এশিয়া

মমতার আল্টিমেটাম চ্যালেঞ্জ করে কর্মবিরতিতে অনড় চিকিৎসকরা

প্রকাশ : ১৩ জুন ২০১৯ | আপডেট : ১৩ জুন ২০১৯

মমতার আল্টিমেটাম চ্যালেঞ্জ করে কর্মবিরতিতে অনড় চিকিৎসকরা

আন্দোলনরত চিকিৎসকদের একাংশ -সমকাল

  কলকাতা প্রতিনিধি

ভারতের পশ্চিমবঙ্গে চিকিৎসকদের নিরাপত্তার দাবিতে চলমান আন্দোলন আরও তীব্র আকার ধারণ করেছে। 

সোমবার রাতে কলকাতার এনআরএস হাসপাতালে এক রোগীর মৃত্যুকে ঘিরে মারধোরের শিকার হন পরিবহ মুখার্জি নামে চিকিৎসক। এরপরই নিরাপত্তার দাবিতে আন্দোলনে নামেন চিকিৎসকরা। অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ করে দেওয়া হয় রাজ্যের সব সরকারি হাসপাতালের পরিসেবা। 

পরে বৃহস্পতিবার এনআরএস হাসপাতালে গিয়ে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় চিকিৎসকদের কর্মবিরতি প্রত্যাহারে আলটিমেটাম দেন। আর তাতেই পরিস্থিতি আরও উতপ্ত  হয়ে উঠেছে।

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এদিন এনআরএস পরিদর্শন করে বলেন, ৪ ঘণ্টার মধ্যে চিকিৎসকরা কাজে না যোগ দিলে সরকার কড়া ব্যবস্থা নেবে। 

মুখ্যমন্ত্রী হাসপাতালে থাকার সময়ই বাইরে বিক্ষোভে ফেটে পড়েন আন্দোলনরত চিকিৎমকরা। হামলার বিচার  চেয়ে স্লোগান দেওয়া শুরু করেন তারা। স্লোগান শুনে ক্ষিপ্ত  হয়ে ওঠেন মমতা। কড়া ভাষায় বিক্ষোভকারী চিকিৎসকদের সমালোচনা করে তিনি সাফ জানিয়ে দেন, বিকেলের মধ্যে কাজে যোগ না দিলে হোস্টেল খালি করে দেওয়া হবে। 

মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ‘একটা ঘটনা ঘটেছে। খবর পাওয়া মাত্রই ব্যবস্থা নিয়েছে পুলিশ। চারদিন ধরে রোগীরা পড়ে রয়েছে। হাসপাতালে রাজনীতি বরদাস্ত করা হবে না। কয়েকজন বহিরাগত গন্ডগোল পাকাচ্ছে।’ এরপরই পরিস্থিতি আরও উত্তপ্ত হয়ে ওঠে। তারা যে বহিরাগত নন, তা বোঝাতে নিজেদের পরিচয়পত্র বের করে দেখান বিক্ষোভরত জুনিয়র চিকিৎসকরা।

চিকিৎসকদের একাংশ  এর প্রতিবাদে গণইস্তফার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন, অন্যদিকে জুনিয়র চিকিৎসকরা দ্বারস্থ হয়েছেন পশ্চিমবঙ্গের রাজ্যপাল কেশরীনাথ ত্রিপাঠীর। রাজ্যপালের সঙ্গে দেখা করার পর চিকিৎসকরা বলেছেন, ‘আমরা স্টেথো হাতে প্রস্তুত, যে মুহূর্তে আমাদের সব দাবি মেনে নেওয়া হবে, আমরা কাজ শুরু করে দেব।’

অন্যদিকে, এরই মধ্যে সাগর দত্ত মেডিক্যাল কলেজের বেশ কয়েকজন চিকিৎসক পদত্যাগ করেছেন। তাদের পাশে এসে দাঁড়িয়েছেন নার্সদের একাংশও। এনআরএসে নার্সরাও কর্মবিরতিতে শামিল হচ্ছেন।

এদিকে চিকিৎসকদের কর্মবিরতির প্রভাব এবার পড়েছে রাজ্যের বাইরেও। শুক্রবার দেশজুড়ে সরকারি হাসপাতালে কর্মবিরতির ডাক দিয়েছেন এইমসের এক চিকিৎসক সংগঠন। এনআরএসের ঘটনার জেরে আন্দোলনরত চিকিৎসকদের পাশে দাঁড়িয়ে দিল্লির এইমসের চিকিৎসকদের একাংশ আগেই অভিনব প্রতিবাদ শুরু করেছেন। রীতিমতো হেলমেট এবং ব্যাজ পরে কাজে এসেছিলেন তারা। এবার সরাসরি পরিসেবা বন্ধ করে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে এইমসের একটি চিকিৎসক সংগঠন। মুম্বাইয়ে প্ল্যাকার্ড হাতে রাজ্যের চিকিৎসকদের আন্দোলনকে সমর্থন জানিয়েছিলেন চিকিৎসকরা। 

এদিকে জুনিয়র চিকিৎসকদের আন্দোলন ইস্যুতে মুখ্যমন্ত্রী মমতার পদত্যাগ দাবি করেছে বিজেপি। দলের নেতা মুকুল রায় বলেন, মুখ্যমন্ত্রী স্বৈরাচারী। আহত জুনিয়র চিকিৎসকদের প্রতি তার কোনও সহানুভূতি  নেই। অবিলম্বে মুখ্যমন্ত্রীর পদত্যাগ করা উচিত।

মন্তব্য


অন্যান্য