বাংলাদেশ

রাঁধুনিকে বলেছি পেঁয়াজ ছাড়া রান্না করতে: প্রধানমন্ত্রী

প্রকাশ : ০৪ অক্টোবর ২০১৯ | আপডেট : ০৪ অক্টোবর ২০১৯

রাঁধুনিকে বলেছি পেঁয়াজ ছাড়া রান্না করতে: প্রধানমন্ত্রী

ভারত-বাংলাদেশ বিজনেস ফোরামের (আইবিবিএফ) উদ্বোধনী অধিবেশনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ছবি: সংগৃহীত

  অনলাইন ডেস্ক

ভারত পূর্ব ঘোষণা ছাড়াই পেঁয়াজ রপ্তানি বন্ধ করায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা রসিকতার সুরে বলেছেন, হঠাৎ করে আপনারা বাংলাদেশে পেঁয়াজ রপ্তানি বন্ধ করে দিয়েছেন। এতে আমরা একটু সমস্যায় পড়েছি। আমি রাঁধুনিকে বলে দিয়েছি পেঁয়াজ ছাড়া রান্না করতে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শুক্রবার নয়াদিল্লিতে আইসিটি মৌর্য হোটেলের কামাল মহল হলে ভারত-বাংলাদেশ বিজনেস ফোরামের (আইবিবিএফ) উদ্বোধনী অধিবেশনে দেওয়া ভাষণে এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, আমি জানি না কেন আপনারা সরবরাহ বন্ধ করেছেন। আগে নোটিশ দিলে আমরা অন্য দেশ থেকে ব্যবস্থা করতে পারতাম। ভবিষ্যতে এমন কিছু করলে আগে জানালে ভালো হয়। খবর বাসসের।

চলতি বছর বন্যার কারণে ভারতের মহারাষ্ট্র ও কর্ণাটকে পেঁয়াজের উৎপাদন কম হয়েছে। ফলে ভারতে পেঁয়াজের পাশাপাশি নিত্যপণ্যের দামও বাড়ছে গত কিছুদিন ধরে। এর পরিপ্রেক্ষিতে পেঁয়াজ রপ্তানি পুরোপুরি বন্ধ করে দিয়েছে ভারত। ভারতের বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের বৈদেশিক বাণিজ্য শাখা রোববার এই নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে।

সরকারি হিসাবে বাংলাদেশে বছরে পেঁয়াজ উৎপাদন হয় ১৭ থেকে ১৯ লাখ মেট্রিক টনের মত। তাতে চাহিদা পূরণ না হওয়ায় আমদানি করতে হয় ৭ থেকে ১১ লাখ মেট্রিক টন, যার বেশিরভাগটাই আমদানি হয় ভারত থেকে।

ভারতের বাজারে পেঁয়াজের দাম বাড়তে থাকায় গত ১৩ সেপ্টেম্বর দেশটির বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের বৈদেশিক বাণিজ্য শাখা প্রতি মেট্রিক টন পেঁয়াজের ন্যূনতম রপ্তানি মূল্য ৮৫০ ডলার নির্ধারণ করে দেয়। আর ওই খবরে বাংলাদেশের বাজারে পেঁয়াজের দাম রাতারাতি বেড়ে যায় ২০ থেকে ২৫ টাকা। পরিস্থিতি স্বাভাবিক করতে ব্যবসায়ীদের নিয়ে কয়েক দফা বৈঠক কর বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। তবে তাতে পেঁয়াজের দাম কমেনি। এ অবস্থায় টিসিবি খোলাবাজারে পেঁয়াজ বিক্রি শুরু করেছে। 


মন্তব্য


অন্যান্য