রাজধানী

নয়াপল্টনে পুলিশের গাড়িতে আগুন দেওয়া সেই যুবক গ্রেফতার

প্রকাশ : ১০ জানুয়ারি ২০১৯

নয়াপল্টনে পুলিশের গাড়িতে আগুন দেওয়া সেই যুবক গ্রেফতার

এক যুবককে ম্যাচের কাঠি জ্বালিয়ে পুলিশের একটি গাড়িতে আগুন দিতে দেখা যায় (ডানে)— সমকাল

  সমকাল প্রতিবেদক

রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপি কার্যালয়ের সামনে পুলিশের গাড়িতে আগুন দেওয়া সেই যুবককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

বৃহস্পতিবার দুপুরে পল্লবীর মুসলিম বিহারি ক্যাম্প থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। যুবকের নাম ওয়াসিম। জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে ১৪ নভেম্বর ওয়াসিম পুলিশের গাড়িতে আগুন দেয়। গাড়ির পাশে দাঁড়িয়ে ম্যাচের কাঠি জ্বালিয়ে আগুন ধরানোর দৃশ্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়। সেই থেকে পুলিশ তাকে খুঁজছিল।

বৃহস্পতিবার মিন্টো রোডে ঢাকা মহানগর পুলিশের মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানানো হয়। ওয়াসিমসহ এ ঘটনায় গ্রেফতারের সংখ্যা দাঁড়াল ১৪ জনে।

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপির মনোনয়ন ফরম বিক্রিকে কেন্দ্র করে ১৪ নভেম্বর বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনের সড়ক অবরোধ করে শোডাউন করে নেতাকর্মীরা। এ সময় তাদের সড়ক থেকে সরিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করলে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষ বাধে। পুলিশ প্রচুর কাঁদানে গ্যাসের শেল ও ছররা গুলি ছোড়ে। কিছুক্ষণের জন্য পুরো এলাকা রণক্ষেত্রে পরিণত হয়। বিভিন্ন যানবাহন ভাংচুর ও পুলিশের দুটি গাড়িতে অগ্নিসংযোগ করা হয়। এক যুবককে ম্যাচের কাঠি জ্বালিয়ে পুলিশের একটি গাড়িতে আগুন দিতে দেখা যায়। এ ছাড়া পুলিশের গাড়ির ওপর উঠে লাফালাফি করে এক হেলমেটধারী। এসব দৃশ্য ভিডিও ফুটেজে ধরা পড়ে এবং পরে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়ে যায়। ভিডিও ফুটেজ দেখে পুলিশ অগ্নিসংযোগকারী ওয়াসিমকে শনাক্ত করে।

সংঘর্ষের পর পুলিশের পক্ষ থেকে দাবি করা হয়, সংঘর্ষের জন্য বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস, তার স্ত্রী আফরোজা আব্বাস, বিএনপির আরেক নেতা আখতারুজ্জামান ও নবীউল্লাহ দায়ী। এ ঘটনায় মির্জা আব্বাসকে আসামি করে পুলিশ তিনটি মামলা করেছে। এসব মামলা ঢাকা মহাগনগর গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি) তদন্ত করছে।

সংবাদ সম্মেলনে ডিবির অতিরিক্ত কমিশনার আবদুল বাতেন জানান, গ্রেফতারের পর ওয়াসিম অগ্নিসংযোগের কথা স্বীকার করেছে।

ওয়াসিমের রাজনৈতিক পরিচয় ও পদবি সম্পর্কে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে আবদুল বাতেন বলেন, ওয়াসিম বিএনপির রাজনীতির সঙ্গে জড়িত। তবে পদ আছে কি-না তা যাচাই করতে হবে। শনাক্ত হওয়া অন্যদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

মন্তব্য


অন্যান্য