বরিশাল

নৌপথে ঈদের বিশেষ সার্ভিস শুরু শনিবার

দক্ষিণাঞ্চলের ২৮ রুটে লঞ্চ চলবে রোটেশন ছাড়া

প্রকাশ : ৩১ মে ২০১৯

নৌপথে ঈদের বিশেষ সার্ভিস শুরু শনিবার

ফাইল ছবি

  বরিশাল ব্যুরো

ঈদে ঘরমুখো মানুষের জন্য নৌপথে বিশেষ সার্ভিস শুরু হচ্ছে শনিবার। বিশেষ এই সার্ভিসে ঢাকা থেকে দক্ষিণাঞ্চলের ২৮ রুটে লঞ্চ চলাচল করবে রোটেশন প্রথা ছাড়া। ঈদের পর কর্মস্থলমুখী যাত্রীদের সুবিধার্থে এক সপ্তাহ বিশেষ সার্ভিস অব্যাহত থাকবে বলে জানিয়েছে লঞ্চ মালিকদের সংগঠন বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ চলাচল (যাত্রী পরিবহন) সংস্থা। 

তবে বরিশালের হিজলা সংলগ্ন মেঘনার মিয়ারচরে এক সপ্তাহ আগে ডুবে যাওয়া একটি কার্গো এখনও উদ্ধার না হওয়ায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন ঢাকা থেকে দূরপাল্লা রুটের যাত্রীবাহী নৌযান মালিকরা।

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ চলাচল সংস্থার ঢাকা-বরিশাল নৌযান রুট কমিটির সদস্য সচিব মো. সিদ্দিকুর রহমান পাটোয়ারী বলেন, শনিবার থেকে ঈদের বিশেষ সার্ভিস শুরু হচ্ছে। ঢাকা-বরিশাল রুটে চলবে ২২টি লঞ্চ। ঈদের আগে ঢাকা প্রান্ত থেকে এবং ঈদের পর বরিশাল প্রান্ত থেকে কমপক্ষে ১৮টি লঞ্চ বিপরীত গন্তব্যের উদ্দেশ্যে ছেড়ে যাবে। অন্য রুটগুলোতে সর্বোচ্চ সংখ্যক লঞ্চ চলাচল করবে।

তিনি বলেন, মেঘনার মিয়ারচরে ডুবে যাওয়া কার্গোটি এখনও উদ্ধার না হওয়ায় ওই চ্যানেলটি ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে। ঢাকা থেকে দক্ষিণাঞ্চল রুটগুলোতে যাতায়াতে সংক্ষিপ্ত পথ হিসেবে মিয়ারচর চ্যানেল ব্যবহূত হয়। ডুবে যাওয়া কার্গোটি উদ্ধারে ব্যর্থ হয়ে বিআইডব্লিউটিএ বিকল্প পথে নৌযান চলাচলের নির্দেশ দিয়েছে। এতে সময় ও জ্বালানি ব্যয় অনেক বেশি হয়।

মধ্যরাতে ভোগান্তি : এদিকে বিশেষ সার্ভিস আজ শুরু হলেও  বৃহস্পতিবার শেষ কর্মদিবস হওয়ায় ওই দিন ঢাকা থেকে ১২টি লঞ্চ যাত্রী নিয়ে বরিশালে এসেছে। তার মধ্যে আটটি ছিল সরাসরি ঢাকা-বরিশাল রুটের এবং চারটি ভায়া লঞ্চ। সরাসরি লঞ্চগুলো ডাবল ট্রিপ দেওয়ার জন্য শুক্রবার ভোর ৪টার দিকে যাত্রীদের বরিশাল নৌবন্দরে নামিয়ে দিয়ে ফের ঢাকায় চলে যায়। মধ্যরাতে যাত্রীদের লঞ্চ থেকে নামিয়ে দেওয়ায় পরিবহন সংকটের কারণে ঘরে ফিরতে ভোগান্তিতে পড়তে হয় তাদের।

যাত্রী নাফিজা বেগম জানান, রাত ৮টায় ঢাকার সদরঘাট থেকে বরিশালের উদ্দেশে লঞ্চ ছাড়ে। ভোর ৪টায় লঞ্চটি বরিশাল পৌঁছার পর সঙ্গে সঙ্গে যাত্রীদের নামিয়ে দেওয়া হয়। সেই সময় রাস্তায় যানবাহন কম থাকায় ভোগান্তিতে পড়েন তিনি।

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআইডব্লিউটিএ) নৌ নিরাপত্তা ও ট্রাফিক শাখার উপপরিচালক আজমল হুদা মিঠু ভোগান্তির কথা স্বীকার করে বলেন, ঢাকা-বরিশাল রুটে চলাচলকারী প্রতিটি লঞ্চ বিশেষ সার্ভিসের জন্য ডাবল ট্রিপ দিচ্ছে। তাই রাতে বরিশাল ঘাটে যাত্রী নামিয়ে ওইদিনই তারা ঢাকা চলে যাচ্ছে। ফলে গভীর রাতে যাত্রীদের কিছুটা দুর্ভোগে পড়তে হয়। যাত্রীসেবার জন্য বিআইডব্লিউটিএর পক্ষ থেকে টার্মিনালের অভ্যন্তরে ও বাইরে বসার ব্যবস্থা করা হয়েছে।

মন্তব্য


অন্যান্য