বাংলাদেশ

বাংলাদেশের দুই নারী পাইলটকে নিয়ে জাতিসংঘের ভিডিও

প্রকাশ : ১৭ জুন ২০১৯

বাংলাদেশের দুই নারী পাইলটকে নিয়ে জাতিসংঘের ভিডিও

  ইউএনবি

দেশের জন্য গৌরব বয়ে এনেছেন শান্তিরক্ষা মিশনে কর্মরত দুই নারী পাইলট ফ্লাইট লেফটেন্যান্ট নায়মা হক ও তামান্না-ই-লুতফি। তাদের নিয়ে বিশেষ তথ্যচিত্র তৈরি করেছে জাতিসংঘ। কঙ্গোতে হেলিকপ্টারের পাইলট হিসেবে কাজ করছেন তারা।

তামান্না ও নায়মা বাংলাদেশের প্রথম নারী সামরিক পাইলট, যারা কঙ্গোতে জাতিসংঘের শান্তিরক্ষা মিশনে (এমওএনইউএসসিও) কর্মরত রয়েছেন। জাতিসংঘের মতে, এ অঞ্চলে নারী ও কিশোরীদের নানা প্রতিকূল অবস্থা থেকে উত্তরণে তামান্না ও নায়মা হবেন রোল মডেল।

ভিডিওতে পাইলট তামান্নাকে বলতে শোনা যায়, 'নিজেকে একজন নারী হিসেবে পরিচয় দিতে চাই না। আমি একজন শান্তিরক্ষী কর্মী। আমি হেলিকপ্টারের একজন পাইলট মাত্র। কারণ নারী বা পুরুষ- কে ফ্লাইট পরিচালনা করছে, যন্ত্রের কাছে এর কোনো গুরুত্ব নেই।'

ফ্লাইট লেফটেন্যান্ট নায়মা বলেন, 'আমরা স্থানীয় নারীদের কাছে অনুপ্রেরণার উৎস হতে পারি। তারা যখনই আমাদের দেখে, উৎসাহ পায়। স্থানীয় তরুণীরা আমাদের দেখে উৎসাহিত হয়ে ভাবে, তাদেরও শিক্ষিত হতে হবে। অধিকারের জন্য তাদের লড়াই করতে হবে। কোনো কিছু অর্জনের জন্য কঠোর পরিশ্রম করতে হবে।' এ ছাড়া হেলিকপ্টার পাইলট হিসেবে তারা বিভিন্ন ধরনের মিশনে কাজ করতে পারেন জানিয়ে নায়মা তাদের কাজের বর্ণনা দেন।

তামান্না জানান, ২০১৪ সালে প্রথম তারা সামরিক পাইলট হিসেবে মনোনীত হয়েছিলেন। সে সময় তারা এ সুযোগ অর্জনে খুবই গর্ব অনুভব করেছিলেন। কারণ এর আগে নারীদের জন্য এ সুযোগ আসেনি। তামান্না এ প্রসঙ্গে বলেন, 'আমরা খুবই গর্বিত। কারণ, সত্যি নারীরা এগোচ্ছে।' নাইমা ও তামান্না দু'জনই মনে করেন, অন্যকে সহযোগিতা করা মহৎ কাজ।

মন্তব্য


অন্যান্য