অন্যান্য

তফসিল ঘোষণাকে স্বাগত আওয়ামী লীগের

প্রকাশ : ০৮ নভেম্বর ২০১৮ | আপডেট : ০৮ নভেম্বর ২০১৮

তফসিল ঘোষণাকে স্বাগত আওয়ামী লীগের

মাহবুবউল আলম হানিফ -ফাইল ছবি

  সমকাল প্রতিবেদক

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণাকে স্বাগত জানিয়েছে আওয়ামী লীগ। সেইসঙ্গে নির্বাচনে উৎসবমুখর পরিবেশে সব রাজনৈতিক দলই অংশ নেবে বলে প্রত্যাশা ব্যক্ত করেছে তারা।

বৃহস্পতিবার আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার ধানমণ্ডির রাজনৈতিক কার্যালয়ে প্রেস ব্রিফিংয়ে দলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবউল আলম হানিফ এসব কথা বলেন। 

সন্ধ্যায় প্রধান নির্বাচন কমিশনার কে. এম. নুরুল হুদা নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পরপরই দলীয় প্রতিক্রিয়া জানাতে ওই প্রেস ব্রিফিংয়ের আয়োজন করে আওয়ামী লীগ।

এদিকে তফসিল ঘোষণাকে অভিনন্দন জানিয়েছে আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন ১৪ দলের শরিক দলগুলোসহ অন্যান্য রাজনৈতিক দল। তফসিল ঘোষণার পর পর আওয়ামী লীগ ও সহযোগী-ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠনগুলো রাজধানী ঢাকাসহ সারাদেশে আনন্দ মিছিল ও সমাবেশ করেছে।

মাহবুবউল আলম হানিফ বলেন, আগামী ২৩ ডিসেম্বর একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন হবে। সব রাজনৈতিক দল উৎসবমুখর পরিবেশে এ নির্বাচনে অংশ নেবে, এটিই প্রত্যাশা।

জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের পুনঃতফসিলের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে তিনি বলেন, প্রতিটি রাজনৈতিক দলই চায় জনগণের সেবা করতে। সেজন্য নির্বাচনে আসতে হবে। জনগণের ম্যান্ডেট নিয়ে ক্ষমতায় বসতে হবে। ঐক্যফ্রন্ট জনগণের সেবা করতে চাইলে নির্বাচনে আসবে- এমনটাই প্রত্যাশা করি।

বিভিন্ন দলের অভিনন্দন: একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করায় নির্বাচন কমিশনকে অভিনন্দন জানিয়েছে জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল (জাসদ)। 

দলের সভাপতি তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু ও সাধারণ সম্পাদক শিরীন আখতার এমপি এক বিবৃতিতে বলেছেন, সব হুমকি-ধমকি উপেক্ষা করে তফসিল ঘোষণা করায় প্রধান নির্বাচন কমিশনারসহ নির্বাচন কমিশনকে অভিনন্দন জানাচ্ছি। এই তফসিল ঘোষণার মধ্য দিয়ে নির্বাচন নিয়ে সন্দেহ-সংশয়ের অবসান হলো।

বাংলাদেশ ন্যাশনালিস্ট ফ্রন্টের (বিএনএফ) চেয়ারম্যান এস এম আবুল কালাম আজাদ এমপি এক বিবৃতিতে নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করায় নির্বাচন কমিশনকে অভিন্দন জানিয়েছেন।

আনন্দ মিছিল ও সমাবেশ: তফসিল ঘোষণার আগে থেকেই আওয়ামী লীগ ও বিভিন্ন সহযোগী-ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠনের নেতাকর্মীরা রাজধানীর বিভিন্ন স্থানে অবস্থান নিয়েছিলেন। তফসিল ঘোষণার সঙ্গে সঙ্গে তারা আনন্দ মিছিল বের করেন। এসব মিছিল থেকে নির্বাচনকে স্বাগত জানিয়ে বিভিন্ন ধরনের স্লোগান দেওয়া হয়।

তফসিল ঘোষণার পর বঙ্গবন্ধু এভিনিউর আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কার্যালয়সহ আশপাশের এলাকায় সমবেত নেতাকর্মীদের মধ্যে উচ্ছ্বাস দেখা গেছে। সেখানে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের দলীয় নেতাকর্মীরা আনন্দ মিছিল করেন। এ সময় একে অন্যকে মিষ্টিমুখও করান তারা। 

সেখানে মহিলা আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ, ছাত্রলীগসহ বিভিন্ন সংগঠনও আনন্দ মিছিল করে। একই ধরনের উৎসবমুখর পরিবেশ দেখা গেছে আওয়ামী লীগ সভাপতির ধানমণ্ডির রাজনৈতিক কার্যালয় ও এর আশপাশের সড়কেও।

তফসিল ঘোষণা উপলক্ষে যুবলীগ সন্ধ্যায় ধানমণ্ডি বঙ্গবন্ধু ভবন প্রাঙ্গণে সমাবেশ ও শপথগ্রহণ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। এই সমাবেশে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উন্নয়ন ও অগ্রগতি এগিয়ে নিতে ও সব অপশক্তির বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াতে শপথ নেন বিপুলসংখ্যক নেতাকর্মী।

যুবলীগ চেয়ারম্যান ওমর ফারুক চৌধুরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন সাধারণ সম্পাদক হারুনুর রশীদ, কেন্দ্রীয় নেতা শহীদ সেরনিয়াবাত, মজিবুর রহমান চৌধুরী, মাহবুবুর রহমান হিরন, আবদুস সাত্তার মাসুদ, আতাউর রহমান, সুব্রত পাল, বদিউল আলম, ফজলুল হক আতিক, কাজী আনিসুর রহমান, মিজানুল ইসলাম মিজু, ড. সাজ্জাদ হায়দার লিটন, মাইনুল হোসেন খান নিখিল, ইসমাইল হোসেন, মাইনুদ্দিন রানা, রেজাউল করিম রেজা প্রমুখ।

সংশ্লিষ্ট খবর


মন্তব্য যোগ করুণ

পরের
খবর

বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট নিখোঁজের খবর গুজব


আরও খবর

অন্যান্য

  সমকাল প্রতিবেদক

'বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ নিখোঁজ' শিরোনামে প্রকাশিত সংবাদটি একটি গুজব।

বুধবার এক সরকারি তথ্য বিবরণীতে এ তথ্য জানানো হয়।

তথ্য মন্ত্রণালয়ের ‘গুজব প্রতিরোধ ও অবহিতকরণ সেল’ খবরটিকে ‘উদ্দেশ্যপ্রণোদিত গুজব’ জানিয়ে এতে বিভ্রান্ত না হওয়ার জন্য সবাইকে অনুরোধ করেছে।

তথ্য বিবরণীতে বলা হয়, 'বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ নিখোঁজ' শিরোনামে সোশ্যাল মিডিয়া ও কয়েকটি অনলাইন পোর্টালে প্রচারিত সংবাদটি একটি গুজব।

এতে বলা হয়, ফ্রান্সের থ্যালাস এলেনিয়া স্পেস কোম্পানি স্যাটেলাইটটি নিয়ন্ত্রণের দায়িত্ব বাংলাদেশকে বুঝিয়ে দিয়েছে। এই স্যাটেলাইটের ফ্রিকোয়েন্সি ব্যবহার করে বাংলাদেশ টেলিভিশন প্রতিদিন সফলভাবে অনুষ্ঠান প্রচার করছে

তথ্য বিবরণীতে আরও বলা হয়, অতএব, বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ নিখোঁজ শিরোনামে প্রচারিত সংবাদটি একটি উদ্দেশ্যপ্রণোদিত গুজব।


পরের
খবর

সশস্ত্র বাহিনী দিবসে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা


আরও খবর

অন্যান্য

ফাইল ছবি

  সমকাল প্রতিবেদক

সশস্ত্র বাহিনী দিবসে ঢাকা সেনানিবাসের শিখা অনির্বাণে ফুল দিয়ে মুক্তিযুদ্ধে শহীদ সেনা, নৌ ও বিমান বাহিনীর সদস্যদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়েছেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

বুধবার সকালে রাষ্ট্রপতি শিখা অনির্বাণে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানানোর পর কিছু সময় নীরবে দাঁড়িয়ে থাকেন। রাষ্ট্রপতির পর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শিখা অনির্বাণে ফুল দিয়ে শহীদ সেনাদের প্রতি শ্রদ্ধা জানান। 

রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর পর সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদ, নৌবাহিনী প্রধান অ্যাডমিরাল নিজামউদ্দিন আহমেদ এবং বিমানবাহিনী প্রধান এয়ার চিফ মার্শাল মাসিহুজ্জামান সেরনিয়াবাত নিজ নিজ বাহিনীর পক্ষ থেকে শিখা অনির্বাণে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন।

দিবসটি উপলক্ষে আজ তিন বাহিনী প্রধানরা বঙ্গভবনে রাষ্ট্রপতি এবং সশস্ত্র বাহিনী বিভাগে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করবেন। 

সেনা, নৌ ও বিমানবাহিনীর সমন্বয়ে ১৯৭১ সালের ২১ নভেম্বর মুক্তিযুদ্ধের সময় গঠিত হয়েছিল বাংলাদেশ সশস্ত্র বাহিনী। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ডাকে সাড়া দিয়ে '৭১-এর এই দিনেই আত্মোৎসর্গের ব্রত নিয়ে দেশমাতৃকাকে শত্রুমুক্ত করতে সেনা, নৌ ও বিমানবাহিনীর অকুতোভয় বীর সেনানীরা মুক্তিকামী আপামর জনতার সঙ্গে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর বিরুদ্ধে সম্মিলিতভাবে অপ্রতিরোধ্য আক্রমণের সূচনা করেছিলেন। এর পর থেকে প্রতি বছর ২১ নভেম্বর সশস্ত্র বাহিনী দিবস হিসেবে উদযাপিত হয়ে আসছে। 

সংশ্লিষ্ট খবর

পরের
খবর

কারওয়ান বাজারে কাঁচাবাজারের আড়তে অগ্নিকাণ্ড


আরও খবর

অন্যান্য

  সমকাল প্রতিবেদক

রাজধানীর কারওয়ান বাজারে কাঁচাবাজারের আড়তে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। বুধবার ভোর সাড়ে ৪টার দিকে আগুন লাগে। 

ফায়ার সার্ভিস নিয়ন্ত্রণ কক্ষের ডিউটি অফিসার কামরুল হাসান বলেন, ফায়ার সার্ভিসের ৯টি ইউনিটের চেষ্টায় প্রায় দুই ঘণ্টা পর আগুন পুরোপুরি নিয়ন্ত্রণে আসে।

আগুনে দুটি দোকান পুড়ে গেছে। তবে ক্ষয়ক্ষতির আর্থিক পরিমাণ তাৎক্ষণিকভাবে জানাতে পারেনি ফায়ার সার্ভিস। এছাড়া আগুন লাগার কারণ এখনও জানা যায়নি।