বরিশাল

অবসরের টাকা উত্তোলনের পর থেকেই ব্যাংক কর্মকর্তা নিখোঁজ

প্রকাশ : ১৪ মে ২০১৯ | আপডেট : ১৪ মে ২০১৯

অবসরের টাকা উত্তোলনের পর থেকেই ব্যাংক কর্মকর্তা নিখোঁজ

নিখোঁজ ব্যাংক কর্মকর্তা ওয়াদুদ মৃধা।

  রাজাপুর (ঝালকাঠি) প্রতিনিধি

ঝালকাঠির রাজাপুরের কৃষি ব্যাংকের সাবেক কর্মকর্তা মো. ওয়াদুদ মৃধা (৬২) অবসর ভাতার ২০ লাখ টাকা উত্তোলনের পর থেকে ১০ দিন ধরে নিখোঁজ রয়েছেন। এ ঘটনায় তার স্ত্রী জেসমিন বেগম ঝালকাঠি সদর থানায় সাধারণ ডায়েরি করেছেন।

তবে নিখোঁজ ওয়াদুদ মৃধার বোনদের অভিযোগ, তাদের ভাইয়ের অবসর ভাতার টাকা ও পৈতৃক সম্পত্তি আত্মসাৎ করার জন্য স্ত্রী জেসমিন বেগম ওয়াদুদকে হত্যা করে লাশ গুম করে রেখেছে। মঙ্গলবার সকালে এক সংবাদ সম্মেলনে এ দাবি করেন তারা।

সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ করা হয়, ২০০৯ সালে স্বজনদের না জানিয়ে কৃষি ব্যাংক কর্মকর্তা ওয়াদুদ মৃধা ঝালকাঠির পালবাড়ি এলাকার বাসিন্দা দুই সন্তানের জননী জেসমিন বেগমকে বিয়ে করেন। এরপর রাজাপুরের বাড়িতে জেসমিনের দুই সন্তানসহ ওয়াদুদ এক বছর বসবাস করেন। এর কিছুদিন পর জেসমিনের আগের স্বামীও তাদের সাথে এসে থাকতে শুরু করেন। বিষয়টি এলাকাবাসীর কাছে অসামাজিক মনে হওয়ায় সবার অজান্তে তারা ঝালকাঠিতে চলে যান। গত বছর ওয়াদুদ মৃধা কৃষি ব্যাংকের হিসাবরক্ষক পদ থেকে ঐচ্ছিক অবসর গ্রহণ করেন। সম্প্রতি তিনি অবসর ভাতার ২০ লাখ টাকা উত্তোলন করেন। এরপর থেকেই ওয়াদুদকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না।

লিখিত বক্তব্যে বোনেরা আরো অভিযোগ করেন, বিবাহিত জীবনের ১০ বছরেও ওয়াদুদ ও জেসমিনের ঘরে কোনো সন্তান নেই। তাই তাদের ভাইয়ের টাকা ও পৈতৃক সম্পত্তি আত্মসাৎ করতেই ওয়াদুদকে হত্যা করে লাশ গুম করে রেখেছে স্ত্রী জেসমিন। এ ছাড়া ওয়াদুদের পৈতৃক সম্পত্তির একটি বড় অংশ বিক্রি করিয়ে ইতিপূর্বে ১০ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন জেসমিন।

অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে জেসমিন বেগম বলেন, 'আমার বিরুদ্ধে করা সব অভিযোগ মিথ্যা। আমার স্বামী নিখোঁজ হওয়ার একদিন পরেই আমি ঝালকাঠি থানায় সাধারণ ডায়েরি করেছি।'

ঝালকাঠি সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শোনিত কুমার গায়েন বলেন, 'থানায় সাধারণ ডায়েরি করার পরপরই নিখোঁজ ব্যক্তির সন্ধানে দেশের সব থানায় বার্তা প্রেরণ করা হয়েছে। তাকে উদ্ধার করতে পুলিশের পক্ষ থেকে সর্বাত্মক চেষ্টা চলছে।'

মন্তব্য


অন্যান্য