ক্রিকেট বিশ্বকাপ ২০১৯

আফগান দর্প চূর্ণ হলো?

প্রকাশ : ২৫ জুন ২০১৯

আফগান দর্প চূর্ণ হলো?

ছবি: টুইটার

  সুমন মেহেদী

ইংরেজি মাধ্যমে পড়া 'নন্দন' হোক কিংবা 'গলি বয়'। বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব হোক কিংবা ক্রিকেটার 'কাম সাংসদ' মাশরাফি। বঙ্গ দেশের 'বুলি, ছড়া, বচনের' সঙ্গে অজান্তেই পরিচয় সবার। কুসুমকুমারীর  '...কথায় না বড় হয়ে কাজে বড় হবে।' কিংবা হরিশচন্দ্র মিত্রের, '...লোকে যারে বড় বলে বড় সেই হয়।' শিক্ষা মত কথা! ম্যাচের আগে আফগানদের সমীহ করে কথা বলেছেন টাইগার ক্রিকেটাররা।

কিন্তু ওরা তো কাবুল দেশের মানুষ। ওদের কাঁধের ঝুলাতে কি-আর এসব বুলি-বচনের ভান্ডার আছে! ম্যাচের আগে মোহাম্মদ মিঠুন যেমন বলেন, 'আফগানদের বিপক্ষে আমাদের সতর্ক থাকতে হবে। তাদের দলে বিশ্ব মানের স্পিনার আছেন। যদিও আমরা স্পিনের বিপক্ষে ভালো।' মাশরাফি সংবাদ সম্মেলনে দলের সতর্ক থাকার কথা বলেন। ওদিকে আফগান অধিনায়ক বলেন, তারাই বাংলাদেশের বিপক্ষে ফেবারিট। বাংলাদেশকে তারা হালকাভাবে নিচ্ছে না! কথা হয়তো নিছক 'হাসির' ছলে বলেছেন তারা।  তবে তাতে দর্পও মেশানো ছিল।

ভারতের বিপক্ষে ম্যাচের পরে আফগানিস্তান ক্রিকেট বোর্ডে অন্তবর্তীকালীন    প্রধান নির্বাহী আবদুল্লাহ খান বলেন, আফগানিস্তান এই মুহূর্তে পাকিস্তানের চেয়ে ভালো দল। শোয়েব আখতারকে তাই টুইট করে জবাব দিতে হয়, এসিবি'র নির্বাহী কৌতুক অভিনয়ে নামতে পারেন। ম্যাচের আগে টাইগার কোচ স্টিভ রোডস সম্মান দিয়ে বলেন, তাদের স্পিনারদের সম্মান করছি। তারপরেই না বলেন, আমরা কৌশল ঠিক করে রেখেছি। আফগানদের লম্ফ-ঝম্ফ, স্পিন দিয়ে টাইগারদের বধ করবেন তারা।

তবে বাংলাদেশের বিপক্ষে ২০০ রানে অলআউট হয়ে, ৬২ রানের বড় ব্যবধানে হেরে আফগানদের সে দর্প নিশ্চয় চূর্ণ হয়েছে। স্পিন বিষে কাবু  করতে গিয়ে সাকিবের স্পিনে নীল হয়েছেন তারা। সাকিব তুলে নিয়েছেন ক্যারিয়ার সেরা ২৯ রানে পাঁচ উইকেট। ব্যাটে রান তুলতে কষ্ট হয়েছে টাইগারদের। সাকিব সে কথাও স্বীকার করেছেন ম্যাচ শেষে। তবে স্পিন প্রতিভা আর প্রতিভার সঙ্গে অভিজ্ঞতা দুটির দাম দু'রকম- সাকিব তা বুঝিয়ে দিয়েছেন।

বুঝিয়ে দিয়েছেন বিশ্ব মঞ্চে ভালো করতে এখনও অনেক পথ পেরিয়ে আসতে হবে তাদের। বাংলাদেশ যেমন এসেছে। এ নিয়ে পরপ দুই বিশ্বকাপে অংশ নিচ্ছে আফগানিস্তান। জয়ের মুখ দেখেছে কেবল একটি। গত বিশ্বকাপে স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে মাত্র এক উইকেটে। অথচ বাংলাদেশ প্রথম বিশ্বকাপ খেলতে গিয়েই এই ইংল্যান্ডে ফাইনাল খেলা পাকিস্তানকে গ্রুপ পর্বে হারায়। আয়ারল্যান্ড প্রথম বিশ্বকাপ খেলতে এসেই জয় নিয়ে দেশে ফেরে। এখন পর্যন্ত বিশ্বকাপে তাদের জয় সাতটি। নেদারল্যান্ড-কানাডার বিশ্বকাপে দুটি করে জয় আছে। সেখানে আফগানরা এখনও ধুঁকছে! 

চলতি বিশ্বকাপে সর্বোচ্চ ৩৯৭ রান খেয়েছে আফগানরা। রশিদ খান স্পিনার হিসেবে বিশ্বকাপে গড়েছেন রান দেওয়ার রেকর্ড। এছাড়া বিশ্বকাপের ইতিহাসে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে সর্বোচ্চ ৪১৭ রান (২০১৫ বিশ্বকাপ) দেওয়ার রেকর্ডও তাদের। চলতি বিশ্বকাপে ভারত এবং শ্রীলংকার বিপক্ষে ম্যাচে অবশ্য তারা লড়াই করেছে। স্বান্তনা বলতে ওটুকুই। সঙ্গে দেশে ফেরার আগে যদি এক-আধটা জয় নিয়ে ফেরা যায় সেটাই হবে তাদের স্বান্তনা। চলতি বিশ্বকাপে আফগানদের এখনও দুই ম্যাচ বাকি। ওয়েস্ট ইন্ডিজ এবং পাকিস্তানের বিপক্ষে খেলবে তারা। ওই দুই ম্যাচই স্বান্তনার শেষ সুযোগ।

মন্তব্য


অন্যান্য