ক্রিকেট বিশ্বকাপ ২০১৯

আফগানিস্তানকে পাত্তাই দিলো না বাংলাদেশ

প্রকাশ : ২৪ জুন ২০১৯ | আপডেট : ২৪ জুন ২০১৯

আফগানিস্তানকে পাত্তাই দিলো না বাংলাদেশ

ছবি: এএফপি

  অনলাইন ডেস্ক

বাংলাদেশ বতর্মানে যে ধরণের ক্রিকেট খেলছে তাতে করে আফগানরা টাইগার বিপক্ষে প্রতিরোধ গড়বে এটা ভাবেনি কেউই। তবে ভারতের বিপক্ষে দারুণ লড়াই করার আফগানদের নিয়ে প্রত্যাশার পারদ চড়া হয়ে ওঠে। এনিয়ে বেশ আলোচনা হওয়ায় আফগানদের নিয়ে বেশ সতর্ক হয়ে ওঠে বাংলাদেশও। তাছাড়া 'পচা শামুকে পা কাটা'র ইতিহাসটা বাংলাদেশের জন্য নতুন তো নয়! আফগানদের বিপক্ষে অতীত পরিসংখ্যানও বেশ ভাবিয়ে তোলে মাশরাফিদের।

তবে মাঠের লড়াইয়ে তার ছিটেফোটা প্রভাবও পড়ল না। সাউদাম্পটনের স্লো ও টার্নিং উইকেটে দুর্দান্ত ব্যাটিং করে ৮ উইকেটে ২৬২ রান তোলে বাংলাদেশ। জবাবে সাকিব আল হাসানের বোলিংয়ে ধুঁকে ধুঁকে শেষ পর্যন্ত ২০০ রানে শেষ হয় আফগানদের ইনিংস। ৬২ রানের জয় নিয়ে সেমিফাইনালের পথে ভালোভাবেই টিকে থাকল বাংলাদেশ।

২৬৩ রানের লক্ষ্যে খেলতে নেমে স্পিনের বিপক্ষে আফগানিস্তানের দুর্বলতা ফুটে উঠে। সাকিব আল হাসানের ঘূর্ণিতে দিশেহারা হয়ে পড়ে এশিয়ার উদীয়মান শক্তিটি। ব্যাটিং ইনিংসের দশ ওভার পর্যন্তই যা একটু লড়াই করলো আফগানিস্তান।

তবে সাকিব দৃশ্যপটে আসতেই বদলে যায় পুরো ম্যাচের চেহারা। প্রথম ওভারেই সাকিব ফেরান রহমত শাহকে। ২৪ রান করেন আফগান ওপেনার। হাসমতউল্লাহ শাহেদিকে নিয়ে ইনিংস মেরামত করছিলেন অধিনায়ক গুলবদিন নাইব। 

তবে ধীরে খেলা শাহেদি স্ট্যাম্পড হন মোসাদ্দেকের বলে। তিনি করেন ৩১ বলে ১১ রান। ২৯তম ওভারে দলীয় ১০৪ রানে গুলবদিনকে ফেরান সাকিব। ৭৫ বলে ৪৭ রান করেন তিনি। সেই ওভারের তৃতীয় বলে মোহাম্মদ নবীকে ফিরিয়ে আফগানকে একেবারে খাদের কিনারে ফেলে দেন সাকিব। আজ কোনো রানই করতে পারেননি নবী।

এরপর ৩৩তম ওভারে আজগর আফগানকেও ফেরান সাকিব। ২০ রান করেন আজগর। আফগানদের রান যখন ১৩২, লিটন দাসের দারুণ থ্রোয়ে আউট হন উইকেটরক্ষক ইকরাম আলী খিল। এরপর নজিবুল্লাহ জাদরানকে নিয়ে কিছুটা হলেও প্রতিরোধ গড়ে তোলেন শামিউল্লাহ শেনওয়ারি। এই জুটিতে আসলো ৫৬ রান।

জাদরানকে ফিরিয়ে নিজের কোটার পঞ্চম উইকেট নেন সাকিব আল হাসান। ২৩ বলে ২৩ রান করেন জাদরান। বাকি সময়টুকু একাই লড়াই করলেন শেনওয়ারি। মুস্তাফিজের জোড়া আঘাতে ফিরে আসেন রশিদ খান ও দৌলত জাদরান। রান করেন শেনওয়ারি। সাকিব আল হাসান ২৯ রানে নেন ৫ উইকেট।  

এর আগে প্রথমে ব্যাট করে বাংলাদেশ ২৬৩ রানের লক্ষ্য দাঁড় করায়। মুশফিক দলের হয়ে ৮৩ রান করেন। সাকিব আল হাসান খেলেন ৫১ রানের ইনিংস। এছাড়া তামিমের ৩৬, মোসাদ্দেকের ৩৫ এবং মাহমুদুল্লাহর ২৭ রানের সুবাদে লড়াইয়ের পুঁজি পায় বাংলাদেশ।

মন্তব্য


অন্যান্য