রাজধানী

জাতীয় চিড়িয়াখানায় প্রবেশ ফি বাড়ল, পিকনিক স্পট বন্ধ

প্রকাশ : ০৪ নভেম্বর ২০১৮ | আপডেট : ০৪ নভেম্বর ২০১৮

জাতীয় চিড়িয়াখানায় প্রবেশ ফি বাড়ল, পিকনিক স্পট বন্ধ

ফাইল ছবি

  সমকাল প্রতিবেদক

জাতীয় চিড়িয়াখানায় প্রবেশের ফি ৩০ টাকা থেকে বাড়িয়ে ৫০ টাকা করা হলো। পাশাপাশি চিড়িয়াখানার বাইরের গাড়ি পার্কিং ফি বাড়ানোর সিদ্ধান্তসহ রিকশা, ভ্যান বা সাইকেলের প্রচলিত পার্কিং পদ্ধতি বাতিল করা হয়েছে। চিড়িয়াখানার সৌন্দর্য ও পরিবেশ রক্ষার স্বার্থে চিড়িয়াখানার পিকনিক স্পটগুলো বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে।

উৎসব দ্বীপ ও নিঝুম দ্বীপ নামে দুটি পিকনিক স্পটে যথাক্রমে দশ ও ছয় হাজার টাকা ভাড়া দিয়ে দিনব্যাপী বনভোজন করার অনুমতি পেত নগরবাসী। তবে তাদের হৈচৈ, উচ্চ শব্দে গান বাজানোসহ যত্রতত্র ময়লা-আবর্জনা ফেলার কারণে চিড়িয়াখানার পরিবেশ নষ্ট হয় বলে পিকনিক স্পট বন্ধের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

মিরপুরে জাতীয় চিড়িয়াখানায় মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী নারায়ণ চন্দ্র চন্দের সভাপতিত্বে জাতীয় চিড়িয়াখানার উপদেষ্টা কমিটির এক সভায় এসব সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। ৩২ সদস্য বিশিষ্ট উপদেষ্টা কমিটি বছরে দু'বার সভার মাধ্যমে গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত নিয়ে থাকে।

২০১৪ সালে গঠিত উপদেষ্টা কমিটি পুনর্গঠন করে গত ২৪ অক্টোবর নতুন কমিটি গঠন করা হয়। নতুন কমিটির প্রথম সভা ছিল রোববার। 

মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী, উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়র, কামাল আহমেদ মজুমদার এমপি, আসলামুল হক এমপি, ইলিয়াস হোসেন মোল্লাহ এমপি, অ্যাটর্নি জেনারেল, মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়, পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন এবং তথ্য মন্ত্রণালয়ের সচিবরা এ কমিটির সদস্য।

সভায় বক্তব্য দেন কামাল আহমেদ মজুমদার এমপি, সচিব রইছউল আলম মণ্ডল, প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক হীরেশ রঞ্জন ভৌমিক, প্রাণিসম্পদ গবেষণা ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক নাথুরাম সরকার, মৎস্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক আবু সাঈদ মোহাম্মদ রাশেদুল হক প্রমুখ।

সভায় জানানো হয়, ১১৫টি প্রাইভেটকার ও ১০টি মিনিবাস ধারণ ক্ষমতাসম্পন্ন একটি বর্ধিত বহিঃপার্কিং নির্মাণের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে জাতীয় চিড়িয়াখানায়। পরিবেশ রক্ষায় চিড়িয়াখানার লেকে টিকিট কেটে বড়শিতে মাছ ধরা বন্ধ অথবা সীমিত করার পরামর্শও দেয় উপদেষ্টা কমিটি। 

এ ছাড়া ঢাকার জাতীয় চিড়িয়াখানাসহ রংপুর চিড়িয়াখানা আধুনিকায়নে মাস্টার প্ল্যান স্ট্রাকচারাল ডিজাইন প্রণয়নসহ ৩৪ কোটি টাকার একটি প্রকল্প হাতে নেওয়া হয়েছে।

মন্তব্য


অন্যান্য