বাংলাদেশ

আপিলে প্রার্থিতা ফিরে পেলেন যারা

প্রকাশ : ০৬ ডিসেম্বর ২০১৮ | আপডেট : ০৬ ডিসেম্বর ২০১৮

আপিলে প্রার্থিতা ফিরে পেলেন যারা

  সমকাল প্রতিবেদক

একাদশ সংসদ নির্বাচনে রিটার্নিং কর্মকর্তার যাচাই-বাছাইয়ে বাতিল হওয়া মনোনয়নপত্রের ওপর শুনানি শুরু করেছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। 

প্রধান নির্বাচন কমিশনার কে এম নূরুল হুদার নেতৃত্বে বৃহস্পতিবার সকাল ১০টা থেকে নির্বাচন কমিশনের অস্থায়ী এজলাসে এ শুনানি চলছে।

সকালে চাঁপাইনবাবগঞ্জ-১ আসনের স্বতন্ত্র প্রার্থী নবাব মো. শামছুল হুদার মাধ্যমে শুনানি শুরু হয়। আপিলেও তার মনোনয়নপত্র বাতিল হয়।

এরপর আপিল আবেদনের সিরিয়াল অনুযায়ী একে একে প্রার্থীদের শুনানি গ্রহণ করা হচ্ছে।

বগুড়া-৭ আসনে বিএনপি প্রার্থী মোরশেদ মিল্টন ও পটুয়াখালী-৩ আসনে বিএনপি প্রার্থী গোলাম মওলা রনির মনোনয়নপত্র বৈধ ঘোষণা করা হয়েছে। 

আরও যাদের মনোনয়নপত্র বৈধ ঘোষণা করা হয়েছে- ঢাকা-২০ আসনে বিএনপির মো. তমিজ উদ্দিন, সাতক্ষীরা-২ আসনে জেএসডি মনোনীত প্রার্থী আফসার আলী, কিশোরগঞ্জ-২ আসনে বিএনপি মনোনীত প্রার্থী মেজর (অব.) আখতারুজ্জামান, ঝিনাইদহ-২ আসনে বিএনপি প্রার্থী আব্দুল মজিদ, ঢাকা-১ আসনে বিএনপি প্রার্থী খন্দকার আবু আশফাক, গাজীপুর-২ আসনে জাতীয় পার্টি মনোনীত প্রার্থী জয়নাল আবেদীন, ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৬ আসনে জাতীয় পার্টি মনোনীত প্রার্থী জেসমিন নূর বেবী, রংপুর-৪ আসনে জাতীয় পার্টি মনোনীত প্রার্থী মোস্তফা সেলিম বেঙ্গল।

আরও মনোনয়ন ফিরে পেয়েছেন- মানিকগঞ্জ-২ আসনে বিএনপি মনোনীত প্রার্থী সিংগাইর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আবিদুর রহমান রোমান, গাজীপুর-২ আসনে জাতীয় পার্টি মনোনীত প্রার্থী মো. মাহবুব আলম ও মো. জয়নাল আবেদীন, খুলনা-৬ আসনে বিএনপি মনোনীত প্রার্থী জেলা বিএনপির সভাপতি এস এম শফিকুল আলম মনা, হবিগঞ্জ-১ আসনে ইসলামী ফ্রন্টের জুবায়ের আহমেদ, ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৩ আসনে জাতীয় পার্টি মনোনীত প্রার্থী আবদুল্লাহ আল হেলাল, কুড়িগ্রাম-৪ আসনে স্বতন্ত্র প্রার্থী ইউনুছ আলী, ঢাকা-৫ আসনে বিএনপি মনোনীত প্রার্থী মো. সেলিম ভূঁইয়া, ঝিনাইদহ-৩ আসনে জাতীয় পার্টি মনোনীত প্রার্থী কামরুজ্জামান স্বাধীন, কুমিল্লা-৩ আসনে বিএনপি মনোনীত প্রার্থী কে এম মুজিবুল হক, মানিকগঞ্জ-১ আসনে বিএনপি মনোনীত প্রার্থী মো. তোজাম্মেল হক, সিলেট-৫ আসনে স্বতন্ত্র প্রার্থী জামায়াত নেতা ফয়জুল মুনীর চৌধুরী, ময়মনসিংহ-৩ আসনে বিএনপি মনোনীত প্রার্থী আহাম্মদ তায়েবুর রহমান, ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৩ আসনে ইসলামী আন্দোলনের সৈয়দ আনোয়ার আহম্মদ লিটন, ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৫ আসনে জাতীয় পার্টি মনোনীত প্রার্থী মামুনুর রশিদ, ব্রাহ্মণবাড়িয়া-২ আসনে বিএনপি মনোনীত প্রার্থী আবু আসিফ, ঢাকা-১৪ আসনে জাকের পার্টির জাকির হোসেন, পঞ্চগড়-২ আসনে বিএনপি মনোনীত প্রার্থী ফরহাদ হোসেন ও মানিকগঞ্জ-৩ আসনে বিএনপি মনোনীত প্রার্থী মো. আতাউর রহমান। 

আপিলে যাদের মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছে- ফেনী-১ এর মিজানুর রহমানের মনোনয়নপত্র, কিশোরগঞ্জ-৩ আসনের ড. মিজানুুল হকের মনোনয়নপত্র, ময়মনসিংহ-৪ আসনের আবু সাইদ মহিউদ্দিনের মনোনয়নপত্র, ময়মনসিংহ-২ আসনে মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে মো. এমদাদুল হকের, খুলনা-২ ও নাটোর-১ আসনের এস এম এরশাদুজ্জামান ও শ্রী বীরেন্দ্র নাথ সাহার মনোনয়নপত্র, ঢাকা-১ ও বগুড়া-৩ আসনের মো. আইয়ুব খান ও মো. আব্দুল মুহিতের মনোনয়নপত্র, আশরাফুল হোসেন আলম ওরফে হিরো আলম বগুড়া-৪ আসন, হবিগঞ্জ-২, ঢাকা-১৪, সাতক্ষীরা-১ আসনের এস এম মুজিবুর রহমানের মনোনয়নপত্র।

আপিলের ক্রমিক নম্বর ১ থেকে ১৬০ নম্বর পর্যন্ত আজ বৃহস্পতিবার শুনানি হবে। শুক্রবার ১৬১ থেকে ৩১০ নম্বর পর্যন্ত আপিল শুনানি হবে। শেষ দিন শনিবার বাকি সব আবেদন শোনা হবে। 

শুনানির জন্য নির্দিষ্ট কোনো সময় নেই। যতক্ষণ সময় লাগছে শুনানি ততক্ষণ হচ্ছে। আপিলের সঙ্গে সঙ্গে তাৎক্ষণিক রায়ও দেওয়া হচ্ছে।

সংশ্লিষ্ট খবর


মন্তব্য যোগ করুণ

পরের
খবর

বৈঠকে ইসি


আরও খবর

বাংলাদেশ
বৈঠকে ইসি

প্রকাশ : ১৩ ডিসেম্বর ২০১৮

  সমকাল প্রতিবেদক

আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন উপলক্ষে সশস্ত্র বাহিনীসহ সব বাহিনী ও গোয়েন্দা সংস্থার কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠকে বসেছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)।

বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে রাজধানীর আগারগাঁওয়ে নির্বাচন ভবনের অডিটরিয়ামে এ বৈঠকে শুরু হয়।

এতে প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কেএম নূরুল হুদার সভাপতিত্বে অন্য চার নির্বাচন কমিশনার, ইসি সচিবসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত রয়েছেন।

তফসিল অনুযায়ী, আগামী ৩০ ডিসেম্বর একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। নির্বাচন সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করতে বাহিনী সদস্যদের মোতায়েন সম্পর্কিতসহ নানা বিষয়ে সিদ্ধান্ত হবে বৃহস্পতিবারের এ বৈঠকে।

এদিকে এরই মধ্যে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে আগামী ২৪ থেকে ২৬ ডিসেম্বরের মধ্যে সেনাবাহিনী মোতায়েনের কথা জানিয়েছে ইসি। 


সংশ্লিষ্ট খবর

পরের
খবর

হারাচ্ছে জমি, অস্তিত্ব সংকটে সমতলের আদিবাসীরা


আরও খবর

বাংলাদেশ
হারাচ্ছে জমি, অস্তিত্ব সংকটে সমতলের আদিবাসীরা

ভূমি কমিশন গঠনের দাবি

প্রকাশ : ১৩ ডিসেম্বর ২০১৮ | প্রিন্ট সংস্করণ

  হাসনাইন ইমতিয়াজ

'জমি চাই মুক্তি চাই' স্লোগানে ১৮৫৫ সালে সাঁওতাল নেতা সিধু, কানু, ভৈরব ও চাঁদ- চার ভাই ইংরেজ শাসকদের বিরুদ্ধে দুর্বার আন্দোলন গড়ে তুলেছিলেন। ইতিহাসে তা 'সাঁওতাল বিদ্রোহ' নামে পরিচিত। ওই আন্দোলনে আত্মোৎসর্গ করে গেছেন তারাসহ বহু মানুষ। আত্মদানে মহীয়ান ওই বিদ্রোহের ১৬৩ বছর পরও সেই ভূমির জন্যই স্বাধীন বাংলাদেশে আজও জীবন দিতে হচ্ছে সমতলের আদিবাসীদের। পাকিস্তান আমলে ১৯৬৪ সালে পিতা ফাগু সরেন এবং ২০১১ সালে বড় ভাই গোসাই সরেনকে হারিয়েছেন দিনাজপুরের আদিবাসী কৃষক টুডু সরেন। ২০১৪ সালে নিজেও খুন হন। তার স্ত্রীর ওপর হামলা হয়েছে, কিন্তু ভূমি রক্ষা হয়নি। ভূমিদস্যুরা জাল দলিলের মাধ্যমে টুডু সরেনের ৩৩ একর জমি দখল করে নিয়েছে। নিজেদের বসতভিটা সরকারের অধিগ্রহণের প্রতিবাদে জীবন দিয়েছেন টাঙ্গাইলের মধুপুর গড়ের পিরেন স্ন্যাল। জমি ফিরে পাওয়ার আন্দোলনে ২০১৬ সলে গাইবান্ধায় পুলিশের গুলিতে জীবন হারিয়েছেন তিন সাঁওতাল। এভাবে প্রায়ই মামলা-হামলা, অত্যাচার-নির্যাতনে ভূমিহীন হচ্ছেন সমতলের আদিবাসীরা, যেসব জমিতে শত শত বছর ধরে তারা বাস করেছেন।

ভূমি হারিয়ে অস্তিত্ব সংকটে পড়েছে আদিবাসীরা। কারণ এই ভূমিকে কেন্দ্র করেই গড়ে উঠেছে তাদের জীবন ও সংস্কৃতি। জমির সঙ্গে সঙ্গে কমছে আদিবাসীদের সংখ্যাও। পরিসংখ্যানে দেখা গেছে, উত্তরাঞ্চলের সাঁওতাল, দক্ষিণাঞ্চলের রাখাইন, মধ্যাঞ্চলের গারোদের মতো সমতলের ক্ষুদ্র জাতিগোষ্ঠীর দখলি জমি যেমন কমছে, তেমনি কমছে তাদের জনসংখ্যা। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, আদিবাসীদের জীবনবৈচিত্র্য টিকিয়ে রাখতে হলে তাদের ভূমির অধিকার ফিরিয়ে দিতে হবে। এ জন্য পৃথক ভূমি কমিশন গঠনের দাবি জানিয়েছেন তারা।

ভূমিহীন হচ্ছে আদিবাসীরা :দেশের আদিবাসীদের সংখ্যা নিয়ে নিখুঁত কোনো পরিসংখ্যান নেই। ২০১১ সালের আদমশুমারি অনুসারে দেশে প্রায় ১৬ লাখ আদিবাসী রয়েছে। তবে আদিবাসী সংগঠনগুলোর দাবি, দেশে ৫৪টির বেশি জাতিসত্তার ৩০ লাখ আদিবাসী রয়েছে। এর মধ্যে দেশের উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলে দুই-তৃতীয়াংশের বসবাস। জাতীয় আদিবাসী পরিষদের তথ্যমতে, রাজশাহী ও রংপুর বিভাগের ১৬ জেলায় ৩৮টি জাতিসত্তার ২০ লাখ আদিবাসী বসবাস করে। এদের মধ্যে রয়েছে সাঁওতাল, মুন্ডা, ওঁরাও, রাজোয়াড়, তুরি, কর্মকার, মালো, মাহাতো, চাঁই, বাইছনী, লহরা, হাঁড়ি, ঘাটোয়াল, দোষাদ, চাঁড়াল, ডহরা, ভূমিজ, মালপাহাড়িয়া, গন্ড, পাটনি,

বাগদি, মাহালী, মুসহর, ভুঁইমালি, কোচ, তেলী, গোড়াত, বেতিয়া, নুনিয়াহাড়ি, রাজবংশী, পাহাড়িয়া, ভূঁঁইয়া, রবিদাস, রাই, বেদিয়া ইত্যাদি ক্ষুদ্র নৃতাত্ত্বিক গোষ্ঠী। পটুয়াখালী ও বরগুনা জেলার উপকূলবর্তী এলাকায় রাখাইনদের বসবাস। টাঙ্গাইলের মধুপুর জঙ্গল ঘিরে গড়ে উঠেছে গারো ও কোচ আদিবাসীদের গ্রাম। এই আদিবাসীরা প্রধানত কৃষি ও ভূমির ওপর নির্ভরশীল। জাতীয় আদিবাসী পরিষদের দাবি, এক সময় যথেষ্ট জমি থাকলেও বর্তমানে তাদের ৮৫ শতাংশই ভূমিহীন। 'আদিবাসী মানুষের ভূমি অধিকার-উন্নয়ন-মানবাধিকার' শীর্ষক এক গবেষণাপত্রে অর্থনীতিবিদ আবুল বারকাত বলেছেন, সমতলের সাঁওতালদের ৭২ শতাংশ, পাত্র ও পাহান খানাদের ৯০ শতাংশ এবং গারো, হাজং, ডালু ও রাখাইনদের ৬৬ শতাংশের বেশি লোক বর্তমানে ভূমিহীন।

আবুল বারকাত তার আরেক গবেষণায় দেখিয়েছেন, সমতলের ১০ আদিবাসী জনগোষ্ঠী গত কয়েক দশকে ছয় থেকে সাড়ে ছয় লাখ বিঘা জমি হারিয়েছে। ২০১৪ সালের হিসাব অনুযায়ী যার বাজারমূল্য ১০ হাজার কোটি টাকার বেশি। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে সাঁওতালরা। গত তিন প্রজন্মে তাদের তিন লাখ বিঘা জমি বেহাত হয়েছে, যার বাজারমূল্য পাঁচ হাজার কোটি টাকা।

যেভাবে ভূমি হারাচ্ছে আদিবাসী :পেছনে ফিরলে দেখা যায়, ১৯৪৭ সালে ভারত ভাগের পর থেকে অন্যান্য সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের মতো আদিবাসী জনগণও নিজেদের জমি হারিয়েছে। ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধের পর আরেক দফা বাস্তুচ্যুত হয় ক্ষুদ্র জাতিসত্তার লোকেরা। প্রভাবশালীদের ষড়যন্ত্র, মামলা-হামলার পাশাপাশি নিজেদের শিক্ষার অভাব, অজ্ঞতা, অসচেতনতা ও দারিদ্র্যের কারণে ভূমিহীন হচ্ছে আদিবাসী। অনেক ক্ষেত্রে বন্ধকি জমি বিক্রি করতে বাধ্য হয় তারা। স্থানীয় প্রভাবশালীরা জাল দলিল করে, মামালা-হামলার মাধ্যমে ভয়ভীতি দেখিয়ে এবং ভূমি অফিসের এক শ্রেণির অসাধু কর্মকর্তা-কর্মচারীর সহযোগিতায় এসব জমি দখল করা হচ্ছে।

টাঙ্গাইলের সখিপুর উপজেলার ট্রাইবাল অ্যাসোসিয়েশনের চেয়ারম্যান রবীন্দ্র বর্মণ বলেন, শিক্ষার অভাবে আদিবাসীদের জমি বেহাত হচ্ছে। তিনি তার এক আত্মীয়ের উদাহরণ দিয়ে বলেন, সে বিক্রি করেছিল পাঁচ শতাংশ জমি। ক্রেতা ৫-এর পর আরেকটি ৫ বসিয়ে ৫৫ শতাংশ জমি হাতিয়ে নিয়েছে।

অর্থনীতিবিদ আবুল বারকাত তার এক গ্রন্থে দেখিয়েছেন, ১৬টি কারণে আদিবাসীরা ভূমিহীন হচ্ছে। গবেষণায় দেখা গেছে- নিরক্ষতা, জমির দলিল না থাকা, আইনের সঠিক প্রয়োগের অভাব, প্রভাবশালী রাজনৈতিক, ধর্মীয় ও সাম্প্রদায়িক শক্তির অত্যাচারসহ নানা কারণে আদিবাসী গোষ্ঠীর লোকজন বাস্তুচ্যুত হচ্ছে।

অনুসন্ধানে জানা যায়, সংরক্ষিত বন গড়ে তুলতে বন ও পরিবেশ মন্ত্রণালয় মধুপুর বনের ৯ হাজার ১৪৫ একর জমি সংরক্ষণের জন্য ২০১৬ সালে গেজেট প্রকাশ করায় গেজেটের আওতাভুক্ত ১৩ গ্রামের গারো ও কোচ নৃগোষ্ঠীর এক হাজার ৮৩ পরিবারের ছয় হাজার অধিবাসী এখন উচ্ছেদ আতঙ্কে দিন কাটাচ্ছে।

মধুপুরের জয়েনশাহী আদিবাসী উন্নয়ন পরিষদের সভাপতি ইউজিন নকরেক বলেন, সংরক্ষিত বন ঘোষণার প্রতিবাদ করায় ২০১৬ সালে ইউজিন নকরেকসহ ২০০ জনের বিরুদ্ধে মামলা হয়।

পটুয়াখালীর পাহাম হালিবাট বুড্ডিস্ট ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি উথা চিং বলেন, ভুয়া দলিল ও মামলার মাধ্যমে হয়রানি করে রাখাইনদের ভূমি কেড়ে নেওয়া হচ্ছে। জানতে চাইলে আদিবাসী পরিষদের সভাপতি রবীন্দ্রনাথ সরেন বলেন, মিথ্যা মামলাসহ নারীদের শ্নীলতাহানি, ধর্ষণ, লোকজনকে হত্যার মাধ্যমে ভয়ভীতি দেখিয়ে জমি দখল করা হয়। এ নিয়ে সুবিচার পান না বলে তিনি অভিযোগ করেন। ২০০১ সালে নওগাঁর মহাদেবপুরে আদিবাসী নেতা আলফ্রেড সরেনকে হত্যার পর দেড় যুগেও তার বিচার হয়নি।

অস্তিত্ব সংকটে আদিবাসীরা :গবেষকদের মতে, ১৯ শতকের গোড়ার দিকে পটুয়াখালী ও বরগুনার উপকূলীয় এলাকায় ৫০ সহস্রাধিক রাখাইন জনগোষ্ঠীর বসবাস ছিল। ৭০ দশকেও তাদের জনসংখ্যা ছিল ৪০ সহস্রাধিক। বেসরকারি সংস্থা কারিতাসের ২০১৪ সালে পরিচালিত জরিপমতে, উপকূলীয় অঞ্চলে আড়াই হাজার রাখাইন রয়েছে। স্থানীয়দের তথ্যমতে, পটুয়াখালী ও বরগুনা অঞ্চলে এক সময় ২৪২টি রাখাইন গ্রাম ছিল। এর মধ্যে ১৯৫টিতে এখন রাখাইন বসতি নেই। এভাবে গত ২০০ বছরে ৮০ ভাগ রাখাইন গ্রাম তাদের হাতছাড়া হয়েছে। জনসংখ্যা কমেছে প্রায় ৯০ শতাংশ। শুধু রাখাইন নয়; সাঁওতাল, ওঁরাও, গারো, মাহাতো, মাহালি, রাজবংশীসহ বিভিন্ন ক্ষুদ্র আদিবাসী গোষ্ঠী অস্তিত্ব সংকটে ভুগছে। ধীরে ধীরে তাদের ভাষা ও সংস্কৃতিও বিপন্ন হয়ে পড়েছে।

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক একেএম শাহনাওয়াজ বলেন, সাঁওতালরাই এদেশের আসল ভূমিপুত্র। সাঁওতালরা হাজার বছর ধরে তীর-ধনুক দিয়ে আর্যদের ঠেকিয়েছে। ইংরেজদের বিরুদ্ধে লড়েছে। তীর-ধনুক নিয়েই মুক্তিযুদ্ধে অংশ নিয়েছে। কিন্তু তারাই এখন নিজভূমে সংখ্যালঘু।

এ বিষয়ে অ্যাসোসিয়েশন ফর ল্যান্ড রিফর্ম অ্যান্ড ডেভেলপমেন্টের (এলআরডি) নির্বাহী পরিচালক শামসুল হুদা বলেন, পূর্বপুরুষের ভূমির সঙ্গে শুধু জীবিকাই নয়, জড়িয়ে আছে আবেগ, ধর্ম, সংস্কৃৃতি। এখান থেকে বিতাড়িত হওয়া মানে শিকড় কেটে যাওয়া। আদিবাসীদের কাছে ভূমি হলো তাদের অস্তিত্বের বিষয়।

আইনগত সমাধান ও ভূমি কমিশন গঠন :পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে সংখ্যালঘু সম্প্রদায় ও আদিবাসীদের রক্ষায় আইন বা বিধিবিধান যুগোপযোগী করে পূর্বপুরুষদের প্রথাগত ভূমির ওপর তাদের অধিকার প্রতিষ্ঠিত করা হয়েছে। প্রতিবেশী দেশ ভারত, অস্ট্রেলিয়া ও কানাডায় তাদের জন্য বিশেষ আইন করা হয়েছে। মালয়েশিয়ার হাইকোর্ট রায় দিয়েছেন- জাতিগত সংখ্যালঘু জনগোষ্ঠীর বসবাসরত ভূমির ওপর তাদের আইনি অধিকার আছে। কেনিয়ার ওজিয়েক ও বতসোয়ানার বাসারওয়া সান জনগোষ্ঠীকে তাদের ঐতিহ্যগত ভূমি থেকে সরিয়ে সংরক্ষিত পার্ক প্রতিষ্ঠা আদালতের মাধ্যমে বেআইন ঘোষিত হয়েছে। আন্তর্জাতিক পর্যায়ে এমন আরও অনেক উদাহরণ রয়েছে।

এ বিষয়ে ব্যারিস্টার জ্যোতির্ময় বড়ূয়া বলেন, আদিবাসী ও ক্ষুদ্র জাতিগোষ্ঠীর ভূমি অধিকার রক্ষায় আইন রয়েছে। এর যথাযথ প্রয়োগ হলে আদিবাসীদের ভূমি বেহাত হওয়া অনেকাংশেই থামানো যাবে।

এ বিষয়ে আদিবাসীবিষয়ক সংসদীয় ককাসের সমন্বয়ক ও বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক ফজলে হোসেন বাদশা বলেন, সমতলের আদিবাসীদের ভূমির অধিকার রক্ষার জন্য পৃথক ভূমি কমিশন গঠন করতে হবে।

পরের
খবর

জমছে ভোটের প্রচার বাড়ছে সহিংসতা


আরও খবর

বাংলাদেশ
জমছে ভোটের প্রচার বাড়ছে সহিংসতা

নেত্রকোনায় আওয়ামী লীগের মিছিলে পেট্রোল বোমা হামলা, গুলি - চট্টগ্রামে বিএনপি নেতা আমীর খসরুর গণসংযোগে হামলা - নোয়াখালীতে খোকনের গাড়ি ভাংচুর - সিরাজগঞ্জে আ'লীগ নেতার বাড়িতে গুলিবর্ষণ

প্রকাশ : ১৩ ডিসেম্বর ২০১৮ | প্রিন্ট সংস্করণ

  সমকাল ডেস্ক

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন সামনে রেখে একদিকে যেমন প্রচার জমে উঠেছে, অন্যদিকে চলছে সহিংসতাও। গতকাল বুধবার রাজধানীর সদরঘাটে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান ও ভোলা-৩ আসনের প্রার্থী মেজর (অব.) হাফিজ উদ্দিন আহমেদের ওপর হামলার ঘটনা ঘটেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। নেত্রকোনার আটপাড়ায় আওয়ামী লীগের মিছিলে পেট্রোল বোমা হামলায় ৭ জন আহত হয়েছেন। এ ঘটনার প্রতিবাদে জেলার কেন্দুয়ায় মিছিল বের হলে তাতে বিএনপি প্রার্থী গুলি ছুড়েছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। সিরাজগঞ্জে আওয়ামী লীগ নেতার বাড়িতে ককটেল বিস্ম্ফোরণ ও গুলি বর্ষণের ঘটনা ঘটেছে। চট্টগ্রামে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরীর গণসংযোগে হামলার ঘটনা ঘটেছে। নোয়াখালীর সোনাইমুড়ীতে বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব মাহবুব উদ্দিন খোকনের গাড়ি ভাংচুর করা হয়েছে। পটুয়াখালীর রাঙ্গাবালীতে মহাজোট-ঐক্যফ্রন্ট সংঘর্ষে দু'পক্ষের অন্তত ৪০ জন আহত হয়েছেন। এ ঘটনায় উপজেলা বিএনপি সভাপতি, সম্পাদকসহ ৭০ জনের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। পোস্টার লাগানোকে কেন্দ্র করে নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে আওয়ামী লীগ ও বিএনপি নেতাকর্মীদের সংঘর্ষে আহত হয়েছেন ১৭ জন। এ ছাড়া খুলনায় প্রতিপক্ষের হামলায় ইসলামী আন্দোলনের প্রার্থীসহ ৫ জন আহত হয়েছেন। এগুলোসহ বিভিন্ন স্থানে হামলা-সংঘর্ষ ও পুলিশের লাঠিপেটায় আহত হয়েছেন শতাধিক। সমকাল প্রতিবেদক, ব্যুরো, অফিস, নিজস্ব প্রতিবেদক, প্রতিনিধি ও সংবাদদাতাদের পাঠানো খবর :

ঢাকা :বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান ও ভোলা-৩ আসনের প্রার্থী মেজর (অব.) হাফিজ উদ্দিন আহমেদ, বীরবিক্রম লঞ্চযোগে নিজ এলাকায় যাওয়ার পথে পুরান ঢাকার সদরঘাটে হামলার শিকার হয়েছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ সময় ৮-১০ জনের মতো নেতাকর্মী আহত হন। পরে বাধ্য হয়ে মেজর হাফিজসহ অন্যরা সদরঘাট থেকে ফেরত আসেন। হামলার শিকার ছাত্রদল নেতা মামুন আহমেদ বলেন, নির্বাচনী প্রচারণার জন্য নিজ এলাকায় যাওয়ার জন্য নেতাকর্মীসহ মেজর হাফিজ তাসরিফ-৪ লঞ্চে ওঠেন। এ সময় স্থানীয় ছাত্রলীগ ও যুবলীগের নেতাকর্মীরা তাদের ওপর হামলা এবং লঞ্চ ভাংচুর করে। এ বিষয়ে সদরঘাট নৌ পুলিশের ওসি আবদুর রাজ্জাক জানান, লঞ্চযোগে ছাত্রশিবিরের নেতাকর্মীরা ভোলা যাচ্ছেন এমন সন্দেহে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা এ এলাকায় মিছিল করেছেন। তবে কোনো ভাংচুর হয়েছে কি-না তা তিনি জানেন না।

নেত্রকোনা :বুধবার সন্ধ্যায় আটপাড়ার ব্রজের বাজার ব্রিজে আওয়ামী লীগের মিছিলে দুর্বৃত্তরা পেট্রোল বোমা হামলা চালিয়েছে। এতে উপজেলা যুবলীগের সভাপতি নিজাম ইয়ার খান, ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সুফল খান, ছাত্রলীগ নেতা শিবলী, মোহন, তুহিন, হৃদয় ও লিমন আহত হন। তাদের আটপাড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি হাজী মো. খায়রুল ইসলাম ও সাধারণ সম্পাদক ফেরদৌস রানা আনজু এ ঘটনায় বিএনপি ও জামায়াত কর্মীদের দায়ী করেছেন।

আওয়ামী লীগের প্রার্থী অসীম কুমার উকিলের স্ত্রী যুবমহিলা লীগের সাধারণ সম্পাদক ও আটপাড়া উপজেলা নির্বাচন পরিচালনা কমিটির আহ্বায়ক অধ্যাপক অপু উকিল সংবাদ পেয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে আহতদের দেখতে যান এবং দোষীদের শাস্তি দাবি করেন।

আটপাড়া উপজেলা বিএনপির সভাপতি খাইরুল কবির তালুকদার বলেন, ইটাখলা বাজারে আমাদের নির্বাচনী প্রস্তুতি সভা চলছিল। এ সময় ছাত্রলীগ ও যুবলীগের কর্র্মীরা আমাদের অফিসে হামলা চালিয়ে ভাংচুর করে। তারা নিজেরা পেট্রোল বোমা বিস্ম্ফোরণ ঘটিয়ে আমাদের নেতাকর্মীদের ওপর দোষ চাপাচ্ছে।

আটপাড়া থানার ওসি অভিরঞ্জন দেব জানান, বিএনপি-জামায়াত কর্মীরা পেট্রোল বোমার বিস্ম্ফোরণ ঘটিয়েছে। এতে বেশ কয়েকজন আহত হয়েছেন।

কেন্দুয়া (নেত্রকোনা) :কেন্দুয়ায় যুবলীগ ও ছাত্রলীগের প্রতিবাদ মিছিলে বিএনপি প্রার্থী রফিকুল ইসলাম হিলালী গুলিবর্ষণ করেছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। গতকাল সন্ধ্যার এ ঘটনায় ৬-৭ নেতাকর্মী আহত হন। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, আটপাড়ায় আওয়ামী লীগের মিছিলে হামলার খবর পেয়ে প্রতিবাদ মিছিল বের করা হয়।

মিছিলটি বিএনপির দলীয় কার্যালয়ের সামনের রাস্তা দিয়ে যাওয়ার সময় বিএনপি কার্যালয় থেকে ইট-পাটকেল ছুড়তে থাকে। পরে মিছিলকারীরা বিএনপি কার্যালয়ের দিকে ধাওয়া করলে রফিকুল ইসলাম হিলালী তার বাসার ছাদের ওপর থেকে যুবলীগ ও ছাত্রলীগের মিছিলে কয়েক রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছোড়ে। এতে পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি কামরুল হাসান ভূঞাসহ ১০-১২ জন আহত হন।

এ ব্যাপারে রফিকুল ইসলাম হিলালীর মোবাইল ফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করেও মোবাইল ফোনটি বন্ধ থাকায় তার বক্তব্য পাওয়া যায়নি। তবে পৌর বিএনপি সভাপতি জয়নাল আবেদীন ভূঞা ফোনে বলেন, মিছিলকারীরা বিএনপি দলীয় কার্যালয়ের ভেতর একটি গাড়িও ভাংচুর করতে থাকে ও বাসভবনের ভেতর ঢোকার চেষ্টা করে। এ সময় হিলালী আত্মরক্ষার্থে বাসার ভেতর থেকে কয়েক রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছোড়েন।

সিরাজগঞ্জ :মঙ্গলবার গভীর রাতে সদর উপজেলার শিয়ালকোল ইউনিয়নের ধুকুরিয়া গ্রামে ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি জগদীশ চন্দ্র সাহার বাড়িতে দুর্বৃত্তরা ককটেল বিস্ম্ফোরণ ও গুলি বর্ষণ করে।

স্থানীয় ইউপি সদস্য আতাউর রহমান রতন জানান, মঙ্গলবার গভীর রাতে মোটরসাইকেলে ১০-১২ সন্ত্রাসী জগদীশের বাড়ির পেছনে তিনটি ককটেল বিস্ম্ফোরণ ঘটায় এবং দুই রাউন্ড গুলি বর্ষণ করে। বিস্ম্ফোরণের শব্দে স্থানীয়রা এগিয়ে এলে সন্ত্রাসীরা পালিয়ে যায়। সদর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) রফিকুল ইসলাম জানান, ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে ককটেলের আলামত উদ্ধার করেছে পুলিশ।

সদর থানার ইন্সপেক্টর (অপারেশন) নুরুল ইসলাম বলেন, স্থানীয়রা গুলি ছোড়ার কথা বললেও ঘটনাস্থল থেকে কোনো গুলির খোসা খুঁজে পাওয়া যায়নি। শিয়ালকোল ইউনিয়নের দায়িত্বপ্রাপ্ত সদর থানা পুলিশের ট্যাগ অফিসার উপপরিদর্শক আবু জাফর বুধবার দুপুরে জানান, ঘটনার বিষয়ে আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে মামলার প্রক্রিয়া চলছে। এ বিষয়ে মামলা হলে তদন্তসাপেক্ষে দোষীদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

চট্টগ্রাম :বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরীর গণসংযোগে হামলার ঘটনা ঘটেছে চট্টগ্রামে। গতকাল দুপুর দেড়টার দিকে নগরীর সদরঘাট থানার পূর্ব মাদারবাড়ির মাঝিরঘাট রোড এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। হামলার জন্য ছাত্রলীগকে দায়ী করেছে বিএনপি। চট্টগ্রাম-১১ (বন্দর-পতেঙ্গা) আসনে নির্বাচনে অংশ নিচ্ছেন এ বিএনপি নেতা। আহতদের মধ্যে রয়েছেন শিশির, রনি, রানা ও টিটু। এর মধ্যে টিটু স্থানীয় স্বেচ্ছাসেবক দল এবং অন্য তিনজন ছাত্রদলের নেতাকর্মী। প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে তাদের। সদরঘাট থানার ওসি নেজাম উদ্দিন বলেন, এ ব্যাপারে কেউ অভিযোগও করেনি। তবে বিএনপি নেতা আমীর খসরু জানিয়েছেন, মাদারবাড়ি এলাকায় প্রচার চালাতে যাওয়ার আগেই বিষয়টি আমি নিজেই সদরঘাট থানার ওসিকে জানিয়েছিলাম। ওসি বিষয়টা জানেন না, এটা ঠিক নয়।

নোয়াখালী :গতকাল সন্ধ্যায় নোয়াখালীর সোনাইমুড়ী উপজেলার জয়াগ বাজারে বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব মাহাবুব উদ্দিন খোকনের গাড়ি ভাংচুরের ঘটনা ঘটেছে। এ হামলার জন্য আওয়ামী লীগ কর্মীদের দায়ী করেছে বিএনপি। বিএনপি নেতাকর্মীরা প্রধানমন্ত্রীকে কটাক্ষ করে স্লোগান দিলে উপস্থিত আশপাশে থাকা আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীরা এর প্রতিবাদ জানায়। এ নিয়ে দু'পক্ষের মধ্যে বাকবিতণ্ডা ও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

খুলনা :গতকাল বিকেলে খুলনা-৩ আসনে ইসলামী আন্দোলনের প্রার্থী মুজ্জাম্মিল হক প্লাটিনাম জুট মিল শ্রমিক কলোনিতে গণসংযোগকালে প্রতিপক্ষের হামলার শিকার হয়ে আহত হয়েছেন। এ সময় আহত অন্য ৪ জন হলেন প্রার্থীর ছেলে ও ইসলামী যুব আন্দোলনের খুলনা মহানগরের যুগ্ম সম্পাদক তানভীর, ইসলামী আন্দোলন নেতা হাসিব, আশিকুর রহমান ও রফিকুল হাসান। আহতদের খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। ইসলামী আন্দোলনের অভিযোগ, হামলাকারীরা ছাত্রলীগের নেতাকর্মী। এ ব্যাপারে মহানগর ছাত্রলীগের সভাপতি শেখ শাহজালাল হোসেন সুজনকে ফোন করা হলেও তিনি রিসিভ করেননি।

পটুয়াখালী :মঙ্গলবার বিকেলে জেলার রাঙ্গাবালীতে পটুয়াখালী-৪ (কলাপাড়া-রাঙ্গাবালী) আসনে মহাজোট মনোনীত আওয়ামী লীগ প্রার্থী মো. মহিব্বুর রহমান মুহিব (নৌকা) এবং জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট মনোনীত বিএনপির প্রার্থী এবিএম মোশাররফ হোসেন (ধানের শীষ) সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ হয়েছে। প্রায় আড়াই ঘণ্টাব্যাপী এ সংঘর্ষে উভয়পক্ষের অন্তত ৪০ জন আহত হন। এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকায় বিএনপির ২০ জনকে আটক করে পুলিশ।

এদিকে জেলার রাঙ্গাবালী উপজেলা বিএনপির সভাপতি মো. কবির হোসেন তালুকদার ও সাধারণ সম্পাদক আবদুর রহমান ফরাজীসহ দলের ৪৫ নেতাকর্মীর নামে ও অজ্ঞাতনামা আরও ৭০ জনকে আসামি করে বিশেষ ক্ষমতা ও বিস্ম্ফোরক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে একটি মামলা করা হয়েছে।।

রূপগঞ্জ (নারায়ণগঞ্জ) :নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে আওয়ামী লীগ মনোনীত ও বিএনপি মনোনীত প্রার্থীর পোস্টার লাগানোকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষে উভয়পক্ষের অন্তত ১৭ জন আহত হয়েছেন। প্রত্যক্ষদর্শী ও স্থানীয়রা জানান, বুধবার দুপুর ১টার দিকে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী গোলাম দস্তগীর গাজী (বীরপ্রতীক) ও বিএনপি মনোনীত প্রার্থী কাজী মনিরুজ্জামান মনিরের কর্মীরা রূপগঞ্জ সদর ইউনিয়নের কাজী আব্দুল হামিদ উচ্চ বিদ্যালয়ের পাশে রাস্তায় আলাদা আলাদাভাবে পোস্টার লাগাতে থাকেন। এ সময় আওয়ামী লীগ কর্মী রাসেল ও বিএনপি কর্মী আবু মাসুমের সঙ্গে বাকবিতণ্ডার এক পর্যায়ে উভয়পক্ষ ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া ও সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে।

নাটোর :সিংড়া উপজেলার শেরকোল ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক আরিফুল ইসলামের নেতৃত্বে বিএনপি নেতাকর্মীদের হাতুড়িপেটা ও বেধড়ক মারধরের অভিযোগ করা হয়েছে। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় উপজেলার শেরকোল ও পুঠিমারী বাজারে পৃথকভাবে এ হামলার ঘটনা ঘটে। এ ছাড়াও খরমকুড়ি, শাহাবাজপুর ও চামারী ইউনিয়নের বাহাদুরপুর গ্রামে ধানের শীষ প্রতীকের প্রচারণা মাইক ভাংচুর করে আওয়ামী লীগ কর্মীরা। এ বিষয়ে বুধবার সকালে সিংড়া সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা বরাবর পৃথক ৬টি লিখিত অভিযোগ করেছেন উপজেলা বিএনপি সভাপতি মজিবুর রহমান মন্টু। যুবলীগ নেতা আরিফুল ইসলাম এসব অভিযোগকে মিথ্যাচার ও ভিত্তিহীন দাবি করেন।

তাড়াশ (সিরাজগঞ্জ) : সিরাজগঞ্জ-৩ তাড়াশ আসনে বিএনপির প্রার্থী আব্দুল মান্নান তালুকদারের নির্বাচনী পথসভায় দুর্বৃত্তরা হামলা চালিয়ে পথসভা পন্ড করে দিয়েছে। গতকাল বিকেলে উপজেলার বারুহাঁস ইউনিয়নের বিনোদপুর খেলার মাঠে এ ঘটনায় ৭-৮ নেতাকর্মী আহত হন। এ সময় দুটি মাইক্রোবাস ভাংচুরের ঘটনা ঘটে।

কুমিল্লা :গণসংযোগে দলের নেতাকর্মীদের ওপর হামলা-মামলা, মারধর এবং হয়রানির অভিযোগ তুলে সংবাদ সম্মেলন করেছেন কুমিল্লা-৬ সদর আসনের বিএনপি প্রার্থী আমিন-উর রশিদ ইয়াছিন। বুধবার দুপুরে বিএনপি প্রার্থী তার বাসায় সংবাদ সম্মেলন ডেকে এ অভিযোগ করেন। তিনি বলেন, বুধবার সকালে কুমিল্লার আদালতে হাজিরা দিতে যাওয়ার সময় প্রবেশ গেটে কুমিল্লা সদর দক্ষিণ উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মাহবুব চৌধুরীর ওপর হামলা করেছে আওয়ামী লীগ ও ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। কুমিল্লা সিটি করপোরেশনের ২নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মো. মাসুদুর রহমান মাসুদের নেতৃত্বে ১৫-১৬ জন যুবক মাহবুব চৌধুরীকে অপহরণের চেষ্টা করে, বাধা দিলে তাকে ও তার স্ত্রীকে মারধর করে। স্থানীয়রা এগিয়ে এলে অপহরণে ব্যর্থ হয়ে মাহবুব চৌধুরী ও তার স্ত্রী নাসরিন খানমকে আহত করে নগদ ৮০ হাজার টাকাসহ মোবাইল ফোন নিয়ে যায়। আহত মাহবুব চৌধুরী বর্তমানে কুমিল্লা মেডিকেল সেন্টারে চিকিৎসাধীন।

অভিযোগ অস্বীকার করে কুমিল্লা সিটির ২নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মাসুদুর রহমান মাসুদ জানান, আদম ব্যবসার ১৭ লাখ টাকা পাবে বলে কয়েকজন যুবক তাকে মারছিল। আমি তখন এই রাস্তা দিয়ে যাচ্ছিলাম। এ সময় আমি রিস্ক নিয়ে তাকে রক্ষা করি।

ঝিনাইদহ :ঝিনাইদহ-২ আসনে বিএনপি প্রার্থী আব্দুল মজিদ নৌকার সমর্থকদের বিরুদ্ধে হামলা, নৈরাজ্য, নির্বাচনী প্রচার মাইক ভাংচুর ও প্রচারণা কাজে বাধা প্রদানের অভিযোগ এনেছেন। গতকাল বুধবার ঝিনাইদহ নির্বাচনী তদন্ত কমিটির চেয়ারম্যান ও যুগ্ম জেলা ও দায়রা জজ বরাবর এ অভিযোগ করে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণের আবেদন করেন তিনি।

কালিয়াকৈর (গাজীপুর) :গাজীপুর-১ আসনের কালিয়াকৈর উপজেলার সফিপুর বাজার এলাকায় বুধবার সকালে বিএনপি ও আওয়ামী লীগের দুই গ্রুপে সংঘর্ষের ঘটনায় তাৎক্ষণিক দুই দলের সমর্থকরা পৃথক দুটি সংবাদ সম্মেলন করেন। সংবাদ সম্মেলনে বিএনপি প্রার্থী চৌধুরী তানভীর আহম্মদ সিদ্দিকী কালিয়াকৈর কলেজ রোডের দলীয় কার্যালয়ে এবং আওয়ামী লীগের প্রার্থী অ্যাডভোকেট আ ক ম মোজাম্মেল হক এমপির সমর্থকরা সফিপুর পৌর আওয়ামী লীগের দলীয় কার্যালয়ে পৃথক সংবাদ সম্মেলন করেন। দুই দলের নেতাকর্মীরা হামলা, গাড়ি ভাংচুরের দায় একে অপরের ওপর চাপান।

এদিকে পৌরসভার পল্লী?বিদ্যুৎ এলাকায় পৌর যুবলীগের ৭নং ওয়ার্ড সহসভাপতি মো. মনিরুজ্জামান মনিরের মোটরসাইকেলে আগুন ধরিয়ে দেয় বিএনপি প্রার্থীর সমর্থকরা।

কালাই (জয়পুরহাট) :জয়পুরহাটের কালাইয়ে ধানের শীষের পোস্টার টাঙানোকে কেন্দ্র করে ইউনিয়ন বিএনপির নেতা আব্দুল হান্নান নামের এক যুবককে মারধর করে গুরুতর আহত করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। মঙ্গলবার রাত ৯টার দিকে কালাই থেকে তার গ্রামের বাড়ি পুনট ইউনিয়নের তিশরাপাড়া গ্রামে যাবার পথে ওই গ্রামের মোড়ে মোটরসাইকেল থেকে নামিয়ে তাকে মারধর করা হয়েছে। পুনট ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা তার এ অভিযোগ অস্বীকার করেছেন।

কেশবপুর (যশোর) :একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে যশোর-৬ (কেশবপুর) আসনে বিএনপি মনোনীত প্রার্থী আবুল হোসেন আজাদের ২টি প্রচার মাইকের ব্যাটারি ছিনতাইসহ প্রচারকারীদের মারধর করার অভিযোগ উঠেছে। মঙ্গলবার রাতে উপজেলা বিএনপি কার্যালয়ে ধানের শীষ মার্কার নির্বাচনী এজেন্ট ও পৌর বিএনপির সিনিয়র সহসভাপতি জুলফিকার আলী এক প্রেস ব্রিফিং-এ ওই অভিযোগ করেন।

রানীনগর (নওগাঁ) সংবাদদাতা :নওগাঁর রানীনগরে বিএনপির নির্বাচনী ক্যাম্পে হামলা চালিয়ে ভাংচুর করার অভিযোগ উঠেছে। মঙ্গলবার রাতে উপজেলার পারইল উইনিয়নের বগারবাড়ী বাজারে এ ঘটনা ঘটে।

কুলিয়ারচর (কিশোরগঞ্জ) :কুলিয়ারচরের উছমানপুর ইউনিয়নে গতকাল নির্বাচনী প্রচারণার সময় বিএনপি নেতাকর্মীদের ওপর পুলিশি হামলার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ সময় কিশোরগঞ্জ-৬ আসনের বিএনপি দলীয় প্রার্থী মো. শরীফুল আলম, ৩ পুলিশ কর্মকর্তা, বিএনপি নেতাকর্মীসহ ৩০ জন আহত হয়েছেন বলে জানা গেছে।

কুলিয়ারচর থানার ওসি মো. নান্নু মোল্লা জানান, কোনাপাড়া চৌমুড়ি এলাকায় বিএনপি ও আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের মাঝে উত্তেজনা দেখা দিলে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে ঘটনাস্থলে পুলিশ যায়। এ সময় কুলিয়ারচর থানার উপ-পরিদর্শক এহসানুল হক, আজিজুল হক ও সহকারী উপ-পরিদর্শক শীতল পাল আহত হন বলে তিনি জানান।

সংশ্লিষ্ট খবর