অর্থনীতি

২০১৮ সালে জীবনযাত্রার ব্যয় বেড়েছে ৬ শতাংশ: ক্যাব

২০১৭ সালে বেড়েছিল সাড়ে ৮ শতাংশ

প্রকাশ : ১২ জানুয়ারি ২০১৯ | আপডেট : ১২ জানুয়ারি ২০১৯

২০১৮ সালে জীবনযাত্রার ব্যয় বেড়েছে ৬ শতাংশ: ক্যাব

সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য দেন ক্যাব সভাপতি গোলাম রহমান— ফোকাস বাংলা

  সমকাল প্রতিবেদক

রাজধানীর খুচরা বাজারের পণ্য মূল্য ও বিভিন্ন সেবার দাম বিশ্লেষণ করে কনজ্যুমারস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ক্যাব) বলছে, ২০১৮ সালে জীবনযাত্রায় ব্যয় বেড়েছে ৬ শতাংশ। আর পণ্য ও সেবা মূল্য বেড়েছে ৫ দশমিক ১৯ শতাংশ। শিক্ষা, চিকিৎসা ও যাতায়াত বাবদ যে ব্যয়, তা বাদ দিয়ে জীবনযাত্রার ব্যয় বৃদ্ধির এই হিসাব বের করেছে ক্যাব।

শনিবার ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে সংগঠনটির সভাপতি গোলাম রহমান গত বছরের জীবনযাত্রার ব্যয় নিয়ে পর্যবেক্ষণ প্রতিবেদন তুলে ধরেন। ১১৪টি খাদ্যপণ্য, ২২টি নিত্যব্যবহার্য সামগ্রী এবং ১৪টি সেবার তথ্য নিয়ে পর্যালোচনা প্রতিবেদন তৈরি করা হয়েছে। প্রতিবেদনের জন্য ঢাকা শহরের ১৫টি খুচরা বাজার থেকে তথ্য সংগ্রহ করেছে ক্যাব। এসব পণ্য ও সেবা বাবদ পরিবারের মোট ব্যয় তুলনা করে শহুরে জীবনযাত্রার ব্যয়ের হিসাব বের করেছে সংগঠনটি।

দেশের মোট জনসংখ্যার বড় অংশ গ্রামাঞ্চলে বসবাস করলেও নিজেদের সামর্থ্যের অভাবে ব্যয়ের সার্বিক চিত্র তুলে আনা সম্ভব হয়নি জানিয়ে ক্যাব বলছে, শহরের এই হিসাব সামগ্রিক চিত্র সম্পর্কে একটি আংশিক ধারণা দেবে।

ক্যাব বলছে, ২০১৭ সালের তুলনায় ২০১৮ সালে জীবনযাত্রার ব্যয় ও সেবার মূল্য বৃদ্ধির হার কিছুটা কমেছে। ২০১৭ সালে জীবনযাত্রার ব্যয় বেড়েছিল ৮ দশমিক ৪৪ শতাংশ, আর পণ্য ও সেবা মূল্য বেড়েছিল ৭ দশমিক ১৭ শতাংশ।

ক্যাব জানিয়েছে, ২০১৮ সালে অধিকাংশ নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের মূল্য বহুলাংশে স্থিতিশীল ছিল। বছর শেষে চালসহ বেশ কিছু পণ্যের দাম ছিল নিম্নমুখী। মোটা চালের দাম ১৫ শতাংশ, ডালের দাম গড়ে ১৭ শতাংশ, তেলের দাম ২ শতাংশ, মসলার দাম ২২ শতাংশ, শাকসবজির দাম ১১ শতাংশ ও চিনির দাম ১১ দশমিক ৭৫ শতাংশ কমেছে।

সামগ্রিক পণ্য ও সেবা মূল্য নিয়ে বিশ্লেষণ করার পাশাপাশি ক্যাব চালের মূল্য ও খাদ্য নিরাপত্তা, বিদ্যুৎ, গ্যাস ও জ্বালানি তেলের মূল্য, যাতায়াত ব্যবস্থা, স্বাস্থ্য সেবা, শিক্ষা খাত, ব্যাংকিং খাত, বৈদেশিক বাণিজ্য নীতি ও শুল্ক হার, ভোক্তা অধিকার রক্ষায় প্রণীত আইনের বাস্তবায়ন এবং উন্নয়ন ও ভোক্তাস্বার্থ নিয়ে আলাদা পর্যবেক্ষণ তুলে ধরেছে। ভোক্তা স্বার্থে ১০টি সুপারিশও করেছে সংগঠনটি।

যে হারে জীবনযাত্রার ব্যয় বেড়েছে তা দেশের সাধারণ মানুষের আয়ের সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ বা স্বস্তিদায়ক কি-না— এমন প্রশ্নের জবাবে গোলাম রহমান বলেন, ব্যয় বৃদ্ধির প্রভাব ব্যক্তিভেদে ভিন্ন হয়। ব্যয় অনুপাতে একজন ব্যক্তির আয় না বাড়লে তার জন্য স্বস্তিদায়ক হবে না। আয় বাড়ানোরও ওপর গুরুত্ব দিতে হবে। যদি ব্যয়ের তুলনায় মানুষের আয় বাড়ে তাহলে তা স্বস্তিদায়ক।

ক্যাবের জ্বালানি উপদেষ্টা শামসুল আলম বলেন, বিগত বছর আমদানি শুল্ক বাবদ এক লাখ ১৪ হাজার কোটি টাকা দিতে হয়েছে ভোক্তাদের। এটি পার্শ্ববর্তী বিভিন্ন দেশের তুলনায় অনেক বেশি। ভোক্তাদের ওপর এই শুল্ক কমাতে হবে। বাংলাদেশে আমদানি পণ্যের ওপর ২০১৭ সালে গড়ে ২৫ দশমিক ৬৪ শতাংশ শুল্ক আরোপ করা হয়। ২০১৬ সালে দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার দেশগুলোতে গড়ে শুল্ক আরোপ করা হয়েছিল ৪ দশমিক ৭৩ শতাংশ, কেবল দক্ষিণ এশিয়ায় এর হার ছিল ১২ দশমিক ১৯ শতাংশ। বিদ্যুৎ ও জ্বালানি খাতে সংস্কার করে 'প্রাইস স্টাবিলাইজেশন ফান্ড' সৃষ্টির মাধ্যমে জ্বালানি তেলের দাম স্থিতিশীল রাখা ও এলএনজি আমদানি শুল্ক-করমুক্ত রেখে গ্যাসের মূল্য সহনীয় পর্যায়ে রাখার প্রস্তাব করেছেন তিনি।

ব্যাংক খাত নিয়ে ক্যাব সভাপতি বলেন, ব্যাংকগুলোতে আমানতের সুদহার কমছে। ঋণের সুদহার বাড়ছে। আর নিত্যনতুন সার্ভিস চার্জ চালু হচ্ছে। পুরনো সার্ভিস চার্জ বাড়ানো হচ্ছে। এতে ভোক্তারা ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন।

তিনি জনতা ও বেসিক ব্যাংকের নাম উল্লেখ করে বলেন, এসব ব্যাংকের পর্ষদে পরিচালকদের কোনো জবাবদিহি আছে বলে মনে হয় না। কিন্তু অনিয়মে চেয়ারম্যান ও পরিচালকদের সংশ্লিষ্টতার অভিযোগ রয়েছে। এ ছাড়া রিট পিটিশন ও আইনি জটিলতার কারণে ব্যাংক খাতের খেলাপি ঋণের দুই-তৃতীয়াংশ আটকে আছে।

ক্যাব সভাপতি শিক্ষার মানোন্নয়ন, প্রাথমিক শিক্ষা অষ্টম শ্রেণি পর্যন্ত করা, প্রাথমিক সমাপনী পরীক্ষা বাতিল করে মান উন্নয়নে শিক্ষা আইন প্রণয়নের সুপারিশ করেন। ধান-চালের মূল্য স্থিতিশীল রাখা এবং কৃষককে উৎপাদিত ফসলের উপযুক্ত মূল্য দেওয়ার লক্ষ্যে পরীক্ষামূলকভাবে চুক্তিভিত্তিক উৎপাদন পদ্ধতি অনুসরণ করে ধান কাটার মৌসুমে কৃষকের কাছ থেকে সরাসরি সরকার নির্ধারিত মূল্যে ধান-চাল সংগ্রহ করা ও তাদের জন্য শস্য বীমার প্রথা প্রবর্তন করার প্রস্তাব করেন।

এছাড়া ডাক্তারদের ফিসহ বিভিন্ন স্বাস্থ্য পরীক্ষার মূল্য নির্ধারণ, ওষুধের মান ও মূল্য নিয়ন্ত্রণ; বেসরকারি হাসপাতাল, ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারে সুলভে মানসম্মত চিকিৎসাসেবা প্রদান নিশ্চিত করার সুপারিশ করেন ক্যাব সভাপতি।


মন্তব্য যোগ করুণ

পরের
খবর

বইমেলায় বিকাশ


আরও খবর

অর্থনীতি
বইমেলায় বিকাশ

প্রকাশ : ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৯

  অনলাইন ডেস্ক

অমর একুশে গ্রন্থমেলায় বইয়ের কেনা-বেচা জমে উঠেছে। নগদ টাকা দিয়ে যেমন বই কিনছেন পাঠক তেমনি বিকাশেও পেমেন্ট দিচ্ছেন। বইমেলা উপলক্ষে ক্যাশব্যাক অফার দিচ্ছে দেশের সবচেয়ে বড় মোবাইল ফিনান্সিয়াল সার্ভিস প্রদানকারী প্রতিষ্ঠান বিকাশ।

বিকাশ অ্যাপে পেমেন্ট করলে ৩২% ছাড়া পাচ্ছেন ক্রেতা। প্রকাশকের দেয়া ২৫% ছাড়ের পরে বিকাশ অ্যাপ পেমেন্টে মিলছে ১০% ক্যাশব্যাক। ফলে একটি বই কিনতে ৩২% ছাড়া পাচ্ছেন ক্রেতা।

একজন প্রকাশক জানান, তাদের স্টলের ৫০ ভাগের বেশি বিক্রি হওয়া বইয়ের পেমেন্ট হচ্ছে বিকাশে।

বইমেলায় বই কিনতে আসা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী তপতী বলেন, এবারের বই মেলায় আমার পছন্দের চারটি বই কিনতে ৬০০ টাকার মত লেগেছে। বিকাশে পেমেন্ট করে ৬০ টাকা ক্যাশব্যাক পেয়েছি। ক্যাশব্যাকের টাকা দিয়ে একটি কবিতার বই কিনেছি।

মেলা প্রাঙ্গনে আছে বিনামূল্যে বিকাশ একাউন্ট খোলার সুবিধাও। বসুন্ধরা এলাকার বাসিন্দা নাজনীন আখতার জানান, এখন বিকাশে কেনাকাটায় নানান ধরনের ক্যাশব্যাক থাকে। বইমেলায় এসে দেখলাম ছবি তুলেই একাউন্ট খুলে দিচ্ছে। এখানেই একাউন্ট খুলে ফেললাম।

বিকাশ সূত্রে জানা যায়, সঙ্গে জাতীয় পরিচয়পত্র বা ড্রাইভিং লাইসেন্স বা পাসপোর্ট থাকলে একাউন্ট খোলা যাচ্ছে সহজেই। বুথেই ছবি তুলে এবং পরিচয়পত্রের ফটোকপি করে একাউন্ট খোলা হচ্ছে। বুথের কর্মীরা বিকাশের ব্যবহার এবং ক্যাশব্যাক অফারের তথ্যগুলোও উপস্থাপন করছেন গ্রাহকের চাহিদা অনুসারে। গ্রাহকদের সুবিধার জন্য মেলায় ক্যাশ ইন, ক্যাশ আউটের ব্যবস্থাও রয়েছে। একজন ক্রেতা বিকাশ পেমেন্টে মেলা চলাকালীন সর্বোচ্চ ৬০০ টাকা পর্যন্ত ক্যাশব্যাক পেতে পারেন।

বইমেলা উপলক্ষে অনলাইন পেমেন্ট গেটওয়েতেও ক্যাশব্যাক অফার রয়েছে। যারা সময় সুযোগ করে বইমেলায় এসে পছন্দের বইগুলো কিনতে পারছেন না তারা রকমারি অনলাইন শপে বই কিনে বিকাশ পেমেন্ট গেটওয়েতে পেমেন্ট করে একই সুযোগ পাবেন। অনলাইনে বই কেনাতেও বিকাশ পেমেন্টে থাকছে ১০ শতাংশ ক্যাশব্যক।

পরের
খবর

দেশে গাড়ি বানাবে নিটল টাটার যৌথ কোম্পানি


আরও খবর

অর্থনীতি

  সমকাল প্রতিবেদক

দেশে গাড়ি তৈরির উদ্যোগ নিয়েছে নিটল-নিলয় গ্রুপ। ভারতের বিখ্যাত মোটর গাড়ি নির্মাতা প্রতিষ্ঠান টাটা মোটরসের সঙ্গে যৌথভাবে কারখানা স্থাপন করবে তারা। এ জন্য যৌথ মালিকানায় নিটা নামে একটি কোম্পানি গঠন করেছে। 

এ কোম্পানি কিশোরগঞ্জে ইতিমধ্যে মিনি ট্রাক তৈরির কারখানা স্থাপনের কাজ শুরু করেছে। এ ছাড়া পরিবেশবান্ধব ব্যাটারিচালিত ব্যক্তিগত গাড়ি তৈরিও করবে এ কোম্পানি। নিটল-নিলয় গ্রুপের উদ্যোগে ৯১ একর জমিতে স্থাপিত কিশোরগঞ্জ অর্থনৈতিক অঞ্চলে এ কারখানা স্থাপনের প্রক্রিয়া চলছে।

সোমবার কিশোরগঞ্জ অর্থনৈতিক অঞ্চলকে চূড়ান্ত সনদ দিয়েছে বাংলাদেশ অর্থনৈতিক অঞ্চল কর্তৃপক্ষ (বেজা)। রাজধানীর আগারগাঁওয়ে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে এই ইজেডের চেয়ারম্যান আবদুল মাতলুব আহ্মাদের হাতে লাইসেন্স তুলে দেন প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের মুখ্য সমন্বয়ক (এসডিজি) আবুল কালাম আজাদ। তিনি বলেন, বিনিয়োগকারীদের সবধরনের সেবা দেওয়ার প্রক্রিয়া সহজ করতে শিগগির ওয়ানস্টপ সার্ভিস চালু করা হবে। বিনিয়োগকারীদের তখন আর জটিলতায় পড়তে হবে না। তিনি বিনিয়োগকারীদের আগের প্রযুক্তি না এনে আগামী দিনের প্রযুক্তি আনার আহ্বান জানান।

বেজার নির্বাহী চেয়ারম্যান পবন চৌধুরী বলেন, বেজার এখন ৪০ হাজার একরের ল্যান্ড ব্যাংক। এসব জমিতে দেশ-বিদেশি বড় বিনিয়োগকারীরা বিনিয়োগে এসেছেন। দেশের উন্নয়ন ও বিনিয়োগ বাড়লেও সহজে ব্যবসা পরিচালনা এখনও বড় বাধা। এটি সমাধান হচ্ছে। 

তিনি বলেন, কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়ায় এ ইজেডের জন্য একটি ট্রেড লাইসেন্সের কারণে চূড়ান্ত সনদ পেতে ৬ মাস দেরি হয়েছে। এখন থেকে ইজেডের ট্রেড লাইসেন্স কয়েক মিনিটে দেবে বেজা। এ বিষয়ে গেজেট হয়ে গেছে। এ ছাড়াও ২০টি আইন থেকে বেজাকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে যাতে বিনিয়োগকারীদের সহজে সেবা দেওয়া সম্ভব হয়।

জাতীয় দক্ষতা উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের নির্বাহী চেয়ারম্যান ফারুক হোসেন বলেন, দক্ষতা উন্নয়নে দেশের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান আলাদাভাবে সার্টিফিকেট দিচ্ছে। তাদের সংস্থা সব কারিকুলাম ঠিক করে দেবে ও সার্টিফিকেট দেবে, যা দিয়ে দেশে ও বিদেশে কাজ পাওয়া সহজ হবে।

নিটল-নিলয় গ্রুপের ভাইস চেয়ারম্যান ও সংসদ সদস্য সেলিমা আহমাদ বলেন, দেশের ক্ষতি হবে এমন ব্যবসা তারা করবেন না। দূষণমুক্ত গাড়ি তৈরি করতে নতুন ইজেডে কারখানা স্থাপন করা হচ্ছে বলে জানান তিনি।

কিশোরগঞ্জ ইজেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আবদুল মুসাব্বির আহমাদ বলেন, এ ইজেডে যারা নতুন প্রযুক্তি নিয়ে আসবে তাদের ভাড়া দেওয়া হবে। ইতিমধ্যে এ জোনের অর্ধেক জমি ভাড়া দেওয়া হয়েছে। বাকি জমি ভাড়ার বিষয়ে আলোচনা চলছে। তাদের কোম্পানি মোটরসাইকেল উৎপাদন করছে। এখন গাড়ি তৈরি করা হবে। 

অনুষ্ঠানে বেজার নির্বাহী সদস্য মোহাম্মদ আইয়ুব ও টাটা মোটরসের কান্ট্রি ম্যানেজার জিতেন্দ্র বাহাদুরসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

অনুষ্ঠান শেষে নিটল-নিলয় গ্রুপের চেয়ারম্যান আবদুল মাতলুব আহ্মাদ সাংবাদিকদের বলেন, দেশের বাজার আর গাড়ি আমদানিনির্ভর থাকবে না। এখন দেশে তৈরি গাড়ি স্থানীয় বাজারের চাহিদা মিটিয়ে রফতানি করা হবে। তিনি বলেন, পিকআপ তৈরির পাশাপাশি পরিবেশবান্ধব ব্যাটারিচালিত ব্যক্তিগত গাড়ি তৈরির উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। আধুনিক প্রযুক্তির এ গাড়িতে জাপানে তৈরি ব্যাটারি ব্যবহার করা হবে। এতে একবার চার্য দিলে ২০০ কিলোমিটার যাতায়াত করা যাবে। এ গাড়ির দাম পড়বে ১২ লাখ টাকা। তিনি বলেন, কারখানায় গাড়ির যন্ত্রাংশ, বডিসহ সব কিছুই দেশে তৈরি করা হবে। বর্তমানে যৌথ মালিকানার কোম্পানি নিটার যশোরে একটি বাস ও ট্রাক সংযোজন কারখানা রয়েছে।


পরের
খবর

প্রয়োজন আছে বলেই নতুন ব্যাংক অনুমোদন: অর্থমন্ত্রী


আরও খবর

অর্থনীতি

অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল । ফাইল ছবি

  বিশেষ প্রতিনিধি

অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেছেন, প্রয়োজন আছে বলেই তিনটি নতুন ব্যাংকের অনুমোদন দিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। প্রয়োজনীয়তার ভিত্তিতে কেন্দ্রীয় ব্যাংক এবং সংশ্লিষ্ট যারা আছেন, তারা সম্পূর্ণ বিচার বিশ্নেষণের ভিত্তিতে নতুন ব্যাংকগুলো অনুমোদন দিয়েছেন।

সোমবার সচিবালয়ে ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির বৈঠকে যোগদানের আগে বেসরকারি খাতে অনুমোদন পাওয়া নতুন তিন ব্যাংকের বিষয়ে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে এসব কথা বলেন অর্থমন্ত্রী। 

অর্থমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশে কয়টি ব্যাংক আছে সেটা বড় কথা নয়। ব্যাংকগুলো যদি স্বাভাবিকভাবে চলে, নিয়মনীতি মেনে চলে এবং ব্যাংক যে উদ্দেশ্যে করা সে অনুযায়ী যদি গ্রাহকদের সেবা দিতে পারে, আর নিয়মের মধ্যে থাকতে পারে তাহলে সংখ্যা নিয়ে চিন্তার কোনো কারণ নেই। 

রোববার বাংলাদেশ ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদ সভায় নতুন তিনটি ব্যাংকের নীতিগত অনুমোদন দেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে। ব্যাংকগুলো হলো: বেঙ্গল কমার্শিয়াল, দ্যা সিটিজেন ও পিপলস ব্যাংক। এর একদিন পর এ বিষয়ে উপরোক্ত মন্তব্য করেন অর্থমন্ত্রী।

২০১২ সালেও আওয়ামী লীগ সরকারের সময় রাজনৈতিক বিবেচনায় ১২টি বেসরকারি ব্যাংকের লাইসেন্স দেওয়ার পর সমালোচনা হয়েছিল। এরপর গত কয়েক বছর ধরেই বিপুল পরিমাণ খেলাপিঋণ, আর্থিক কেলেংকারি, অনিয়ম আর তারল্য সঙ্কটের কারণে বারবারই আলোচনায় এসেছে দেশের ব্যাংক খাত। 

তারপরও গত সরকারের সময় নতুন ব্যাংকের অনুমোদন দেওয়ার বিষয়ে সরকারের শীর্ষ পর্যায়ের চাপ ছিল। যদিও আগের অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত, ব্যাংক খাতের আকার বড় হয়ে যাওয়ায় তা সংকোচনের কথা বলেছিলেন। আর অর্থনীতিবিদ ও ব্যাংকাররা দেশে নতুন কোনো ব্যাংকের প্রয়োজন নেই বলে আসছিলেন। 

কিন্তু আওয়ামী লীগ সরকারের টানা তৃতীয় মেয়াদের প্রায় দেড় মাসের মাথায়ই নতুন তিনটি ব্যাংকের অনুমোদন দেয় বাংলাদেশ ব্যাংক। এই তিনটিসহ দেশে ব্যাংকের সংখ্যা ৬২ তে উন্নীত হতে যাচ্ছে। নতুন তিন ব্যাংকের উদ্যোক্তাদের সঙ্গে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের সংশ্নিষ্টতা রয়েছে।

সোমবার সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে অর্থমন্ত্রী বলেন, এই মুহূর্তে আমি নতুন তিন ব্যাংক নিয়ে পুরোপুরি অবহিত নই। তিনটি ব্যাংক সম্পর্কে আগে জানতে হবে। আমি এখনও ভালো জানি না। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সঙ্গে আলাপ করে বিস্তারিত তথ্য জেনে নেবো। তারপর আপনাদের জানাবো। তবে কেন্দ্রীয় ব্যাংক যেহেতু অনুমোদন দিয়েছে, প্রয়োজন না থাকলে এ কাজ করতো না। কেন্দ্রীয় ব্যাংক হয়তো প্রয়োজন অনুভব করেই অনুমোদন দিয়েছে। 

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আমাদের যে ব্যাংকগুলো আছে তাদের পরিশোধিত মূলধন ৪শ' থেকে ৫শ' কোটি টাকা। এটা কিছুই নয়। বিদেশি কোনো ব্যাংকের একটি ব্রাঞ্চের যে মূলধন আছে তা আমাদের বিশটি ব্যাংকেরও নেই। ফলে ব্যাংকের সংখ্যা দিয়ে বিবেচনা করলে চলবে না। বিবেচনা করতে হবে ব্যাংকের চাহিদা আছে কি-না।

খেলাপিঋণের বিষয়ে অর্থমন্ত্রী বলেন, খেলাপিঋণ দীর্ঘদিন ধরেই হয়ে আসছে। এসব খেলাপিঋণ থেকে কিভাবে অব্যাহতি পেতে পারি সে বিষয়ে আমরা কথা বলছি। আমার মনে হয়, সহসাই একটি সমাধানে আসতে পারবো। খেলাপিঋণ যতই বেড়ে যায় ততই ব্যাংকের খরচ বাড়ে। বাড়ে ব্যাংক সুদ হার। এটা আমাদের কমাতেই হবে। এ জন্য বিশেষ অডিটের ব্যবস্থা করা হবে বলে জানান তিনি।

সংশ্লিষ্ট খবর