ক্রিকেট

অভিষেকে হ্যাটট্রিকের রেকর্ড আলিস ইসলামের

প্রকাশ : ১১ জানুয়ারি ২০১৯ | আপডেট : ১১ জানুয়ারি ২০১৯

অভিষেকে হ্যাটট্রিকের রেকর্ড আলিস ইসলামের

অভিষেক ম্যাচে হ্যাটট্রিক করা আলিস ইসলাম।

  অনলাইন ডেস্ক

বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের (বিপিএল) ষষ্ঠ আসরে স্বপ্নের মতো অভিষেক হয়েছে আলিস ইসলামের। কিন্তু মাঠে নেমে দুঃস্বপ্নের মতো শুরু করেন তিনি। ঢাকা ডায়নামাইটস দলে তিনি সুযোগ পান ডানহাতি স্পিনার হিসেবে। ঢাকার দলে এমনিতে নারিন-সাকিবের মতো অলরাউন্ডার আছেন। আছেন শুভাগত। তাতে আনকোরা এই আলিস আহমেদকে স্পিনার হিসেবে খেলানো বিলাসিতা মনে হতে পারে। কিন্তু অধিনায়ক সাকিব যেমন আলিসকে দলে নেওয়ার কারণ জানালেন তেমনি বোঝালেন আলিস নিজে।

ঢাকা শুরুতে ব্যাট করে ৯ উইকেট হারিয়ে ১৮৩ রান তোলে। ব্যাট হাতে মাঠে নামা হয়নি আলিসের। এরপর ফিল্ডিংয়ে নেমে এক ওভারে শুভাগতর বলে মিঠুনের দুই ক্যাচ ছাড়েন তিনি। সহজ ক্যাচ ছিল দুটোই। অভিষেক ম্যাচে তিনি যেন দর্শক কিংবা মাঠের হইহুল্লোড় নিতে পারছিলেন না। শট লেগে তার ক্যাচ মিস দুটি চোখে ফোটার মতো। 

কিন্তু তার চেয়ে সম্ভবত বেশি চোখে লেগে থাকবে তার দারুণ হ্যাটট্রিক। দলের হয়ে ১৮তম ওভারে নিজের  তৃতীয় ওভারে বল করতে আসেন তিনি। ম্যাচ বলতে গেলে তখন রংপুরের পকেটে। হাতে ৬ উইকেট। করতে হবে ১৮ বলে ২৬ রান। ক্রিজে সেট ব্যাটসম্যান মিঠুন। ক্যাচ মিসের প্রায়শ্চিত্ব করার দায়িত্বটা আলিস ওই ওভারে হাতে তুলে নিলেন। ক্যারম বল করে মিঠুন-মাশরাফিকে ফেরালেন। এরপর তুলে নিলেন ফরহাদ রেজাকে।

আলিসের হয়ে গেল হ্যাটট্রিক। টি-২০ অভিষেকে এর আগে আর কেউ হ্যাটট্রিক করার কীর্তি গড়তে পারেননি। অভিষেকে আলিস ইসলাম তা করে দেখালেন। শেষ পর্যন্ত ম্যাচটাও ঢাকা জিতেছে মাত্র ২ রানে। আলিস ৪ ওভার হাত ঘুরিয়ে ২৬ রান দিয়ে নিয়েছেন ৪ উইকেট। শেষ ওভারটাও বল করেছেন তিনি। হয়েছেন ম্যাচসেরা।

ম্যাচ শেষে সাকিব বলেন, আমরা জানতাম আলিসের দারুণ বল করার ক্ষমতা আছে। তাই তাকে দলে নেওয়া। দলের জন্য ভালো যে সে ভালো করেছে। আমরা কাছে অধিনায়কত্ব করার মজা এটাই। এমন ম্যাচ জিতলে আলাদা আত্মবিশ্বাস পাওয়া যায়।

যে আলিস ইসলামকে নিয়ে সাকিব আল হাসান কথা বললেন, তার ক্রিকেট প্রোফাইল ঘাটলে অবশ্য বিশেষ কিছুই পাওয়া যায় না। ডানহাতে অফস্পিন করেন। বয়স হয়েছে ২২ বছর ৩০ দিন। এমনকি প্রথম শ্রেণির ম্যাচ খেলার তথ্যও মেলে না ইএসপিএন কিংবা ক্রিকবাজের মতো ক্রীড়া বিষয়ক সাইটে। মেলে কেবল ঢাকার হয়ে রংপুরের বিপক্ষে খেলা এই ম্যাচটির তথ্য। আনকোরা ক্রিকেটার থেকে রেকর্ড গড়া আলিস তাই শেষ অবধি হতে পারেন এবারের বিপিএলের বড় পাওয়া। 

সংশ্লিষ্ট খবর


মন্তব্য যোগ করুণ

পরের
খবর

ক্রাইস্টচার্চের আঘাত ভুলতে মাঠে নামছেন সৌম্যরা


আরও খবর

ক্রিকেট

  অনলাইন ডেস্ক

ক্রাইস্টচার্চের মসজিদে হামলার ঘটনার খুব কাছে ছিলেন বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের খেলোয়াড়রা। ওই হামলার কারণে হ্যাগলি ওভালের শেষ টেস্ট বাতিল করা হয়। আগে ভাগেই দেশে ফিরিয়ে আনা হয় ক্রিকেটারদের। ঘটনার পর থেকে মানসিক অবসাদে ভুগছেন ক্রিকেটাররা। তবে ঘরে আবদ্ধ থাকলে ওই অবসাদ আরও বাড়তে পারে। তাই সৌম্য সরকার, সাদমান ইসলাম এবং মোহাম্মদ মিঠুন খেলায় ফেরার কথা জানিয়েছেন।

ঢাকা প্রিমিয়াম ডিভিশন ক্রিকেট ক'দিনের বিরতি দিয়ে মঙ্গলবার থেকে মাঠে গড়াবে। ওয়ানডে ফরম্যাটের ওই ক্রিকেটে খেলার কথা জানিয়েছেন সৌম্য। বাংলাদেশ দলের ব্যাটসম্যান সৌম্য সরকার বলেন, 'আমি আগামীকাল (মঙ্গলবার) আবাহনীর হয়ে খেলার সিদ্ধান্ত নিয়েছি।' মাশরাফির সঙ্গে কথা বলে খেলার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন বলে জানান সৌম্য। পরিবার বাইরে থাকায় তিনি ঢাকায় একাকী অনুভব করছেন বলেও জানান।

তার ফেরা নিয়ে বাংলাদেশ ওয়ানডে দলের অধিনায়ক মাশরাফি মর্তুজা বলেন, 'আমার মতে, ওই আঘাত কাটিয়ে ওঠার সবচেয়ে ভালো উপায় ক্রিকেটে ফেরা।' বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের আরেক সদস্য মিঠুনও খেলবেন বলে জানা গেছে।

ওদিকে বাংলাদেশ দলের হয়ে টেস্ট খেলা সাদমানও ডিপিএলে খেলবেন বলে জানিয়েছেন, 'আগামীকাল খেলতে পারবো কিনা জানি না, আমার পিঠে সামান্য ব্যথা আছে। তবে খেলার অবস্থায় ফিরলেই আমি খেলবো।' 

সাদমানের ক্রিকেটে ফেরার ব্যাপারে তার বাবা (বিসিবি কর্মকর্তা) শহিদুল ইসলাম বলেন, 'আমি তাকে দ্রুতই খেলার জন্য বলেছি। ঘরে বসে থাকলে এটা আরও চাপ বাড়াবে। অনেক আত্মীয় তাকে ওই ঘটনা নিয়ে নানান প্রশ্ন করছে। যা নিয়ে কথা বলতে সে ভালোবোধ করছে না।'

এর আগে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন ক্রিকেটারদের নিউজিল্যান্ডের হামলায় পাওয়া ওই মানসিক আঘাত কাটিয়ে উঠতে নিজেদের মতো করে কিছু সময় কাটাতে বলেন। খেলাকে কিছুদিনের জন্য ছুটি দেওয়ার পরামর্শ দেন। পরিবারের সঙ্গে সময় কাটাতে বলেন। এরপর ক্রিকেটাররা স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরলে খেলায় ফেরার কথা বলেন তিনি। 

সংশ্লিষ্ট খবর

পরের
খবর

আফগানদের ঐতিহাসিক টেস্ট জয়


আরও খবর

ক্রিকেট

ছবি: এএফপি

  অনলাইন ডেস্ক

আফগানিস্তান এবং আয়ার‌ল্যান্ড তাদের টেস্ট ইতিহাসের দ্বিতীয় ম্যাচ খেলতে মাঠে নামে। জয়ী দলের জন্য তাই ইতিহাস অপেক্ষা করছিল। সেই ইতিহাসে নাম উঠে গেল আফগানিস্তানের। আফগান অধিনায়ক আসগর আফগান যেটাকে আফগানিস্তান দলের ঐতিহাসিক জয় বলছেন না। বলছেন, আফগানিস্তানের জন্য ঐতিহাসিক দিন। এই জয়ে রেকর্ড বইয়েও নাম তুলে ফেলল আফগানিস্তান।

নিজেদের টেস্ট ইতিহাসের প্রথম শিরোপা নিয়ে আফগানদের উদযাপন। ছবি: এএফপি 

নিজেদের টেস্ট ইতিহাসের প্রথম ম্যাচে জয় পেয়েছিল অস্ট্রেলিয়া। দ্বিতীয় ম্যাচেই ইংল্যান্ড এবং পাকিস্তান টেস্ট ক্রিকেটে জয়ের স্বাদ পায়। এবার আফগানিস্তান তৃতীয় দল হিসিবে তাদের দ্বিতীয় ম্যাচে দুর্দান্ত জয় তুলে নিয়েছে। প্রথম টেস্ট জয় পেতে ওয়েস্ট ইন্ডিজের ছয় ম্যাচ, জিম্বাবুয়ের ১১ ম্যাচ, দক্ষিণ আফ্রিকার ১২ ম্যাচ, শ্রীলংকা ও ভারতের যথাক্রমে ১৪ ও ২৫ ম্যাচ, বাংলাদেশের ৩৫ ম্যাচ এবং নিউজিল্যান্ডের ৪৫ ম্যাচ লাগে।

ভারতের দেরাদুনে রাজীব গান্ধী আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে ঐতিহাসিক এই জয়ের জন্য আফগান দ্বিতীয় ইনিংসে ১৪৭ রানের লক্ষ্য পায়। দুর্দান্ত খেলা আফগানিস্তান ৭ উইকেট হাতে রেখে ওই রান তুলে ফেলে। দলের হয়ে দ্বিতীয় ইনিংসে এহসানউল্লাহ জানাত ৬৫ রানের হার না মানা ইনিংস খেলেন। আর রহমত শাহ খেলেন ৭৬ রানের ইনিংস।

শিরোপা হাতে আফগানিস্তান অধিনায়ক আসগর আফগান। ছবি: এএফপি

এর আগে আয়ারল্যান্ডের প্রথম ইনিংসেই ঠিক হয়ে যায় ম্যাচে হার-জিত হচ্ছে। প্রথমে ব্যাট করে আয়ারল্যান্ড মাত্র ১৭২ রানে অলআউট হয়ে যায়। জবাবে প্রথম ইনিংসে ৩১৪ রান তোলে আফগানরা। লিড নেয় ১৪২ রানের। দ্বিতীয় ইনিংসে আয়ারল্যান্ড থামে ২৮৮ রান করে। জয়ের জন্য আফগানরা ১৪৭ রানের লক্ষ্য পায়।

প্রথম ইনিংসে আফগান ব্যাটসম্যান রহমত শাহ ৯৮ রান করেন। এছাড়া আসগর আফগান ৬৭ এবং হাসমতউল্লাহ শাহেদি করেন ৬১ রান। দুই ইনিংসে ইয়ামিন আহমেদজাই নেন ছয় উইকেট। দ্বিতীয় ইনিংসে রশিদ খান নেন ৫ উইকেট। দারুণ এই জয়ে আফগানদের পক্ষে ম্যাচ সেরা হন রহমত শাহ।

সংশ্লিষ্ট খবর

পরের
খবর

সাব্বিরের বিয়ে


আরও খবর

ক্রিকেট
সাব্বিরের বিয়ে

প্রকাশ : ১৮ মার্চ ২০১৯ | প্রিন্ট সংস্করণ

  ক্রীড়া প্রতিবেদক

বিয়ের পিঁড়িতে বসেছেন ক্রিকেটার সাব্বির রহমান। সম্প্রতি একেবারে ঘরোয়া পরিবেশে আকদ হয়েছে মারকুটে এ ব্যাটসম্যানের। পাত্রী অর্পা উচ্চ মাধ্যমিক প্রথম বর্ষে পড়ছেন। দুই পরিবারের সদস্যদের উপস্থিতিতে একেবারে ঘরোয়া পরিবেশে আকদ হয়েছে। গতকাল বিয়ের বিষয়ে জানতে চাইলে সাব্বির বলেন, 'অনুষ্ঠান যখন করব, তখন সবাইকে জানাব।'

সাব্বিরের বাবা খাজা আহমেদ অবশ্য ছেলের বিয়ের কথা স্বীকার করেছেন, 'ঢাকার বাসায় আপাতত ওদের আকদ করে রাখলাম। একেবারে ছোট আয়োজন, কাউকে বলিনি। অনুষ্ঠান করলে পরে সবাইকে জানাব। দোয়া করবেন তারা যেন ভালো থাকে।' গত জানুয়ারিতে নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে নিউজিল্যান্ড সফরের ওয়ানডে দলে ফেরার সময় সাব্বির রহমান বলেছিলেন, নতুন করে ক্যারিয়ার সাজাতে চান। অতীতের সব বাজে অভিজ্ঞতা ভুলে সম্পূর্ণ নতুনভাবে নিজেকে গড়ে তুলতে চান তিনি। সে পদক্ষেপের অংশ হিসেবেই হয়তো বিয়ের কাজটা সেরে ফেলেছেন সাব্বির।

শৃঙ্খলা ভঙ্গের অভিযোগে এখন পর্যন্ত বেশ কয়েকবার জাতীয় দল থেকে বহিস্কার ও জরিমানা দিয়েছেন সাব্বির। এর মধ্যে গত সেপ্টেম্বরে সর্বশেষ জাতীয় দল থেকে ছয় মাসের জন্য বহিস্কৃত হয়েছিলেন তিনি। তবে আগামী বিশ্বকাপের ভাবনা থেকেই শাস্তি কমিয়ে নিউজিল্যান্ডের সফরের দলে নেওয়া হয় তাকে।

সংশ্লিষ্ট খবর