বাংলাদেশ

৩৭ মিলিয়ন সংখ্যালঘু 'বিলীন হয়েছে' বলে ট্রাম্পের কাছে নালিশ

প্রকাশ : ১৯ জুলাই ২০১৯ | আপডেট : ১৯ জুলাই ২০১৯

৩৭ মিলিয়ন সংখ্যালঘু 'বিলীন হয়েছে' বলে ট্রাম্পের কাছে নালিশ

ট্রাম্পের সঙ্গে হাত মেলাচ্ছেন প্রিয়া। ছবি: ভিডিও থেকে নেওয়া

  অনলাইন ডেস্ক

বাংলাদেশের ৩৭ মিলিয়ন বা তিন কোটি ৭০ লাখ সংখ্যালঘু 'বিলীন হয়েছে' বলে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের কাছে অভিযোগ করেছেন প্রিয়া সাহা নামে এক নারী। ধর্মীয় নীপিড়নের শিকার হওয়া ১৯টি দেশের ২৭ জন ব্যক্তির সঙ্গে ট্রাম্পের সাক্ষাৎকালে তিনি নিজেকে বাংলাদেশি পরিচয় দিয়ে এমন অভিযোগ করেন।

বুধবার যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্টের কার্যালয় হোয়াইট হাউজে ওই সাক্ষাৎকার অনুষ্ঠিত হয়।

অনুষ্ঠানে প্রিয়া সাহা মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে বলেন, 'স্যার, আমি বাংলাদেশ থেকে এসেছি। সেখানে ৩৭ মিলিয়ন হিন্দু, বৌদ্ধ, খ্রিষ্টান বিলীন হয়ে গেছে। দয়া করে আমাদের সাহায্য করুন। আমরা বাংলাদেশেই থাকতে চাই। সেখানে এখনো ১৮ মিলিয়ন সংখ্যালঘু মানুষ রয়েছে। আমার অনুরোধ দয়া করে আমাদের সাহায্য করুন। আমরা আমাদের দেশ ছাড়তে চাই না। শুধু থাকার জন্য সাহায্য করুন।'

তিনি আরো বলেন, 'আমি আমার বাড়ি-ঘর হারিয়েছি, তারা আমার বাড়ি-ঘর জ্বালিয়ে দিয়েছে। তারা আমার জমিজমা দখল করে নিয়েছে। কিন্তু তারা (সরকার) কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ করেনি। এখন পর্যন্ত।'

এ সময় ট্রাম্প ওই নারীকে প্রশ্ন করেন, 'কারা জমি দখল করেছে, করা বাড়ি-ঘর দখল করেছে?'

ট্রাম্পের প্রশ্নের উত্তরে ওই নারী বলেন, 'তারা মুসলিম মৌলবাদী গ্রুপ এবং তারা সব সময় রাজনৈতিক আশ্রয় পায়। সব সময়ই পায়।'

এ খবর সম্প্রচার করে মার্কিন টিভি চ্যানেল এবিসি নেটওয়ার্কের চ্যানেল এবিসি ফোর ইউটাহ। গণমাধ্যমে প্রকাশিত ওই ভিডিও ইতিমধ্যে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়েছে, যা নিয়ে নানা ধরনের মন্তব্য করছেন বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ।

তবে প্রিয়া সাহা কোন সংগঠনের প্রতিনিধি হিসেবে ডোনাল্ড ট্রাম্পের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছেন এবং কীসের ভিত্তিতে এসব অভিযোগ করেছেন সে সম্পর্কে এখনো কিছু জানা যায়নি।

প্রিয়া সাহা বাংলাদেশ হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদের কেন্দ্রীয় কমিটির একজন সাংগঠনিক সম্পাদক। পাশাপাশি তিনি বেসরকারি সংস্থা (এনজিও) 'শারি'-এর নির্বাহী পরিচালক হিসেবেও দায়িত্বরত আছেন। এছাড়া, বাংলাদেশ মহিলা ঐক্য পরিষদেরও একজন সংগঠক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন তিনি।

মন্তব্য


অন্যান্য