রূপচর্চা

সৌন্দর্যচর্চায় পেঁয়াজের ব্যবহার

প্রকাশ : ০৮ ডিসেম্বর ২০১৮

সৌন্দর্যচর্চায় পেঁয়াজের ব্যবহার

  অনলাইন ডেস্ক

রান্নার স্বাদ বাড়াতে পেঁয়াজের জুড়ি নেই। সৌন্দর্যচর্চাতেও পেঁয়াজ দারুন উপকারী। এতে থাকা অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট ও ভিটামিন ত্বকের সুরক্ষা করে। সেই সঙ্গে চুলেরও বৃদ্ধি ঘটায়। 

পেঁয়াজে থাকা ভিটামিন এ, সি এবং ই তে প্রচুর পরিমানে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট রয়েছে। এগুলো ত্বকের বুড়িয়ে যাওয়া রোধ করে। তাই ত্বকের তারুণ্য বজায় রাখতে মুখে পেঁয়াজের রস লাগাতে পারেন। 

পেঁয়াজের রসের সঙ্গে যদি হলুদ মিশিয়ে মুখে লাগানো যায় তাহলে তা মুখের কালো দাগ দূর করতে দারুনভাবে কাজ করে। এছাড়া পেঁয়াজের রসের সঙ্গে ময়দা আর দুধের সর মিশিয়ে লাগালেও ত্বক দিনে দিনে উজ্জ্বল হয়ে ওঠে। 

ত্বকের রোদে পোড়া ভাব দূর করতে অলিভ অয়েলের সঙ্গে পেঁয়াজের রস মিশিয়ে লাগাতে পারেন।এতে উপকার পাবেন। 

পেঁয়াজের রস চুলের বৃদ্ধি ঘটাতেও ভূমিকা রাখে। এতে থাকা উচ্চ পরিমানের সালফার চুলের গোড়ায় রক্ত সরবরাহ বাড়িয়ে চুলের বৃদ্ধি ঘটায়। পেঁয়াজের রসের সঙ্গে গোলাপ পানি মিশিয়ে একটা বোতলে রেখে দিতে পারেন। তারপর স্প্রে দিয়ে মিশ্রনটা চুলে লাগান।৩০ মিনিট পর চুলটা ধুয়ে ফেলুন। এতে চুল উজ্জ্বল দেখাবে। 

চুলের খুশকি দূর করতে কিংবা চুল পাকা রোধেও পেঁয়াজের রসের জুড়ি নেই। 

পেঁয়াজের রসের সঙ্গে ভিটামিন ই তেল মিশিয়ে রাতে ঘুমানোর আগে ঠোঁটে লাগাতে পারেন। তাহলে ঠোঁটের শুষ্কতা দূর হয়ে তা হবে কোমল ও মসৃণ।

সংশ্লিষ্ট খবর


মন্তব্য যোগ করুণ

পরের
খবর

খুশকির সমস্যা কমাবে আদার রস


আরও খবর

রূপচর্চা
খুশকির সমস্যা কমাবে আদার রস

প্রকাশ : ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৯

  অনলাইন ডেস্ক

রান্নার ক্ষেত্রে আদা খুবই প্রয়োজনীয় একটি উপাদান। এটি শুধু খাবারের স্বাদই বাড়ায়ে না , ঠাণ্ডা-কাশি সারাতেও এটি দারুন উপকারী।অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট থাকায় শরীরের প্রদাহের বিরুদ্ধেও  লড়াই করার ক্ষমতা রয়েছে আদার। এমনকী চুলের স্বাস্থ্য ও খুশকি দূর করতেও আদা দারুন কার্যকরী। 

আদায় অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল বা অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল উপাদান চামড়া এবং চুলের গোড়ার সংক্রমণের বিরুদ্ধে লড়াই করতে পারে।  আদার রস চুলের গোড়ার স্বাস্থ্য পুনরুদ্ধার করতে পারে এবং খুশকি সমস্যা কমাতেও সাহায্য করে।

খুশকি এবং চুলের গোড়ায় চুলকানির সমস্যা কমাতে আদার মাস্ক যেভাবে বানাবেন-

১. এক টুকরো কাঁচা আদা ছোট ছোট করে কেটে থেঁতলে নিন। 

২. কুচোনো বা থেঁতলানো আদা অল্প পানি দিয়ে কম আঁচে ফুটিয়ে নিন। ধীরে ধীরে পানির রঙ বদলে হালকা ঘোলাটে হলুদ হয়ে উঠলে চুলা বন্ধ করে দিন। 

৩. এখন আদার রস ছাঁকনি দিয়ে ভাল করে ছেঁকে নিন।

৪. ঠাণ্ডা হওয়ার পর আদার পানি একটি ছোট স্প্রে বোতলে ঢেলে রাখতে পারেন। সরাসরি আপনার চুলের গোড়ায় স্প্রে করতে পারেন মিশ্রণটি।

৫. স্প্রে করার পর আধ ঘন্টা পর্যন্ত চুলের গোড়া আদার রসে ভিজতে দিন। তারপর একটি হালকা অ্যান্টি ড্যান্ড্রফ শ্যাম্পু দিয়ে ধুয়ে নিন। সপ্তাহে একবার আদার রস দিয়ে এভাবে চুলের যত্ন নিলে কমে যাবে খুশকির সমস্যা। সূত্র : জি নিউজ

সংশ্লিষ্ট খবর

পরের
খবর

ঘরোয়া পদ্ধতিতে পারফিউম বানানোর উপায়


আরও খবর

রূপচর্চা

  অনলাইন ডেস্ক

অনেকেই বাইরে বের হলে পারফিউম ব্যবহার করতে পছন্দ করেন। বাজারে প্রচুর পারফিউম পাওয়া যায়। কিন্তু আপনার যা পছন্দ, ঠিক সেই গন্ধটি অনেকসময় নাও পাওয়া যেতে পারে।চেষ্টা করলে বাড়িতেই বানাতে পারেন আপনার পছন্দের পারফিউম।

প্রাচীনকালে থেকেই পারফিউমের প্রচলন চলে আসছে। তখন পারফিউম বানাতে রাসায়নিক ব্যবহার করা হতো না। ঘরোয়া পদ্ধতিতেই বানানো হত এটি। 

যদি আপনার গোলাপের গন্ধ পছন্দ হয়, তবে গোলাপ পেস্ট করে তেল বের করুন। এবার দুই টেবিল চামচ জজোবা বা বাদামের তেলের সঙ্গে এক ড্রপ গোলাপের তেল মেশান। বাজারে তৈরি পারফিউমের চেয়ে বাড়িতে তৈরি পারফিউমের স্থায়িত্ব অনেক বেশি হয়। শুধু গোলাপ নয়, চন্দন, কমলা, ল্যাভেন্ডার, ভ্যানিলা, জুঁই, বেল ইত্যাদি দিয়েও তৈরি করতে পারেন পারফিউম। 

যদি কম গন্ধ চান তাহলে এই সব উপাদানের রস তেলে মেশাবেন অল্প করে। গাঢ় গন্ধ চাইলে বেশি করে মেশান। তবে, খেয়াল রাখবেন, আতরের মতো তীব্র গন্ধ যেন না হয়। পারফিউম তীব্র গন্ধের হলে ভাল লাগে না।

বিভিন্ন উপাদান দিয়ে যেভাবে তৈরি করবেন অনন্য পারফিউম :

প্রথমে চার ড্রপ ল্যাভেন্ডার, চার ড্রপ পাতিলেবুর রস, এক থেকে দুই ড্রপ কমলার রস ভাল ভাবে মেশান।

এরপর দুই ড্রপ জুঁই, এক ড্রপ চন্দন মিশিয়ে নিন।

এবার এই মিশ্রণ দু’টিকে একসঙ্গে করে তার সঙ্গে চার চামচ জজোবা বা বাদামের তেল মেশান। এবার একটি বোতলে ভালভাবে ঝাঁকিয়ে নিন। একদিন পর ব্যবহার করুন। মিশ্রণটি আপনার হাতের কবজি, ঘাড়, কানের পিছনে, কনুইয়ে লাগাতে পারেন।  সূত্র : সংবাদ প্রতিদিন 

সংশ্লিষ্ট খবর