেগমকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।

শিক্ষার্থীরা জানান, ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজের এম-৫৫ ব্যাচের এক শিক্ষার্থী বুধবার ইফতারের আগে ক্যাম্পাসের ছাত্রী হোস্টেলে প্রবেশের সময় বহিরাগত এক বখাটে শ্লীলতাহানির চেষ্টা করে। এ সময় গেটে কোনো দারোয়ান ছিল না। বিষয়টি নিয়ে রাতেই হোস্টেল সুপার নাহিদা আক্তার এবং কলেজ অধ্যক্ষ আনোয়ার হোসেনকে অবহিত করা হয়। কিন্তু কলেজ কর্তৃপক্ষ কোনো পদক্ষেপ না নিয়ে উল্টো শিক্ষার্থীদের বিষয়টি ধামাচাপা দেওয়ার কথা বলে। এতে তারা ক্ষুব্ধ হয়ে বৃহস্পতিবার সকালে ছাত্রী হোস্টেলের কর্তব্যরত দারোয়ান রাজাকে জিজ্ঞাসাবাদের পর মারধর করে। এ সময় চতুর্থ শ্রেণির কর্মচারীদের সঙ্গে তাদের বাকবিতণ্ডা ও ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া হয়। এক পর্যায়ে শিক্ষার্থীরা সকাল ৯টা থেকে ক্লাস-পরীক্ষা বর্জন করে কলেজের প্রধান ফটকে তালা ঝুলিয়ে বিক্ষোভ শুরু করে।

অন্যদিকে দারোয়ানকে মারধরের ঘটনায় চতুর্থ শ্রেণির কর্মচারিরাও ক্যাম্পাসের ক্যান্টিনের সামনে অবস্থান নিয়ে বিক্ষোভ করেন। তারা অভিযোগ করেন, শিক্ষার্থীরা নিরাপত্তারক্ষী রাজাকে বেধড়ক মারধর করেছে। কর্মচারিদের জীবনের নিরাপত্তা নিশ্চিত না হলে কাজে ফিরবেন না বলে তারা জানিয়ে দেন।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আল আমিন জানান, নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের সঙ্গে কলেজ প্রশাসনকে নিয়ে বৈঠক হয়েছে। পরিস্থিতি বর্তমানে স্বাভাবিক রয়েছে। এরই মধ্যে ছাত্রী হোস্টেলের নিরাপত্তায় গেটের প্রধান ফটকে সিসি ক্যামেরা লাগানো হয়েছে। এ ছাড়া নিরাপত্তার জন্য প্রতি শিফটে একজন করে আনসার সদস্য নিয়োজিত থাকবেন। 

হোস্টেলের সীমানাপ্রাচীরে কাঁটাতারের বেড়াসহ অন্যান্য নিরাপত্তামূলক বিষয়গুলো শিগগিরই কলেজ ও হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলেও জানান পুলিশের এ কর্মকর্তা।

এ ব্যাপারে কলেজের অধ্যক্ষ ডা. আনোয়ার হোসেন বলেন, ক্যাম্পাসের নিরাপত্তায় ও শিক্ষার্থীদের দাবিগুলো বিবেচনা করে ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। ঘটনার সময় দায়িত্বপ্রাপ্ত দুই কর্মচারিকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।

মন্তব্য


অন্যান্য