চট্টগ্রাম

প্রতিপক্ষের হামলায় ঈদের রাতে প্রাণ গেল যুবকের

প্রকাশ : ১২ আগষ্ট ২০১৯ | আপডেট : ১২ আগষ্ট ২০১৯

প্রতিপক্ষের হামলায় ঈদের রাতে প্রাণ গেল যুবকের

  সোনাগাজী (ফেনী) প্রতিনিধি

ফেনীর সোনাগাজী উপজেলার সোনাপুর গ্রামে ঈদের রাতে প্রতিপক্ষের হামলায় শামিম ফরহাদ নামে এক যুবক নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় পুলিশ জিজ্ঞাসাবাদের জন্য দুইজনকে আটক করেছে।

রোববার রাত ৯টার দিকে সোনাপুর গ্রামের তিনবাড়িয়া সংলগ্ন মিয়া সওদাগরের দোকানের সামনে এ ঘটনা ঘটে। 

আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে দীর্ঘদিন ধরে উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক যুগ্ম আহ্বায়ক সাইদ আনোয়ার গ্রুপ ও উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ইফতেখার হোসেন খন্দকার এবং ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক ফরহাদ গ্রুপের দ্বন্দ্ব চলছে।

নিহত শামিম ইফতেখার গ্রুপের সমর্থক ছিলেন। তিনি সোনাগাজী সদর ইউনিয়নের শাহাপুর গ্রামের কৃষক আব্দুল মুনাফের ছেলে। 

জানা গেছে, গত ৭ আগস্ট পূর্ব সোনাপুর গ্রামের দুলালের ছেলে পারভেজের সঙ্গে বাদামতলী গ্রামের হোনা মিয়ার ছেলে রাহাতের তিনবাড়িয়া নামক স্থানে তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে বাকবিতণ্ডা হয়। পরে স্থানীয়দের হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি সংঘর্ষের দিকে না গড়ালেও রাহাত দেখে নেওয়ার হুমকি দিয়ে চলে যান।

এদিকে রোববারের রাতের সংঘর্ষের বিষয়ে উভয়পক্ষ পরস্পরকে দোষারোপ করে বক্তব্য দিচ্ছে। একপক্ষ বলছে, রাতে রাহাত তার দলবল নিয়ে তিনবাড়িয়াতে এসে পারভেজকে তুলে নেওয়ার চেষ্টা করেন। এসময় এলাকাবাসী তাদের ধাওয়া করলে সবাই পালিয়ে যেতে সক্ষম হলেও শামিম ধরা পড়েন। এলাকাবাসীর পিটুনিতে তিনি গুরুতর আহত হলে হাসপাতালে নেওয়ার পথেই মৃত্যু হয়।

অন্যপক্ষ বলছে, রোববার রাতে শামিম, মাসুদ, রাহাত চরলামছি বাজার থেকে বাড়ি ফেরার সময় তিনবাড়িয়াতে পৌঁছালে পারভেজ তার দলবল নিয়ে তিনজনকে মারধর শুরু করেন। মাসুদ ও রাহাত পালিয়ে যেতে সক্ষম হলেও শামিমকে তারা কুপিয়ে ও পিটিয়ে গুরুতর জখম করে। তাকে উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য দ্রুত ফেনী আধুনিক সদর হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে তার অবস্থার অবনতি হলে উন্নত চিকিৎসার জন্য চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয়। রাতেই চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।

সোনাগাজী মডেল থানার ওসি (তদন্ত) খালিদ হোসেন জানিয়েছে, ঘটনার পর পুলিশ ওই এলাকায় অভিযান চালিয়ে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য শেখ আলম ও আমির হোসেন নামে দুইজনকে আটক করেছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে পুলিশের টহল জোরদার করা হয়েছে। নিহতের পরিবারের পক্ষ থেকে লিখিত অভিযোগ পেলে পরবর্তী আইনগত পদক্ষেপ নেওয়া হবে।


মন্তব্য


অন্যান্য